1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন

নজরুল ভাবনা – মনোরঞ্জন তালুকদার

  • Update Time : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০
  • ১৪৬ Time View

বাংলা সাহিত্যে ধুমকেতুর মত যার আবির্ভাব তিনি হচ্ছেন আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। নজরুলকে বুঝতে হবে তাঁর কল্প জগতের রূপ – স্বরূপে, জানতে হবে তাঁর রচনাবলীর অন্তর্গত ভাব মাধুর্যে, খুঁজতে হবে বাঞ্চিত জীবনের ভাবনা জগতে।
কবি মাত্রই আবেগ তাড়িত, হৃদয় চালিত সরল প্রাণ। নজরুল ছিলেন সাম্যবাদী তবে তিনি সমাজসমস্যা সম্পর্কে অবগত থাকলেও রাজনীতির জটিলতা ও কুটিলতা বুঝতেন না, তাই তাঁর মধ্যে মুক্তির আকুলতা থাকলেও মুক্তির পথ পদ্ধতি সম্পর্কে অবগত ছিলেন বলে মনে হয়না। ফলে কখনো তিনি উদার, কখনো বিশ্বাস – সংস্কারবদ্ধ, কখনো মুসলিম ও বৈশ্বিক মুসলিম ভাতৃত্ববাদী, কখনো হিন্দু – মুসলিম মিলনে নয় কেবল, অভিন্ন বাংগালীত্বে আস্থাবান। সবচেয়ে বড় কথা তিনি সাম্যবাদী হলেও নাস্তিক নিরীশ্বরী ছিলেন না। ধর্মপ্রাণ মুসলমান হিসেবে তিনি যেমন ইসলামী হামদ ও নাত, গান ও কবিতা লিখেছেন, বিশ্ব মুসলিম জাগরণে ছিলেন আগ্রহী, তেমন কালী বন্দনায় রচনা করেছেন অসংখ্য শ্যামা সংগীত। ফলে তাঁঁকে বাংগালী হিন্দু – মুসলমান তাদের স্বার্থ ও প্রয়োজনে নানা ভাবে ব্যবহার করেছে। প্রখ্যাত বামপন্থী চিন্তাবিদ বদরুদ্দীন উমর তাঁর এই ভূমিকার জন্য তাঁকে বলেছেন দ্বিধর্মী। কেউ দ্বিধর্মী হতে পারেনা। এ ছিল দরিদ্রের অর্থোপার্জনের প্রয়োজনে দ্বিমুখী ভূমিকা মাত্র। এতে আদর্শনিষ্ঠা যতনা ছিল তারচেয়ে বেশী ছিল বাস্তব প্রয়োজননিষ্ঠা। আব্বাসউদ্দীন তাঁর আত্মজীবনী- “দিনলিপি ও আমার শিল্পী জীবনের কথা” বইতে লিখেছেন,
শ্যামা সঙ্গীতের রেকর্ডিং শেষে কাজী নজরুল ইসলাম বাড়ি ফিরছেন। যাত্রাপথে তাঁর পথ আগলে ধরেন সুর সম্রাট আব্বাস উদ্দীন। একটা আবদার নিয়ে এসেছেন তিনি। আবদারটি না শোনা পর্যন্ত নজরুলকে তিনি এগুতে দিবেন না।
আব্বাস উদ্দীন নজরুলকে সম্মান করেন, সমীহ করে চলেন। নজরুলকে তিনি ‘কাজীদা’ বলে ডাকেন। নজরুল বললেন, “বলে ফেলো তোমার আবদার।”
আব্বাস উদ্দীন সুযোগটা পেয়ে গেলেন। বললেন, “কাজীদা, একটা কথা আপনাকে বলবো বলবো ভাবছি। দেখুন না, পিয়ারু কাওয়াল, কাল্লু কাওয়াল এরা কী সুন্দর উর্দু কাওয়ালী গায়। শুনেছি এদের গান অসম্ভব রকমের বিক্রি হয়। বাংলায় ইসলামি গান তো তেমন নেই। বাংলায় ইসলামি গান গেলে হয় না? আপনি যদি ইসলামি গান লেখেন, তাহলে মুসলমানদের ঘরে ঘরে আপনার জয়গান হবে।”
বাজারে তখন ট্রেন্ড চলছিলো শ্যামা সঙ্গীতের।
গানের বাজারের যখন এই অবস্থা তখন আব্বাস উদ্দীনের এমন আবদারের জবাবে নজরুল কী উত্তর দেবেন? ‘ইসলাম’ শব্দটার সাথে তো তাঁর কতো আবেগ মিশে আছে। ছোটবেলায় মক্তবে পড়েছেন, কুর’আন শিখেছেন এমনকি তাঁর নিজের নামের সাথেও তো ‘ইসলাম’ আছে।
আব্বাস উদ্দীনকে তো এই মুহূর্তে সরাসরি ‘হ্যাঁ’ বলা যাচ্ছে না। স্রোতের বিপরীতে সুর মেলানো চট্টিখানি কথা না। আবেগে গা ভাসালে চলবে না। গান রেকর্ড করতে হলে তো বিনিয়োগ করতে হবে, সরঞ্জাম লাগবে। এগুলোর জন্য আবার ভগবতী বাবুর কাছে যেতে হবে। ভগবতী বাবু হলেন গ্রামোফোন কোম্পানির রিহার্সেল-ইন-চার্জ।
নজরুল বললেন, “আগে দেখো ভগবতী বাবুকে রাজী করাতে পারো কিনা।” আব্বাস উদ্দীন ভাবলেন, এইতো, কাজীদার কাছ থেকে সবুজ সংকেত পেলাম, ভগবতী বাবুকে কিভাবে রাজী করাতে হয় সেটা এখন দেখবেন।
গ্রামোফোনের রিহার্সেল-ইন-চার্জ ভগবতী বাবুর কাছে গিয়ে আব্বাস উদ্দীন অনুরোধ করলেন। কিন্তু, ভগবতী বাবু ঝুঁকি নিতে রাজী না। মার্কেট ট্রেন্ডের বাইরে গিয়ে বিনিয়োগ করলে ব্যবসায় লালবাতি জ্বলতে পারে। আব্বাস উদ্দীন খান যতোই তাঁকে অনুরোধ করছেন, ততোই তিনি বেঁকে বসছেন। ঐদিকে আব্বাস উদ্দীনও নাছোড়বান্দা। এতো বড় সুরকার হওয়া সত্ত্বেও তিনি ভগবতী বাবুর পিছু ছাড়ছেন না। অনুরোধ করেই যাচ্ছেন। দীর্ঘ ছয়মাস চললো অনুরোধ প্রয়াস। এ যেন পাথরে ফুল ফুটানোর আপ্রাণ চেষ্টা!
একদিন ভগবতী বাবুকে ফুরফুরে মেজাজে দেখে আব্বাস উদ্দীন বললেন, “একবার এক্সপেরিমেন্ট করে দেখুন না, যদি বিক্রি না হয় তাহলে আর নেবেন না। ক্ষতি কী?” ভগবতী বাবু আর কতো ‘না’ বলবেন। এবার হেসে বললেন, “নেহাতই নাছোড়বান্দা আপনি। আচ্ছা যান, করা যাবে। গান নিয়ে আসুন।” আব্বাস উদ্দীনের খুশিতে চোখে পানি আসার উপক্রম! যাক, সবাই রাজী। এবার একটা গান নিয়ে আসতে হবে।
নজরুল চা আর পান পছন্দ করেন। এক ঠোঙা পান আর চা নিয়ে আব্বাস উদ্দীন নজরুলের রুমে গেলেন। পান মুখে নজরুল খাতা কলম হাতে নিয়ে একটা রুমে ঢুকে পড়লেন। ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দিলেন। ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে আব্বাস উদ্দীন খান অপেক্ষার প্রহর গুনছেন। আইনস্টাইনের আপেক্ষিক তত্ত্বের মতো সময় যেন থমকে আছে। সময় কাটানোর জন্য আব্বাস উদ্দীন পায়চারী করতে লাগলেন।
প্রায় আধ ঘন্টা কেটে গেলো। বন্ধ দরজা খুলে নজরুল বের হলেন। পানের পিক ফেলে আব্বাস উদ্দীনের হাতে একটা কাগজ দিলেন। এই কাগজ তাঁর আধ ঘন্টার সাধনা। আব্বাস উদ্দীন খানের ছয় মাসের পরিশ্রমের ফল।
আব্বাস উদ্দীন খান কাগজটি হাতে নিয়ে পড়তে শুরু করলেনঃ-
“ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ
তুই আপনাকে আজ বিলিয়ে দে, শোন আসমানী তাগিদ।
২.
মোর প্রিয়া হবে এস রানী
দেব খোপায় তারার ফুল…
আব্বাসউদ্দীন আহমদ তাঁর …আমার শিল্পী জীবনের কথা… বইটিতে এই গানটির যে জন্মাতিহাস দিয়েছেন তা এই ঃ একদিন কবি এবং আরো কয়েকজন শিল্পী গ্রামোফোন কোম্পানীতে বসে গল্প করছিলেন। এমন সময় প্রশ্ন উঠল হঠাৎ যদি কেউ লটারীতে কেউ এক লাখ টাকা পেয়ে যায় তবে সে তার প্রিয়াকে কেমন করে সাজাবে। কেউ কমলালয় স্টোর্সে যেতে চাইলেন, কেউ ওয়াসেল মোল্লায়, কেউ আবার সুইজারল্যান্ড পর্যন্ত যেতে চাইলেন। খাতা কলম নিয়ে এই গানে কবি সাজালেন তাঁর প্রিয়াকে। গান শেষ করে শুধালেন “ কি মহারথীর দল..ক টাকা লাগল প্রিয়াকে সাজাতে? গানটি প্রথমে বুলবুল দ্বিতীয় খন্ডে স্হান পায়। সুর যোজনা করেন চিত্ত রায়, রেকর্ড করেন সত্য চৌধুরী। সংখ্যা এন 27340।
এমনি অনেক গান কবিকে লিখতে হয়েছে জীবিকার প্রয়োজনে আবার কখনো কখনো আপনজনের অনুরোধ। দুখু মিয়ার দুঃখী জীবন নানা চড়াই- উৎরাই এর মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত হয়েছে। জীবিকার প্রয়োজনে বিচিত্র পেশার জীবন তিনি যাপন করেছেন। মাত্র নয় বছর বয়সে তিনি যখন তাঁর পিতাকে হারান তখন পারিবারিক অভাব অনটনের কারণে মাত্র দশ বছর বয়সে গ্রামের স্থানীয় মসজিদে মুয়াজ্জিনের কাজ শুরু করেন, মক্তবে শিক্ষকতা করেন, হাজি পালোয়ানের কবরের সেবক হিসাবেও কাজ করেন। লেটো দলে যোগদান করে দলের জন্য তিনি গান রচনা করেছেন, সুর দিয়েছেন এমনকি অভিনয়ও করেছেন। তাছাড়া চা রুটির দোকানে রুটি বানানোর কাজ করেছেন, এমনকি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীতে যোগ দেন।
বহুমাত্রিক পেশাগত জীবনে তিনি দেখেছেন নানা জীবনের অন্তর্গত দ্বন্দ্ব, বঞ্চনা ও শোষণের নানা মাত্রিক সহাবস্থান। যা তাঁর জীবন দর্শনকে শাণিত করেছে, চেতনাবোধকে দ্রোহী করেছে। যার ফলশ্রুতিতেই বাংলা সাহিত্যে তাঁর আগমন ঘটেছে ধুমকেতুর মত। স্বল্প সময়ের কর্মক্ষম জীবনে তাই তিনি হয়ে উঠেছিলেন সব্যসাচী লেখক।
তাই নজরুল দ্রোহের কবি, সমাজবাদীদের কাছে গণকবি, দরিদ্রদের কাছে মানবতার কবি, ইসলামি কবি, গণজাগরণের কবি, স্বাধীনতার সংগ্রামী কবি এবং অবশ্যই প্রেমের কবি।
নিজেই তার পরিচয় দিতে গিয়ে বলেছেন,

” মম এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশি
আর এক হাতে রণ তূর্য।”
নজরুল কাব্যে প্রেম এসেছে সার্বজনীন বৈশিষ্ট্য নিয়ে। যেখানে চাওয়া ও অতৃপ্তি, মিলন ও বিরহ সাধারণ ভাবে সাধারণের মধ্যে চিরকালীন প্রেমের রূপ পেয়েছে। যেখানে পাওয়ার আনন্দ আছে, হারানোর বেদনা আছে, ঈর্ষা আছে, আছে অভিমান। সবকিছুর উর্ধ্বে প্রিয়াকে একান্ত নিজের করে চেয়েছেন। না পেলে কেঁদেছেন। শপথ নিয়েছেন তবুও ভালবেসে যাবার।
“দোলন চাপা” কাব্যগ্রন্থের “শেষ প্রার্থনা” কবিতায় কবির আকুতি এভাবেই প্রকাশিত হয়ঃঃ-
‘আজ চোখের জলে প্রার্থনা মোর
শেষ বরষের শেষে।
যেন এমনি কাটে আসছে জনম
তোমায় ভালবেসে।’
এমনি আখাংকা আর আরাধনা, আকুতি ও আকুলতা, আগুনে পুড়ানো আর অশ্রু জড়ানো হাহাকারে সিক্ত হয়েছে তার গান ও কবিতার পংক্তিমালা। তাঁর ব্যক্তি প্রেমের আবেগ অনুভূতি, উচ্ছ্বাস উত্তেজনা বাংলা সাহিত্যকে দিয়েছে এক অনন্যমাত্রা।
কবি হৃদয়ের দহন – পীড়ন, বিরহ- বেদন, আকুল পিয়াস, ব্যাকুল তিয়াস পাঠক হৃদয়কে করেছে বেদনাকাতর।
সৈয়দা খাতুন ওরফে নার্গিস, ফজিলাতুন্নেছা, রানু সোম, কানন দেবী ও প্রমিলা সেনগুপ্ত তাঁর জীবনে এসেছেন প্রেমের প্রতিমা হয়ে। তবে নজরুল যতটা ভাল বাসতে পেরেছেন ততটা ভাল বাসাতে পারেননি। তাই তাঁর জীবন হয়েছে বেদনাহত আর কাব্য হয়েছে বিরহ মথিত। নজরুলের প্রেম ছিল সর্বস্বহরণকারী, যা জগতের আর সব কিছুকেই তুচ্ছ করে দেয়। তাঁর কবিতা ও গান বার বার মনে করিয়ে দেয়
এমন পিরীতি কভু দেখি নাই শুনি।
পরানে পরান বাধা আপনা আপনি।
দুহু কোরে দুহু কাঁদে বিচ্ছেদ ভাবিয়া।
তিল আধা না দেখিলে যায় যে মরিয়া।
নজরুল যেমন প্রেমিক কবি ছিলেন তেমনি ছিলেন অসম্প্রদায়িক চেতনার বাতিঘর। নজরুল যে দুটো বিষয়ে আপোষহীন ছিলেন, তা হচ্ছে তাঁর অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও ব্রিটিশ বিতাড়ণ বাঞ্চা। যদিও জীবনের প্রয়োজনে জীবিকার ক্ষেত্রে তিনি নানা ভাবে আপোষ করেছেন বা তাঁকে করতে হয়েছে। লিখে জীবন ধারণ করতে হলে জেদ, গোঁ, আদর্শে আপোষ করতেই হয়। যদিও তিনি লিখেছেন,
হে দারিদ্র্য তুমি মোরে করেছ মহান
তুমি মোরে দানিয়াছ খ্রিষ্টের সন্মান
কন্টক – মুকুট শোভা – দিয়াছ তাপস
অসংকোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহস।
কিন্তু তারপরও দারিদ্র তাঁকে ধীর বুদ্ধিতে স্থিরবিশ্বাসে অটল থাকতে দেয়নি। এ সমস্ত নানা রকম সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করেই দুখু মিয়ার নজরুল হয়ে উঠা। বাংলা সাহিত্যের এই অমর কবির জন্মদিনে আমার বিনম্র শ্রদ্ধা।
লেখক- মনোরঞ্জন তালুকদার সহকারী অধ্যাপক
জগন্নাথপুর সরকারি কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com