মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নে ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন যুক্তরাষ্ট্রে দুই পুলিশ সদস্যকে গুলি করে হত্যা থানা হেফাজতে আত্মহত্যার দায় পুলিশ এড়াতে পারে না: ডিএমপি কমিশনার ’সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ১৩ হাজার পদ শূন্য’ জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন আজ জগন্নাথপুরের লহরী গ্রামে শীতবস্ত্র বিতরণ আদালতের আদেশে জগন্নাথপুরের বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উৎসব আবারো স্থগিত মিরপুরে বর্নিল সাজে দুইদিন ব্যাপি প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন মৌলভীবাজারে স্ত্রী-মাসহ ৪ জনকে হত্যার পর আত্মহত্যা

১১ দিনে মাকে কাঁধে নিয়ে বাংলাদেশে কাশেম

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৬৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::বুদরুজ জামান (৯৭)। বুছিডংয়ের ইয়ংছং গ্রাম থেকে ১১ দিন পর বাংলাদেশে আশ্রয়ের জন্য পৌঁছে। বয়সের ভারে হাড্ডিসার ও অচল হয়ে পড়েছে বুদরুজ জামান। তার ছেলে মোহাম্মদ কাশেম একটি বড় গামলায় করে মা বুদরুজ জামানকে কাঁধে নিয়ে ৫ দিন হেঁটে ধংখালী সীমান্তে পৌঁছেন। এপারে আসার জন্য ১১ দিন অর্ধাহারে-অনাহারে বালুচরে থাকতে হয়েছে। সঙ্গে রয়েছে পরিবারের স্ত্রীসহ আরো ৬ ছেলে মেয়ে।

সাবরাংয়ের হারিয়াখালীর সেনাবাহিনীর ত্রাণ কেন্দ্রে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় কাশেম জানায়, মিয়ানমার সীমান্তের নাফ নদের কিনারায় ১০ দিন ধরে নৌকার অপেক্ষায় ছিলেন। অবশেষে ১১ দিনের দিন বুধবার ভোর রাতে ২ লাখ কিয়াতের বিনিময়ে এপারে আসতে সক্ষম হয়েছি। তিনি জানান, ধংখালী বালুচর এলাকায় হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আসার জন্য অপেক্ষায় রয়েছে। এপার থেকে নৌকা বা বোট না যাওয়ায় অর্ধাহারে অনাহারে দিনাতিপাত করছে। কোনো কোনো পরিবার ২০ দিন, ১৫ দিন, ১০ দিন পর্যন্ত সীমান্তের বালুচরে অপেক্ষায় রয়েছে। সবাই বুচিডং থানার বিভিন্ন গ্রামের রোহিঙ্গা মুসলিম। তারা না পারছে এদেশে আসতে না পারছে ফিরে যেতে। খাদ্য ও পানি সংকটে প্রায় রোহিঙ্গা শিশু ও বৃদ্ধা অসুস্থ হয়ে পড়ছে।
সে জানায়, মগ সেনারা এখন শারীরিক অত্যাচার, নির্যাতন না করলেও মানসিক ও খাদ্য সংকটে মারছে। ঘর থেকে বের হতে দিচ্ছে না। কোনো কাজ কর্ম নেই। তাই বাধ্য হয়ে এপারে চলে আসি।
এদিকে বুচিডং জেইডং গ্রাম থেকে আসা মৃত জিয়াউর রহমানের স্ত্রী লায়লা বেগম (২৭) জানান, ২৫শে আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতা শুরু হলে পর দিন মিলিটারির গুলিতে মারা যায় স্বামী জিয়াউর রহমান। এরপর থেকে তিন ছেলে মো. জুনাইদ (১২), যমজ সন্তান মো. জুনাইদ (৭) ও মো. ইয়াছের (৭) কে নিয়ে আত্মীয় স্বজনের এ বাড়ি ও বাড়ি গিয়ে আশ্রয়ে থেকেছে। কিন্তু চারদিকে খাদ্যের জন্য হাহাকার। পুরুষদেরও সারাদিন বাড়ি থেকে বের হতে দেয় না সেনারা। বাড়িতে খাদ্য নেই। এ অবস্থায় অর্ধহারে অনাহারে মানবেতর দিন কাটিয়েছে।
শুনেছি বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের রিলিফ দিচ্ছে। তাই প্রাণ বাঁচাতে তিন ছেলে নিয়ে এদেশে এসেছি।
তিনি বলেন, ২০ দিন যাবত ধংখালী বালুচরে নৌকার অপেক্ষায় ছিলাম। মঙ্গলবার রাতে কয়েকটি নৌকা পৌঁছলে এলাকার আরো ৭টি পরিবারের সঙ্গে তিন ছেলেকে নিয়ে একটি নৌকায়। আরো হাজার হাজার নারী পুরুষ ও শিশু ওই বালুচরে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। অনেকদিন ধরে অভুক্ত রয়েছে ওইসব রোহিঙ্গা।
ত্রাণ কেন্দ্রের এক কর্মকর্তা জানান, প্রায় দেড় হাজারের মতো রোহিঙ্গা নতুন করে ঢুকেছে এপারে।
এ সময় ওই ত্রাণ কেন্দ্রে সেনাদের অনুমতিক্রমে অনেক দানশীল ব্যক্তি খাদ্য দিয়ে আগত রোহিঙ্গাদের সাহায্য করছে। বিভিন্ন সংস্থা বিস্কুট ও পানি সরবরাহ করছে। অভুক্ত শিশুরা খাদ্য পেয়ে অমনি খেতে শুরু করেছে। অসুস্থদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশে সেনাবাহিনীসহ কয়েকটি মেডিকেল টিম।
এ ছাড়া গতকাল ভোর রাতেও প্রায় দেড় হাজার রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ ঘটেছে। এক শ্রেণির দালাল ও নৌকার মাঝিরা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে রাতের আঁধারে তাদের এ পারে নিয়ে আসছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24