রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

কাজের সন্ধানে ঘর ছাড়ছেন ফসলহারা কৃষক

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৫৭ Time View

মাহমুদুর রহমান তারেক ::
জামালগঞ্জের কুতুবপুর গ্রামের সাত্তার মিয়া। বয়স ৩০-এর কাছাকাছি। ৫ ভাই-বোনের সুখি পরিবার। নিজেদের ক্ষেতের ধান খেয়ে প্রতি বছর অর্ধশত মণের উপরে ধান বিক্রি করতে পারতেন। শুক্রবার বিকেলে শহরের লঞ্চঘাট এলাকায় দেখা হয় তার সঙ্গে।
সাত্তার মিয়া বলেন, দুই হাল জমি ছিল, ধানের থোর বার অইবার আগেই হাওরে পানি ঢুইক্যা সব ডুইবা গেছে। গত বছরও একই অবস্থা হইছিল। এখন ঘরে এক বেলার খাওনও নাই। ঢাকায় এক আত্মীয়র সঙ্গে যোগাযোগ করছি। সে বলছে কারখানায় কাজ দিব। কাজের আশায় পরিবারের সবাইরে নিয়া ঢাকা যাইতেছি।
সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলার সাত্তার মিয়ার মত হাজার হাজার ফসলহারা কৃষক এখন ঘর ছেড়ে পেটের তাগিদে রাজধানী ঢাকা, সিলেট বিভিন্ন জায়গায় পাড়ি দিচ্ছেন। বাড়িতে খাবার না থাকায় পরিবারের সদস্যদেরও নিয়ে যাচ্ছেন তারা।
নাসরিন বেগমের বাড়ি ধর্মপাশার সুখাইড় এলাকায়। নিজের কোন জমি না থাকলেও স্বামী অন্যের ক্ষেতে কাজ করতেন। ফসল ডুবে যাওয়ায় কাজের মজুরিও পাননি তার স্বামী। স্বামী ও তিন সন্তান নিয়ে কাজের খোঁজে সিলেট যাচ্ছেন। তিনি জানান, গ্রামের অনেকের ঘরে এক বেলা খাবারও নেই। আবুদের (ছেলের) মুখে খাবার দিতে পারি না। কেউ সাহায্যও করে না। কাজের আশায় সিলেট যাইতাছি।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার দেখার হাওরপাড়ের হালুয়ার ঘাট গ্রামের সালমা আক্তার বলেন, ধান পচে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে, মাছ মরছে। এখন হাওরের পানিও ব্যবহার করতে পারছি না। টিউবওয়েল অনেক দূরে। ঘরে খাবার নাই, এখন পানির জন্যও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সাহেবনগর এলাকার কৃষক মনির মিয়া বলেন, প্রতিদিন শুনি এই জায়গায় সাহায্য দেয়া হচ্ছে, সেই জায়গায় সাহায্য দেয়া হচ্ছে, কই আমি কোন সাহায্য পাইলাম না। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা কি সাহায্য পাচ্ছে। হাতে টাকা না থাকার কারণেই ঘরবাড়ি ফেলে শহরে কাজের আশায় পাড়ি জমাচ্ছেন ফসলহারা কৃষকরা।
হাওর এলাকায় কাজ করা এনজিও কর্মকর্তা কুদরত পাশা বলেন, সম্প্রতি হাওর এলাকা ঘুরে গেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। তিনি জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় বলেন, মানুষকে বাঁচাতে হলে হাওর এলাকায় পয়েন্টে পয়েন্টে ইকোনমিক জোন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব দিয়েছেন। বিষয়টি দ্রুত বিবেচনা করা উচিত।
মুক্তিযোদ্ধা মালেক হুসেন পীর বলেন, আমার জন্মের পর থেকে সুনামগঞ্জের এই বিপর্যস্ত অবস্থা দেখিনি। ফসল হারিয়ে কৃষকদের হাতে টাকা নেই। টাকা না থাকলে খাবার কিনবে কিভাবে। গ্রামের অবস্থাশালী কৃষকও কাজের আশায় শহরে আসছেন।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান বলেন, ফসল ডুবির কারণে হাওরের গ্রামগুলোতে এখন হাহাকার। অনেকের ঘরেই খাবার নেই। কাজের আশায় অনেকেই রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় পাড়ি জমাচ্ছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24