বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩৫ অপরাহ্ন

টাঙ্গুয়ার হাওরে জ্যোৎস্না উৎসবে আলোকিত

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ৬৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: দেশের উত্তর-পূর্ব প্রান্তের জীববৈচিত্র সমৃদ্ধ সবচেয়ে বড় জলাভূমি বিশ্বের অন্যতম রামসার সাইট টাঙ্গুয়ার হাওরকে পর্যটন এলাকা হিসাবে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্য তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের আয়োজনে টাঙ্গুয়ার হাওরের গোলাভারি পার্শ্ববতী রূপাবই বিলে ২ দিন ব্যাপি জোৎ¯স্না উৎসব শুরু হয়েছে। শুক্রবার বিকাল সাড়ে ছয়টায় এ উৎসবের উদ্বোধন করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। এসময় সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজারের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামছুন নাহার বেগম শাহানা, সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেন, পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল প্রমুখ বক্তব্য দেন।
২ দিন ব্যাপি উৎসবের প্রথম দিন হচ্ছে হাওরের রূপা ভুই বিলে। আজ শনিবার সকালে এই উৎসব হয়েছে পাশের লাউড়েরগড়ের বারেকের টিলায়। উৎসবকে ঘিরে টাঙ্গুয়ার হাওরে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসেছেন উৎসুক দর্শক ও পর্যটকেরা।
সুনামগঞ্জ জেলা সদর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে তাহিরপুর ও ধর্মপাশা উপজেলায় টাঙ্গুয়ার হাওড়ের অবস্থান। ছয়কুড়ি বিল, নয়কুড়ি কান্দার
সমন্বয়ের এ হাওড়ের দৈর্ঘ্য ১১ এবং প্রস্থ ৭ কিলোমিটার। এই হাওড় এবং পার্শ্ববর্তী এলকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য পর্যটকদের পরিচয় করিয়ে দেবার লক্ষ্যে ২ দিনব্যাপি ব্যতিক্রমী জোৎ¯স্না উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। হাওরের গোলাভারী এলাকার পার্শ্ববর্তী রূপাবই বিলের বিশাল জলরাশির মাঝখানে বাল্কহেডের উপর করা হয়েছে অনুষ্ঠান মঞ্চ। হাওড় পাড়ের দর্শকরা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছেন উৎসুক দর্শক ও পর্যটকেরা। দর্শক ও পর্যটকরা নিজ নিজ ট্রলার-বাল্কহেড থেকেই অনুষ্ঠান উপভোগ করেছেন। দর্শকদের অনেকেই বলেছেন আমরা ঈদের ছুটি আনন্দে কাটাতে এসেছি। এখানকার প্রাকৃতিক রূপ সৌন্দর্যের পাশাপাশি বাড়তি আনন্দ পেয়েছি জোৎ¯œা উৎসব হওয়ায় টাঙ্গুয়ার হাওড় পাড়ের শ্রীপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. হারুন অর রশিদ বলেন,‘গত ১৩ বছরে এই হাওরের তেমন কোন উন্নয়ন ঘটেনি। মাছ, গাছ, পাখি সবই কমেছে, এখন উৎসব শুরু হয়েছে, এটি কিজন্য করা হচ্ছে তাও জানি না আমরা’। একই মন্তব্য করলেন সুনামগঞ্জের নতুনপাড়ায় বাসিন্দা গৌরব বণিক।
ঢাকার ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী সৃজন দেব, লালবাগ থেকে আসা পর্যটক সাদিয়া সেলিম পিংকি ও সুমন আলী বলেন,‘আমরা টাঙ্গুয়ার হাওরের জীব-বৈচিত্র দেখার জন্য এসেছি। বাড়তি আনন্দ হিসাবে এখানকার উৎসবে যুক্ত হয়েছে। তবে হাওরের মাঝখানে এমন উৎসব পরিবেশ-প্রতিবেশের উপর প্রভাব পড়ে কী-না সেটি দেখতে হবে। উৎসব উপলক্ষে এখানে যন্ত্রচালিত যানবাহন যেমন বেশি আসছে। গান-বাজনা হচ্ছে। কিছু বর্জ্যও পড়বে হাওরে। এটি ভেবে দেখার রয়েছে’।
স্থানীয় সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেন বলেন,‘টাঙ্গুয়ার হাওড় বাঁচলে গাছ বাঁচবে, মাছ বাঁচবে। টাঙ্গুয়ার হাওড় কেন্দ্রীক ইকোট্যুরিজম গড়ে তুলতে হবে। টাঙ্গুয়ার হাওরের গত ১৩ বছরের ব্যবস্থাপনা কোন কাজে আসেনি। মাছের উৎপাদন বিনষ্ট হয়েছে। গাছ লাগানো হয়নি। এই সময়ে প্রায় ৭০ কোটি টাকা ব্যয় হলেও এই টাকা হাওড়ের জীব-বৈচিত্র রক্ষায় কাজে আসেনি’।
উৎসবের উদ্যোক্তা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,‘দেশ-বিদেশের পর্যটকদের টাঙ্গুয়ার হাওড়ের প্রাকৃতিক দৃশ্য ও এর আশপাশের অপরূপ প্রাকৃতিক দৃশ্যকে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্যই এই উৎসব’।
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুনুর রশিদ বলেন,‘পরিবেশ-প্রতিবেশের কথা বিবেচনায় এনে উৎসবের সাউন্ড কন্ট্রোল, অর্থাৎ বিকট শব্দ যাতে না হয় সে ব্যবস্থা করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সতর্ক করে বলে দেওয়া হয়েছে দর্শকদের খাবার-দাবারের বর্জ্যও যেন হাওড়ে না ফেলে যার যার নৌকায় রাখেন সেটি দেখতে’।
স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘ আমাদের উদ্দেশ্য মহৎ, পরিবেশ ও প্রতিবেশের সুরক্ষা রেখেই এই আয়োজন হয়েছে। হাওরের জীব-বৈচিত্রের উপর নেতিবাচক যাতে কোন প্রভাব না পড়ে, সেটি খেয়াল রাখা হচ্ছে ’।
আলোচনাসভা শেষে রাত ৮ টায় শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন- সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম, দেওয়ান গিয়াস ও কাশ্মির রেজা।
রাতে সঙ্গিত পরিবেশন করেন শাহনাজ বেলী, আশিক ও ঐশি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24