বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

হাওরে কাজ না করা ঠিকাদাররা ব্ল্যাক লিস্টেড হচ্ছেন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৪৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের ৩৬ টি হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি, চুক্তি মোতাবেক কাজ না করায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের ব্ল্যাকলিস্টেড করার উদ্যোগ নিচ্ছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। পানি উন্নয়ন বোর্ডের বর্তমান নির্বাহী প্রকৌশলী জানিয়েছেন, কন্ট্রাক্ট ভায়োলেট করলে ব্ল্যাক লিস্টসহ যে যে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন, সব কিছুই করা হবে। এই বিষয়ে কোন ছাড় দেওয়া হবে না। বিষয়টি জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় সকল ব্যবস্থাই বিধি মোতাবেক করা লাগবে।
পাউবোর একজন কর্মকর্তা জানান, হাওর রক্ষা বাঁধ সময়মত না করায় কেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না এই মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল সুনামগঞ্জ পাউবো’র ৪৭ জন ঠিকাদারকে। এরা সকলেই দুদকের মামলার আসামী। নোটিশপ্রাপ্ত ঠিকাদারদের মধ্যে ৩০ জন জবাব দিয়েছেন। এই জবাব নিয়ে বুধবার পাউবো’র সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী ঢাকায় গিয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার পাউবো’র প্রধান প্রকৌশলী এবং অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী এসব জবাব যাচাই-বাছাই এবং পর্যালোচনা করেছেন। পরে এই বিষয়ে বোর্ডের সিদ্ধান্ত হয়েছে, কারণ দর্শানোর চিঠির জবাব দেবার জন্য ২৮ দিন সময় দেওয়া হয়েছিল। রেজিস্টার্ড উইথ এডিতে পাঠানো চিঠি’র কোন কোনটি ৮-১০ দিন পরেও পৌঁছেছে। আইনী জটিলতা এড়ানোর জন্য জবাব দিতে যারা ২৮ দিন সময় পায়নি তাদের জন্য সময় বাড়ানো হয়েছে। সময় শেষ হলে একসঙ্গে সকল জবাব নিয়ে আবার বসা হবে।
ঐ কর্মকর্তা জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বৈঠকে যে ৭ জন ঠিকাদার ২০ টি প্যাকেজের কাজ করেননি এই হাওরগুলোও আলোচনায় আসে। এই হাওরগুলোর কোন কোনটি যে পানি আসার প্রাথমিক পর্যায়েই তলিয়ে গেছে, এ নিয়েও আলোচনা হয়। ধর্মপাশার চন্দ্রসোনার তালসহ জেলার বৃহৎ হাওর নলুয়ার হাওর, দেখার হাওর, করচার হাওর, নাইন্দার হাওর, খাই হাওর, ছায়ার হাওর, গুরমার হাওর, হালির হাওর, মাটিয়ান হাওর, গুড়াডোবা হাওর, পাগনার হাওর, কাইলানি হাওর, টাঙ্গুয়ার হাওর, ভান্ডা বিল হাওর ও জোয়ালভাঙা হাওরে ২০ টি প্যাকেজে বাঁধের কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছিল। এগুলোর কাজ শূন্য থেকে ৩০ শতাংশ হয়েছে। এ কারণে হাওরগুলোর হাজার হাজার কোটি টাকার ফসল ডুবেছে।
ঐ কর্মকর্তা জানান বোর্ডের দায়িত্বশীলরা বলেছেন,‘এই হাওর রক্ষা বাঁধগুলোর কাজ না হওয়ায় কৃষক ও রাষ্ট্র আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্মচারী, ঠিকাদার ও পিআইসিদের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত এবং প্রশ্নের সম্মুখিন হয়েছে। এই অবস্থায় পাউবোর সদস্যরা কোনভাবেই নীতিমালার বাইরে কোন সিদ্ধান্ত নেবেন না।’
পাউবোর সুনামগঞ্জের বর্তমান নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু বকর সিদ্দিক ভুইয়া বলেন,‘সব কিছুই বিধি মোতাবেক করা হচ্ছে, জাতীয় স্বার্থে কোন বিষয়েই ছাড় দেবার কোন সুযোগ নেই। আমরা সেটি করবোও না। শোকজের চিঠি পর্যালোচনার পর চুক্তি বাতিলের চিঠি দেওয়া হবে। সেটিও প্রক্রিয়াধীন। এই চিঠি দেবার পর কন্ট্রাক্ট ভায়োলেটকারী ঠিকাদাররা যতটুকু কাজ করেননি, তার উপর জরিমানা আরোপ করা হবে। এরপর পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে ব্ল্যাক লিস্টেড তালিকা করা হবে এবং এরা যাতে বাংলাদেশের কোথাও দরপত্রে অংশ না নিতে পারেন এমন ব্যবস্থা নেবার জন্যও সুপারিশ করা হবে। এই ধরনের সিদ্ধান্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডিজি অনুমোদন করবেন। বোর্ড থেকে শেষে এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।’ সূত্র দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24