সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

কালো টাকার কাছে পরাজিত হয়েছি: ব্যারিস্টার ইমন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৬২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:;নির্বাচনে পরাজয়ের কারণ হিসেবে কালো টাকাকে মূল প্রভাবক হিসেবে অভিহিত করেছেন সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন। এছাড়াও তৃণমূলে তার সমর্থন না থাকার যে অভিযোগটি তার বিরুদ্ধে করছেন স্থানীয় অনেকেই, তা ব্যাখ্যা করেছেন তিনি।

ব্যারিস্টার ইমন বলেন, “আমার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুটু, গত ফেব্রুয়ারি আমি দায়িত্ব পাওয়ার আগে দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া তার পক্ষে কাজ করেছেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি মতিউর রহমান, যিনি ১৯ বছর ধরে এ পদে রয়েছেন”।

তিনি বলেন, “তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী লীগ সব কমিটিই দিয়েছেন মতিউর রহমান ও নুরুল হুদা মুকুট, আর তাই জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রভাব বিস্তার করেছেন তারা, যার ফলে তৃণমূলে আমি কোন সমর্থণ পাইনি”।

তবে এ প্রভাব বিস্তারকে তিনি দ্বিতীয় ফ্যাক্টর বলে অভিহিত করে বলেন, “মূল ফ্যাক্টর হলো টাকা। আমি কালো টাকার কাছে হেরেছি।”

তিনি জানান, সুনামগঞ্জ জেলার সকল জনপ্রতিনিধি-ভোটার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নয়, এখানে অন্যান্য দলের মানুষও রয়েছেন। আর তাদের মধ্যেই মূল ছড়ানো হয়েছে প্রচুর পরিমাণ কালো টাকা। যার ফলে নির্বাচনে ব্যাপক ভোটের ব্যবধান সৃষ্টি হয়েছে।

ইমন জানান, তার বাবা আব্দুল রইস সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন, ১৯৮৮ সালে তার মৃত্যু হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন। তার মা রফিকা রইসও ২০১৩ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সুনামগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন।

ব্যারিস্টার ইমন বলেন, ”পারিবারিকভাবেই আমার তৃণমূল পর্যায়ে পরিচিতি ও সমর্থণ আছে, এ কারণেই এবার কেন্দ্র আমাকে সুনামগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়েছে, তবে এবার দুটি বিশেষ ফ্যাক্টরের কারণেই আমাকে পরাজিত হতে হয়েছে”।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (২৮ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুটের কাছে ৩৬২ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। নির্বাচনে নুরুল হুদা মুকুট পান ৭৮২ ভোট ও এনামুল কবির ইমন পান ৪২০ ভোট।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24