1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
  3. ali.jagannathpur@gmail.com : Ali Ahmed : Ali Ahmed
  4. amit.prothomalo@gmail.com : Amit Deb : Amit Deb
জগন্নাথপুরে এবারও শেষ হয়নি নলজুর নদী খনন, চলছে বিল তোলার পায়তারা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৫:৪৯ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে এবারও শেষ হয়নি নলজুর নদী খনন, চলছে বিল তোলার পায়তারা

  • Update Time : শুক্রবার, ৩ জুন, ২০২২
  • ৩৩৪ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে দ্বিতীয় পর্যায়েও নলজুর নদী খনন কাজ শেষ করতে পারেনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।
তবে নদীতে পানি চলে আসায় নলজুর নদী খনন শেষ করতে না পারলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের দাবি কাজ শেষ হয়ে গেছে। কাজ শেষ না করেও চলছে এখন বিল তোলার পায়তারা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ও উপজেলাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের জানুয়ারি মাসে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নেশন টেক লিমিটেড সাড়ে ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নদী খনন কাজ শুরু করে। কাজ চলাকালে অপরিকল্পিত নদ খনন ও খনন কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠলে ওই বছরের ১৩ এপ্রিল কাজ বন্ধ করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন পালিয়ে যায়। এসময় বিল তোলে নেয় ২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা।
পরবর্তীতে চলতি বছরের ৫ মার্চ থেকে আবারও কাজ শুরু করে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। নতুন করে ৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা বরাদ্দে ১ হাজার ৩০০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৩৩ ফুট প্রস্থে খনন ও মাটি সরানোর কাজ। গত ২ এপ্রিল আকস্মিক পাহাড়ি ঢলে নলজুর নদে পানি চলে আসায় খনন কাজ শেষ হওয়ার আগেই বন্ধ হয়ে যায়। পরে খনন যন্ত্র নিয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন আবারও খনন কাজ শেষ না করে চলে যায়।

জগন্নাথপুর উপজেলা নাগরিক ফোরাম আহ্বায়ক নুরুল হক বলেন, প্রথম পর্যায়ে যৎসামান্য কাজ করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পাউবোর সাথে যোগসাজশে আড়াই কোটি টাকা বিল তোলে নেয়। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১ হাজার ৩০০ মিটারের মধ্যে সবোচ্চ তিন থেকে চারশত মিটার কাজ করে নদীতে পানি চলে আসায় কাজ বন্ধ হয়ে যায়। প্রথমবারের মত এবারও চলছে বিল তোলার পায়তারা।

হাওর বাঁচাও আন্দোলন জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক লুৎফর রহমান বলেন, নলজুর নদ অপরিকল্পিতভাবে খননের নামে লুটপাট করা হচ্ছে। আমাদের দাবি উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত না করে বিল পরিশোধ না করতে। এছাড়া অপরিকল্পিত খননে নদীর পাড়ে থাকা বেশকয়েকটি বিদ্যুতিক খুঁটি হেলে পড়েছে। ফলে যেকোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

জগন্নাথপুর নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক যুক্তরাজ্য প্রবাসী এম এ কাদির বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অপরিকল্পিতভাবে খনন করতে গিয়ে নলজুর নদের ডাক বাংলো সেতুর দুই পিলারের ৬০ ফুট অংশ দেবে গিয়ে সেতুটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এর দায়ভার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও পাউবো এড়াতে পারে না। তদন্ত পূর্বক পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান।

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব বলেন, বিলম্বে কাজ শুরু করা ও আগাম বন্যার কারণে খনন কাজ শেষ না হওয়ায় নদীর অসিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে । নদ খননে অনিয়ম ও লুটপাট তদন্ত করার দাবি জানাই।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নেশন টেক এর প্রকল্প প্রকৌশলী মেহেদী হাসান বলেন, নলজুর নদে পানি আসলেও পানি আটকিয়ে বাঁধ দিয়ে আমরা ডিজাইন অনুযায়ী কাজ শেষ করেছি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী ইসরানুল ইসলাম বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পুরোপুরি খনন কাজ শেষ করছে বলে দাবি করছে। পাউবোর টাস্ক ফোর্স জরিপ করে কী পরিমান মাটি কাজ হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়ার পর বিল দেওয়া হবে। তিনি বলেন, নলজুর নদীর ডাক বাংলো সেতু এলাকায় খনন কাজ করা হয়নি। সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ওই অংশে খনন না করতে বলেছি

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: