মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান জগন্নাথপুর আ,লীগের সন্মেলন কে স্বাগত জানিয়ে সৈয়দপুর বাজারে মিছিল জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন ১ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে ফের বুধবার থেকে ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের থানায় মামলা জগন্নাথপুরে ভুয়া নাগরিক সনদপত্র সংগ্রহকারী ২৫ জন সনাক্ত জগন্নাথপুরে ফাঁদে পড়ে খাঁচায় বন্দি মেছোবাঘ সুনামগঞ্জে ওয়ার্ড-ইউনিয়ন সম্মেলন না করেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় দলের তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিক্রিয়া

হাওরে জেলে কৃষকদের মুখোমুখি ইজারাদাররা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৩২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের জলমহাল পাড়ের জেলে-কৃষকদের মুখোমুখি এখন ইজারাদাররা। ইজারাকৃত জলমহালের সীমানা নির্ধারণ না হওয়ায় জেলাজুড়ে এই সংকট তৈরি হচ্ছে। ক্যালে-ারভুক্ত (রাজস্ব আদায়ের জন্য তালিকাভুক্ত) বা ইজারাকৃত জলমহাল ছাড়াও কোথাও কোথাও খাস কালেকশনের কথা বলে স্থানীয় প্রভাবশালীরা টাকা তুলছে। ক্যালে-ারভুক্ত ফিসারী নয় বা ইজারাঅযোগ্য নদীতেও প্রভাবশালীরা জেলেদের মাছ ধরতে দিচ্ছে না। রোববার জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায়ও এই বিষয় নিয়ে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন উপজেলার বড় জলমহালগুলোর বেশির ভাগেরই সীমানা নির্ধারণ হয়নি এবং জেলে-কৃষকরা মাছ ধরতে নামলে ইজারাদারের লোকজনের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধছে। গত ৩ নভেম্বর রাতে হাওরে মাছ ধরার সময় দিরাই উপজেলার খাগাউড়া গ্রামের প্রভাবশালীরা আব্দুল হান্নান নামের এক জেলেকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ এনে থানায় মামলা হয়েছে। গত শীত মৌসুমে (১৭ জানুয়ারি) দিরাইয়ে জলমহাল নিয়ে বন্দুকযুদ্ধে তিনজন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। একই মাসের ২৬ তারিখে শাল্লার চ-িডহরে জলমহালের দখল নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত এবং ৫০ জন আহত হয়। ২৯ জানুয়ারি শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের সোনাখানি গ্রামের পাশের ছোট জলমহালে মাছ ধরা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়।
এবারও মাছ ধরার মৌসুম সামনে কিন্তু জেলার কোন জলমহালেরই সীমানা নির্ধারণ হয়নি।
ধর্মপাশার করমানদী, বাইয়াগাঙ, বাদে মধ্যনগর দিঘর ও ভুইয়াজুরি জলমহালসহ একই অবস্থা দিরাই উপজেলার সেচনীর হাওর, চাপতির হাওর, হাসুয়া-কাটুয়া ও কচুয়া বিল, বরাম হাওর, শয়তানখালি দ্বিতীয় ও চতুর্থ খ- জলমহালে। জামালগঞ্জের ভোচার হাওর, ছাতিধরা, নলছুন্নি, ছাদরা গ্রুপ, শাল্লা উপজেলার মাহতি-গরালিয়া জলমহালেরও সীমানা নির্ধারণ করে দেয়া হয়নি।
একইভাবে সুনামগঞ্জ সদর, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, ছাতক, দোয়ারা ও জগন্নাথপুর উপজেলার কোন জলমহালেরই সীমানা নির্ধারণ হয় নি। এসব জলমহালের কোন কোনটি ইজারাও হয়নি। আবার এমনও জলমহাল রয়েছে যেগুলো ক্যালেন্ডারভুক্তও নয়। তবুও চলছে অন্যায় শাসন। চলছে টুকেন দিয়ে চাঁদাবাজি।
কৃষক সংগ্রাম সমিতির কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক, ধর্মপাশার বাসিন্দা খায়রুল বাশার ঠাকুর খান বলেন, ‘এবার
কেবল জেলেরা নয়, দরিদ্র-প্রান্তিক কৃষকরা বাঁচার জন্য মাছ ধরতে হাওরে নামছে। এজন্য এই বছর ইজারাদারদের অত্যাচারও বেশি। জলমহালের ইজারাদাররা প্রতিবছরই নিজের সীমানা ছাড়িয়ে জেলে-কৃষকদের বাড়ির পাশের ডুবাজমি পর্যন্ত শাসন করে। বিগত মৌসুমে ফসল হারিয়ে নিঃস্ব কৃষকরা ক্ষুধার জ্বালায় অস্থির, অন্যায় শাসনের তোয়াক্কা না করেই মাছ ধরতে নামছে। এই অবস্থায় জেলা প্রশাসক জলমহালের সীমানা নির্ধারণ করে দেবার কথা ঘোষণা দেওয়ায় মানুষ ইতিবাচক ভাবেই গ্রহণ করেছিল। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা জনগণের পক্ষের সেই কাজটি করতে বিলম্ব করায় শঙ্কা বাড়ছে। ক্যালে-ারভুক্ত জলমহাল ছাড়াও কোথাও কোথাও খাস কালেকশনের কথা বলে টুকেন দিয়ে চাঁদাবাজি হচ্ছে। ধর্মপাশার করমানদী ও বাইয়াগাঙ ক্যলে-ারভুক্ত নয়। সেগুলোতেও টুকেন দিয়ে চাঁদাবাজি হচ্ছে।’
এদিকে, রোববার জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায়ও জলমহালের সীমানা নিয়ে কথা হয়েছে। সভায় উপস্থিত জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন এবং জেলা জাসদের সভাপতি আ ত ম সালেহ্সহ অনেকেই এই বিষয়ে কথা বলেছেন। তাঁরা বলেছেন,‘অসহায় জেলে-কৃষকদের উপর জুলুম নির্যাতন করা যাবে না। জলমহালের সীমানা নির্ধারণ করতে হবে। জরুরি ভিত্তিতে সীমানা নির্ধারণ করে ইজারাকৃত জলমহালের সীমানার বাইরে মাছ ধরার সুযোগ দিতে হবে।’
জাসদ সভাপতি আ ত ম সালেহ্ বলেন,‘জেলা প্রশাসক ইউএনওদের নির্দেশ দিয়েছেন, সার্ভেয়ারদের দিয়ে জলমহালের সীমানা নির্ধারণ করে দেবার জন্য। সীমানার বাইরে জেলেদের মাছ ধরার সুযোগ দেবার কথাও বলেছেন তিনি।’
জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আইনের মধ্যে থাকতে চাই, কোথাও আইনের ব্যত্যয় ঘটুক বা আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটতে দেওয়া হবে না। ইজারাকৃত জলমহালের ইজারাদারকে ইজারাচুক্তি অনুযায়ী জলমহালের সীমানা নির্ধারণের জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। সেটি নিশ্চিত করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে চিঠি দেওয়া হয়েছে। উন্মুক্ত জলাশয় সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24