শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

খাদ্যবান্ধব কর্মসুচী বন্ধ-হতাশায় ৯১ হাজার পরিবার

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৭ মে, ২০১৭
  • ১২৪ Time View

বিন্দু তালুকদার
বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির আওতায় ফেয়ার প্রাইস কর্মসূচির আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে মাসে ৩০ কেজি চাল পেত সুনামগঞ্জের ৯১ হাজার ৫৯০টি পরিবার। সাধারণত অপেক্ষাকৃত দরিদ্র পরিবারের লোকেরা ছিল এই কর্মসূচির সুফলভোগী।
কিন্তু সুনামগঞ্জের বোরো ফসলহানির পর গত এপ্রিলে এই কর্মসূচি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় জেলার ৯১ হাজার ৫৯০টি পরিবার হতাশায় পড়েছেন। ওই পরিবারগুলো খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির সুবিধা পাওয়ায় ভিজিএফ’র চাল ও নগদ টাকা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।
তবে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জানিয়েছেন খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি আগামী সেপ্টেম্বর মাসে আবার চালু হবে। এটি বছরের দু’টি সময়ের প্যাকেজে ৫ মাসের জন্য চালু করা হয়েছে। একটি সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ৩ মাস ও মার্চ -এপ্রিল দুইমাস।
সুনামগঞ্জের বোরো ফসলহানির পর গত ১৯ এপ্রিল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার কাছে সুনামগঞ্জের সংসদ সদস্য, অন্যান্য জনপ্রতিনিধি, জেলা প্রশাসক, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালকসহ উপস্থিত সবাই দাবি জানিয়েছিলেন খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি চালু রেখে আরো ১ লাখ পরিবারকে অন্তর্ভুক্ত করার। এর পর জেলা প্রশাসক ও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি সুনামগঞ্জের জন্য নিয়িমিত রাখা ও কার্ডের সংখ্যা আরো বৃদ্ধির জন্য পৃথকভাবে খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদপ্তরে চিঠি লিখেছিলেন। কিন্তু গত এক মাসেও খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদপ্তর থেকে কোন সাড়া ও আশ্বাস পাওয়া যায়নি।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে জানা যায়, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় সুনামগঞ্জের ৯১ হাজার ৫৯০টি পরিবার গত বছরের সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর এবং চলতি বছরের মার্চ ও এপ্রিল মাসে ১০ টাকা কেজি করে ৩০ কেজি চাল ক্রয় করেন। কিন্তু জেলার সকল বোরো ফসলহানির পর ৩০ এপ্রিল এই কর্মসূচি বন্ধ হয়ে গেছে। ইতোমধ্যে
জেলায় ১ লাখ ৫০ হাজার পরিবারকে ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে প্রতিমাসে ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫০০ টাকা করে দেয়া হচ্ছে। এদিকে ৯১ হাজার ৫৯০টি পরিবার খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির অন্তর্ভূক্ত থাকায় ভিজিএফের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। ভিজিএফ বঞ্চিত ও খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি বন্ধ হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে চরম হতাশা ব্যক্ত করেছেন একাধিক এলাকার সুবিধাভোগিরা।
ধর্মপাশার মধ্যনগর ইউনিয়নের খালিশাকান্দা গ্রামের কৃষক কুতুব উদ্দিন বলেন,‘বান্ ভাইঙ্গা সব ধান তল অইয়া গেছে। হুনছিলাম ১০ টেকা কইরা হারা বছরই মাসে তিরিশ কেজি চাউল পাইমু। ইডাও অকন বন্ধ অইয়া গেছে। ১০ টেকার চাউল পাই কইরা আমারে আর কোনতা দেয়া অইছে না। আমরা বাচঁমু কেমনে ভাই ? ’
একই ইউনিয়নের জমসেরপুর গ্রামের কৃষক নান্টু সরকার বলেন,‘আমরা হুনছি আরো ১ হাজার কাড বাড়ানি অইছে, ইতার লাগি দেরী অইতাছে। ১০ টেকার চাউল বন্ধ অই গেছে ইতা তো আমারারে কেউ কইছে না। ১০ টেকার চাউল পাই দেইক্কা আর কোনাতা পাইছিনা। ১১ কিয়ার খেত করছিলাম সব পানিত গেছে। সরকার থাইক্কা সায্য না করলেও চলমু কেমনে ? ’
ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফরহাদ আহমদ বলেন,‘ ফেরার প্রাইস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা জনপ্রতিনিধিরা খুব চাপের মুখে আছি। প্রতিদিনই লোকজন জানতে চান কবে আবার চালু হবে। আমাদের দাবি আবারো এই কর্মসূচি দ্রুত চালু করা হোক, না হয় ভিজিএফের সংখ্যা বাড়ানো হোক।’
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. জাকারিয়া মোস্তফা বলেন,‘এটি বছরের দুইটি সময়ে ৫ মাসের জন্য চালু করা হয়েছে। গত এপ্রিল মাসে দ্বিতীয় প্যাকেজ শেষ হয়েছে, এখন আপাতত বন্ধ থাকবে। বিশেষ বিবেচনায় সুনামগঞ্জের জন্য এই কর্মসূচি নিয়মিত রাখতে আমরা এপ্রিল মাসেই খাদ্য অধিদপ্তরে চিঠি লিখেছি। খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি নিয়মিত রাখা হবে কিনা তা জানা যায়নি। ’
জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,‘ সুনামগঞ্জের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি নিয়মিত রাখা ও কার্ডের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য আমি খাদ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করেছি। এছাড়া আরো ১ লাখ ভিজিএফ কার্ড বাড়ানোর জন্য জোরালো দাবি জানিয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত কোন চিঠি পাইনি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24