1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
  3. ali.jagannathpur@gmail.com : Ali Ahmed : Ali Ahmed
  4. amit.prothomalo@gmail.com : Amit Deb : Amit Deb
জগন্নাথপুরে বৈরী আবহাওয়ায় কৃষকের জন্য ধান কাটার আশীর্বাদ এবার কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বৈরী আবহাওয়ায় কৃষকের জন্য ধান কাটার আশীর্বাদ এবার কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র

  • Update Time : বুধবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২২
  • ২৬০ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি – পাহাড়ি ঢলে নদ নদীর পানি বৃদ্ধি হয়ে ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ ঝুঁকি ও বৈরী আবহাওয়ায় হাওরে পাকাধান কাটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষকরা।এ অবস্থায় কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র কৃষকদের এবার ধান কাটতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।
কৃষকরা জানান,বৈরী আবহাওয়া ও পাহাড়ি ঢলে নদ নদীর পানি পেয়ে জগন্নাথপুরতথা সুনামগঞ্জে একের পর এক ফসল তলিয়ে যাওয়ার খবর শুনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ধান কাটার শ্রমিক
এবার তুলনামূলক কম আসেন।তাই হাওরে শ্রমিক সংকট দেখা দেয়। খেতে পাকা ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন কৃষক।
জগন্নাথপুর উপজেলার গ্রোপরাপুর গ্রামের কৃষক ফখরুল হোসেন জানান,নলুয়ার হাওরে এবার তিনি ৩৫ কেদার (৩০ শতাংশে এক কেদার) বোরো আবাদ করেন। সিরাজগঞ্জ থেকে প্রতি বছর ৪০জন ধান কাটার শ্রমিক আসে।এবার আসার কথা থাকলেও তারা আসেনি।তাই তিনি খেতের পাকা ধান নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন।পরে কৃষি কর্মকর্তার সহযোগিতায় কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র দিয়ে ধান কাটেন।এতে তার সময় ও খরচ দুটোই সাশ্রয় হয়।
বাউধরন গ্রামের কৃষক সুমন মিয়া বলেন বৈরী আবহাওয়ার যে কোন মুহূর্তে পাকা ধানের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে ২০ কেদার জমির ধান নিয়ে খুব চিন্তায় ছিলাম।পরে হারভেস্টার যন্ত্রের খোঁজ পেয়ে ধান তুলতে পেরে চিন্তামুক্ত হয়েছি। শুধু সুমন ও ফখরুল নন হাওরের অসংখ্য কৃষক এবার কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র দিয়ে ধান কাটছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানায়,উপজেলায় ছোট বড় ১৫ হাওরে ২১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। উপজেলায় হারভেস্টার যন্ত্র রয়েছে ৩৬ টি। অন্য উপজেলা থেকে আরও ১০ টি যন্ত্র আনা হয়। ৪৬ টি যন্ত্র দিন রাত কাজে লাগিয়ে দ্রুত ধান কাটা হয়। একটি যন্ত্র দিনে কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫ কেদার জমির ধান কাটতে পারে।কেদার প্রতি খরচ হয় ১৫ শত থেকে দুই হাজার টাকা।
হাওর বাঁচাও আন্দোলন জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন, হাওরে এখন পুরোদমে ধান কাটা চলছে । বৈরী আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের শঙ্কায় পাকা ধান কাটা নিয়ে কৃষকদের দুশ্চিন্তায় পড়তে দেখা গেছে। কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র তুলনামুলক কম থাকায় পাকাধান কাটতে বিঘ্ন ঘটে। তিনি হাওরাঞ্চলে প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলায় পর্যাপ্ত যন্ত্র সরবরাহের দাবি জানান। তবে কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র এবার কৃষকদের জন্য আশীর্বাদ হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার প্রথম আলো কে বলেন, বৈরী আবহাওয়ার প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলায় কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্র এবার বিশেষ কাজে লাগছে। উপজেলায় ৩৬টি যন্ত্র রয়েছে আরও ১০ টি যন্ত্র থাকলে সমন্বয় করে ধান কাটাতে সহায়তা করি। তিনি বলেন কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে হারভেস্টার যন্ত্র দিয়ে ধান কাটাতে ব্যপক প্রচারণা চালানো হয়।আমরা নিজেরা কৃষকদেরকে যন্ত্র সংগ্রহ করে দিয়ে ধান কাটাতে সহায়তা করছি।তিনি বলেন জগন্নাথপুর উপজেলায় হাওর অঞ্চলে ৮৯ ভাগ ধান কর্তন হয়ে গেছে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: