বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সংগ্রামী সেই মেয়েটির পরিবারে উপজেলা পরিষদের সেলাই মেশিন প্রদান জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু

গুপ্তধনের সন্ধানে মাওলানা ইমরান ও জিনের বাদশা সমাচার

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : শনিবার, ২৫ মে, ২০১৯
  • ১১১৬ Time View

স্টাফ রিপোর্টার : সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আলোচিত ঘটনা জিনের বাদশার সহযোগীতার অভিযোগে অভিযুক্ত হাফিজ এনামুল হাসান কে তিন দিনের রিমান্ডে আনা হয়েছে। গতকাল জগন্নাথপুর থানায় তাকে আনা হয়।অপরদিকে ১৫০০ কোটি টাকার লোভে সাড়ে তিন কোটি টাকা খরচ করা ব্যবসায়ী এমরান মাওলানাকে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি উঠেছে। তার আয়ের উৎস নিয়েও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে
তুমুল আলোচনার ঝড় বইছে।জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী সমাজের পরিচিত মূখ সচেতন রাজনৈতিক কর্মী যুব জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম নেতা মাওলানা ইমরান আহমদ ১৫০০ কোটি টাকা পাওয়ার লোভে জ্বিনের বাদশাকে সাড়ে তিন কোটি টাকা দেয়ার ঘটনাকে বিস্ময়কর হিসেবে দেখেছেন। অতিলোভে বড় অংকের টাকা লেনদেনের ঘটনায় তার আয়ের উৎসসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নিয়ে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমসহ সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে। মাওলানা এমরান আহমদের এরকম কার্যক্রমের অনুসন্ধান মিলে ২০১৪ সালে মাওলানা এমরান আহমদ গুপ্তধনের সন্ধানে নামে একটি বই প্রকাশ থেকে।
জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী আওয়ামীলীগ নেতা মুজিবুর রহমান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন মাওলানা এমরান আহমদ সাড়ে তিন কোটি টাকা কোথায় পেলেন তা তদন্ত করে দেখা হোক। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফের ডটকম কে বলেন,মাওলানা এমরান আহমদের মতো একজন সচেতন ব্যক্তি জিনের বাদশাকে সাড়ে তিন কোটি টাকা দিয়েছেন বিষয়টি বিশ্বাস করতে সচেতন মহলের কষ্ট হচ্ছে তাই এ টাকার উৎসসহ সব কিছু তদন্ত করা দরকার।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র কমেন্টে উল্লেখ করেছেন সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে কল্পকাহিনীর অবসান হওয়া উচিত। তিনি মনে করেন, সমাজের কুসংস্কার আছন্নদের মুখোশ উন্মোচন করতে এঘটনার মূল উদঘাটন দরকার।
আরেকজন লিখেছেন দুদকের বিষয়টি তদন্ত করা দরকার। কেউবা লোভে পাপ পাপে মৃত্যু বলে উল্লেখ করেছেন। অসংখ্য মন্তব্যকারীরা বিষয়টি গুরুত্বদিয়ে তদন্ত করা ও মাওলানা ইমরান আহমদকে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি জানান।

প্রসঙ্গত গত ২৩ এপ্রিল জগন্নাথপুর থানায় দায়েরকরা মাওলানা ইমরান আহমদের এজাহার থেকে জানা যায়,সৈয়দপুর গোয়ালগাঁও গ্রামের হাফিজ এনামুল হাসানের মাধ্যমে সৈয়দপুর আগুনকোনা গ্রামের এক লন্ডন প্রবাসীর বাড়ীতে বসবাসকারী নেত্রকোনা জেলার কালিয়াজুরি থানার দাউদপুর গ্রামের হাফিজ কামরুল ইসলাম ও তার পরিবারের সাথে পরিচয় হয়।
এক পর্যায়ে পরিচয় সূত্রে কামরুল ইসলাম তার বাবা আব্দুল কাদির মা রানু বেগম তার বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন।এক পর্যায়ে কামরুল ইসলামের বাবা ও মা তাকে বিশ্বস্হতার সহিত জানান, কামরুল ইসলাম কে ১ বছর জ্বিনে নিয়ে যায় ৭ বছর পর তাকে আবার তাদের কাছে ফিরিয়ে দেয়। জ্বিনরা হাফিজ কামরুল ইসলাম ও তাদের বাবা মাকে খুব ভালবাসে।জ্বীনরা কামরুল ইসলামের যে কোন ইচ্ছা পূরন করিয়া দেয়। এসব কথাবার্তার পর আমাকে তাদের ভাড়া বাসায় যাওয়ার আমন্ত্রণ জানান।আমি সেখানে গেলে কামরুল ইসলাম ও তার পরিবারের লোকজন জানান জ্বীনরা তাদেরকে ১৫০০ কোটি টাকা দিবে।সিন্নি হিসেবে এজন্য সাড়ে তিন কোটি টাকা বিভিন্ন কিস্তিতে খরচ করতে হবে।তারা আমাকে ড্রাম ভর্তি টাকা দেখায়। এতে বিশ্বাস করে
সিন্নির টাকা খরচের প্রস্তাব দিলে আমি রাজি হই। এবং বিভিন্ন কিস্তিতে সাড়ে তিন কোটি টাকা দেই। পরে দেখি প্রতারণার মাধ্যমে আমার টাকা আত্মসাৎ করা হয়।
এঘটনায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ মামলার আসামি হাফিজ কামরুল ইসলাম তার বাবা আব্দুল কাদির মা রানু বেগম কে নেত্রকোনা থেকে গ্রেফতার করা হয়।পরবর্তীতে হাফিজ এনামুল হাসানকে পুলিশ গ্রেফতার করে।
জগন্নাথপুর থানার সেকেন্ড অফিসার হাবিবুর রহমাম বলেন এনামুল হাসান এজাহারনামীয় মূল আসামি না হলেও মামলার বাদী ও গ্রেফতারকৃত আসামিদের কথাবার্তা থেকে প্রকৃত ঘটনা খুঁজে বের করতে তাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে আনা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর আরো কোন তথ্য পাওয়া যায় কি না বুঝা যাবে। তিনি বলেন মামলার তদন্ত চলছে বাদীসহ  ঘটনার সাথে জড়িতরা সবাই তদন্তের মধ্যে আছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24