রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সামাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল

ওসমানীনগরে লন্ডনি ফুফু-ভাইজীর লড়াইয়ে দিশেহারা দুই পরিবার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০১৬
  • ৬০ Time View

স্টাফ রিপোটার:; সিলেটের প্রবাসী অধ্যুষিত ওসমানীনগরে মুখোমুখি দুই চৌধুরী পরিবার। এই লড়াইয়ের নেতৃত্বে চলে এসেছেন দুই মহিলা। একপক্ষে লন্ডনি গৃহবধূ জেবু বেগম চৌধুরী, অপরপক্ষে রোকসানা বেগম চৌধুরী। তাদের দুজনেরই পিত্রালয় ওসমানীনগরের কচপুরাই গ্রামে।

সম্পর্কে তারা ফুফু-ভাইজি। জেবুর ভাইজি রোকসানা। এই সম্পর্ক এখন আর নেই। সাপে-নেউলে অবস্থা। হামলা, মামলা, লুট, দখলের অভিযোগ নিয়ে মুখোমুখি দু’পক্ষ। ফলে লন্ডনি ও চৌধুরী পরিবারের ঐতিহ্য এখন আর রক্ষা হচ্ছে না। এ অবস্থার মধ্যে উঠে এসেছে মিজান এলাহী নামে একজনের নাম। তিনিই জেবু বেগম চৌধুরীর পক্ষ নিয়ে আড়ালে কলকাঠি নাড়ছেন।

মামলার আসামি করা হয়েছে পিতা, মাতা, চাচা, চাচি, ভাই, বোনদের। দুই স্বামীর ঘর করার পর দেশে অবস্থানকারী লন্ডনি গৃহবধূ জেবুর সঙ্গে রয়েছে তার বিশেষ সম্পর্ক। তাছাড়া জেবু শুধু নারী নয়, একজন ‘মক্ষীরানী’। এমন গুরুতর অভিযোগ ভাইজি রোকসানা বেগম চৌধুরীর। আর জেবু বেগমের দাবি, রোকসানার পিতা মিফতা মিয়া তার ছেলের জন্য আমার মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন। ছেলে জুয়েলের জন্য লন্ডনি কইন্যাকে না পেয়ে তারা আমার সম্পত্তি দখলে নিয়েছে। ছিনিয়ে নিয়েছে ব্রিটিশ পাসপোর্ট, টাকাসহ স্বর্ণালংকার।

লন্ডনি কইন্যাকে বিয়ে না দেয়ায় তারা নানা অপপ্রচারও চালিয়ে যাচ্ছে। থানায় মামলা করলেও পুলিশের মুখ বন্ধ। জেবু বেগম চৌধুরী দাবি করেন, তিনি পিতামাতার একমাত্র সন্তান। তাই একাই পিতার সম্পদের উত্তরাধিকারী। সম্পদ দেখাশোনার জন্য রাখা কেয়ারটেকারকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

জেবু বেগম জানান, মারধর করে তার ব্রিটিশ পাসপোর্ট, নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকারসহ বাসার মূল্যবান জিনিসপত্র লুটের ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার আসামি ১২ জন। আসামিরা হচ্ছে- কচপুরাই গ্রামের মৃত আনোয়ার মিয়ার ছেলে শহিদুল ইসলাম, জাবেল মিয়া, মেয়ে ফারজানা বেগম, সাজনা বেগম, মৃত ফজলু মিয়ার ছেলে মুক্তা ওরফে সিফাত ডাকাত, মিফতার ছেলে জুয়েল মিয়া, স্ত্রী রোকিয়া বেগম, মৃত আনোয়ার মিয়ার স্ত্রী মিনারা বেগম, শহিদুল ইসলামের স্ত্রী তাহমিনা বেগম ও নুরুল ইসলামের স্ত্রী নাজমিন বেগম।

তিনি বলেন, কিছুদিন আগে আমার জন্মস্থান বর্তমানে ওসমানীনগর থানাধীন গোয়ালাবাজারের কচপুরাই গ্রামে পৈতৃক ভূমিতে সুদৃশ্য দালানঘর করেছি। ওই ঘর এখন প্রতিপক্ষের দখলে। অযোগ্য ছেলের কাছে আমার লন্ডনি মেয়েকে বিয়ে না দেয়ায় আমার এই পরিণতি।

এসব অভিযোগের জবাবে ভাইজি রোকসানা বেগম চৌধুরী বলেন, ফুফু জেবু চৌধুরী চরম মিথ্যুক। তিনি নিজেকে পিতার একমাত্র সন্তান দাবি করেছেন। এটা সঠিক নয়। যা সম্পূর্ণ মিথ্যাচার।

রোকসানা দাবি করেন, আমার পিতা মিফতা চৌধুরী জেবু বেগমের ভাই। পিতা এক, মা দুই। আমার পিতা সুন্দর বিবির সন্তান। অথচ সেই জেবু আমার পিতা ও তার ভাই মিফতা চৌধুরীকে ডাকাত বলে অভিহিত করছেন। কোনো ভদ্রঘরের সন্তান এমনটি করতে পারে তা কল্পনা করা যায় না।

তার এমন অপকর্মে আমাদের ‘বনেদি চৌধুরী পরিবার’-এর ভাবমূর্তি চরম ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। তিনি বলেন, ফুফুকে মিজান এলাহী নামের এক ব্যক্তি ইন্ধন দিচ্ছেন। এতে গোটা চৌধুরী পরিবারের মানসম্মান তছনছ। আসলে জমি, মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব এসবের কিছুই নয়। ব্যক্তিগত আক্রোশের কারণেই জেবু চৌধুরী এমনটি করছেন।

রোকসানা বলেন, সম্পত্তির বিনিময়ে টাকা খরচ করে ফুফা ও ফুফু তাকে লন্ডনি পাত্র উসমানপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামের মনির মিয়ার সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিলেন। পরপর ৪ সন্তানের মা হওয়ার পর মনির মিয়ার সঙ্গে আর ঘর করেননি জেবু। এরপর ৪ সন্তানের মা জেবুর বিয়ে হয় ফেঞ্চুগঞ্জের মল্লিকপুর গ্রামের দূরসম্পর্কের ভাইপো রবিউলের সঙ্গে। এখানেও জেবুর ৪ সন্তান রয়েছে। এখন শুনতে পাচ্ছি দ্বিতীয় স্বামীর সঙ্গেও জেবু বেগমের বনিবনা হচ্ছে না। জেবু দ্বিতীয় স্বামীকেও হয়রানি করেছে। পুলিশ পর্যন্ত গড়িয়েছে বিষয়টি। স্বামী-সংসার রেখে জেবু দেশে এসেছেন, কোথায় বসবাস করছেন? তা কেউ জানে না।

রোকসানা বলেন, জেবু বেগমের সম্পত্তি কচপুরাই গ্রামে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। সেখানে কোনো স্থাপনা নেই। যেখানে জেবুর অত্যাচারে আমার পরিবার অতিষ্ঠ সেখানে বিয়ের প্রস্তাব দেয়ার যৌক্তিতা নেই। জেবু উগ্র মনোভাবের। অথচ আমাদের ‘বনেদী’ ঘরের মহিলারা পর্দানশীল ও রক্ষণশীল।

রোকসানা বেগম এসব ঘটনার জন্য জেবু ছাড়াও বালাগঞ্জের আলোচিত মিজান এলাহীকে দায়ী করেন। তার মতে, লন্ডনি হলেও মিজানের রয়েছে নিজস্ব ক্যাডার বাহিনী। জমিজমা নিয়ে নিজ এলাকায় তার সঙ্গে বহু মানুষের বিরোধ রয়েছে। মামলার অন্ত নেই। তার শ্যালক আসাদ ও রুবেলের সঙ্গে আমার পিতা মিফতা চৌধুরী ও চাচাতো ভাই শহীদুল চৌধুরীর জমি সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। শ্যালকদের পক্ষ নেওয়া মিজান এলাহীর সঙ্গে আমার পিতা ও চাচার পরিবারের বিরোধ পুরনো।

আর মিজান এলাহী এখন আমারই গোষ্ঠীর ফুফু জেবু বেগম চৌধুরীর সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে মামলা করিয়েছে। আর ওই মিথ্যা মামলায় সাক্ষী করা হয়েছে তারই দুই শ্যালক আসাদ ও রুবেলকে।

রোকসানার দাবি, কয়েকদিন ধরে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দ্বারা আমার পিতা ও চাচার বাড়ির আশপাশে মহড়া দেয়া হচ্ছে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24