রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল জগন্নাথপুরে একদিনে ১১ জন ডাক্তারের যোগদান জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধের ৩০ প্রকল্প অনুমোদন কাল কাজ শুরু হতে পারে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আ.লীগের উদ‌্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে আলোচনাসভা ও শ্রদ্ধা নিবেদন দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ আমি স্বাধীনতা বিরুধী পরিবারের সন্তান নই- চেয়ারম্যান আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুরে বাংলা মিরর সম্পাদক আব্দুল করিম গনি সংবর্ধিত জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন

জগন্নাথপুরসহ সিলেটের ১৭ পৌরসভার ইলেকশন ডিসেম্বরে-নভেম্বরে তফসিল

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৫১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: জগন্নাথপুর পৌরসভাসহ সিলেট বিভাগের ১৭টি পৌরসভার ইলেকশন হতে যাচ্ছে। আগামী নভেম্বরে এ ১৭টি পৌরসভার তফসিল ঘোষনা হবে বলে জানা গেছে। সিলেট বিভাগের ১৯ পৌরসভার মধ্যে প্রথমবারের মত দলীয়ভাবে নির্বাচনের উপযোগী ১৭ টির নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে তফসিল ঘোষণা করতে পারে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আর মামলা সংক্রান্ত ও সীমানা নির্ধারণ জটিলতায় আটকে আছে সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহের যে কোনো দিন এ ১৭টি পৌরসভায় হতে পারে ভোট গ্রহণ। তবে সব পৌরসভায় একই দিনে ভোট নেওয়া হবে কি-না সে সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ।
গত মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ বলেন, নতুন পদ্ধতিতে নির্বাচন আয়োজনে কমিশনকে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। সেটা ধরে নিয়েই সংশ্লিষ্টদের কাজ করতে হচ্ছে। তিনি জানান, ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে পৌর নির্বাচনের ভোট নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে তফসিল ঘোষণা করতে হবে। তবে একই দিনে সহ দেশে ৩২৩টি পৌরসভার মধ্যে এবার ২৪৫ পৌরসভায় ভোট নেওয়া হবে। এরমধ্যে সিলেট বিভাগের ১৯ টি পৌরসভার ১৭ টি রয়েছে। আর মামলা সংক্রান্ত ও সীমানা নির্ধারণ জটিলতায় আটকে আছে সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ পৌরসভা। এ দুটি পৌরসভায় নির্বাচন হবে কিনা তাও সঠিকভাবে বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্টরা। তবে জটিলতা কেটে গেলে পরবর্তীতে নির্বাচন হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।উপযোগী ২৪৬টি পৌরসভার মধ্যে সিলেটের রয়েছে ১৭টি: সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, মৌলভীবাজার জেলার মৌলভীবাজার পৌরসভা, কমলগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল, বড়লেখা, সুনামগঞ্জ জেলার সুনামগঞ্জ পৌরসভা, জগন্নাথপুর, ছাতক,দিরাই ও হবিগঞ্জ জেলার হবিগঞ্জ পৌরসভা, নবীগঞ্জ, চুনারুঘাট, মাধবপুর ও শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনো ধরণের আইনী জটিলতা নেই। তবে সিলেট জেলার বিয়ানীবাজারে মামলা সংক্রান্ত জটিলতা ও হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ পৌরসভায় সীমানা নির্ধারণ জটিলতার কারণে নির্বাচন নাও হতে পারে।
ইসির জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) হিসাব অনুযায়ী ৩২৩ পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ৯৯ লাখের মতো। এই ভোটারদের জন্য ব্যালট পেপার ছাপা নিয়েই চিন্তিত ইসি। ইসির যুগ্ম সচিব জেসমিন টুলী জানিয়েছেন, দলীয় প্রতীকে ভোট হলেও মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলরের জন্য তিন রঙের তিনটি ব্যালট হবে। সব ব্যালটেই দলীয় প্রতীকের পাশাপাশি প্রার্থীর নাম উল্লেখ থাকবে। দলীয়ভাবে নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় আইন সংশোধনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পৌর নির্বাচনের ক্ষেত্রে নির্বাচনী বিধিমালা ও আচরণবিধিমালা সংশোধন করতে হচ্ছে। সেটা নির্বাচন কমিশনের হাতেই রয়েছে। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের জন্য কিছুটা সময় হাতে পাওয়া গেলেও পৌর নির্বাচনের জন্য ইসিকে দ্রুতই প্রস্তুতির কাজ শেষ করতে হবে। সেক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে যত দ্রুত আইন প্রণয়নের কাজ শেষ হবে, ততই ইসির জন্য সুবিধা হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

ইসির কর্মকর্তারা আরও বলেছেন, আগে পৌরসভায় একজন ভোটারের জন্য মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে তিন ধরনের ব্যালট ছাপানো হতো। কিন্তু এবার দলীয়ভাবে নির্বাচনে ২৪৫ পৌরসভার ৭৫ লাখ ভোটারের জন্য প্রায় সাড়ে তিন হাজার ধরনের দুই কোটি ২৫ লাখ ব্যালট ছাপাতে হবে। প্রতিটি পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ড ধরে ইসি এই হিসাব করলেও বাস্তবে এই সংখ্যা আরও বেশি হবে বলে তারা জানিয়েছেন। কারণ এর মধ্যে অনেক পৌরসভায় ওয়ার্ড সংখ্যা প্রায় ২০টির মতো। দেশে ৪০টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি ছাড়াও স্থানীয় সরকারের এই নির্বাচনে বিপুলসংখ্যক স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন বলে তারা ধারণা করছেন। ডিসেম্বরেই নির্বাচনের
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে এসব পৌরসভার নির্বাচিত পরিষদের পাঁচ বছরের মেয়াদ পূরণ হবে। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ২০১১ সালের জানুয়ারিতে পাঁচ দিনে আড়াই শতাধিক পৌরসভায় নির্বাচন হয়। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন অনুযায়ী প্রথম সভা থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর মেয়াদ পৌর পরিষদের। গত ১৭ জুন পৌরসভার তালিকা চেয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছিল ইসি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24