শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

জগন্নাথপুরে ধান কাটা শেষ চলছে ধান নিয়ে নাইয়াদের বাড়ি ফেরা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২০ মে, ২০১৫
  • ২২২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার: ধান কাটার মৌসুমে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে যে শ্রমিক আসে তাদেরকে নাইয়া বলা হয়। হাওর এলাকায় এখন চলছে নাইয়া বিদায় (ধান কাটার শ্রমিক) কৃষকরা পাওনা বুঝিয়ে দিয়ে বিদায় জানাচ্ছেন তাদেরকে। এনিয়ে জগন্নাথপুরের হাওর এলাকার কৃষকদের মধ্যে অন্যরকম আনন্দ রয়েছে। কৃষকরা জানান, প্রতি বছর ধান কাটার মৌসুমে দেশের উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ধান কাটার শ্রমিক আসেন। এসব শ্রমিকরা চুক্তিতে ধান কাটনে। বিদায় বেলা কৃষকরা খুশি হয়ে শ্রমিকদেরকে নতুন ধানের চাল দিয়ে পিঠা পায়েশ মাছ মাংস দিয়ে আপ্যায়নের পর ও নতুন কাপড় ছোপড় উপহার দিয়ে বিদায় জানান। শ্রমিকরা মহাআনন্দে নাচে গেয়ে বিদায় নেয়। জগন্নাথপুরের হাওরে নাইয়া বিদায় এ যেন আরেক হাওরী উৎসব।
জগন্নাথপুর উপজেলা চিলাউড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল গফুর বলেন, প্রকৃতির ঝড় বৃষ্টির খেলার মধ্যে কৃষকদেরকে এবার ধান কাটতে হয়েছে। ক্ষনে ক্ষনে বৃষ্টি ও রৌদে দেখা মিলেলেই কৃষকরা কষ্টের ফসল তুলার সংগ্রাম করতে হয়েছে ।তি নি জানান, এবার ২৫ জন নাইয়া সিরাজগঞ্জ থেকে এসেছিল্। তাদেরকে বিদায় জানান ধানের সাথে নাইয়া বিদায় একটা রীতিতে পরিণত হয়েছে। শ্রমিকরা খুশি হয়ে বাড়ি গেলে আগামী বছর আবার ফিরে আসবে ধান কাটতে।
আরেক কৃষক সুলেমান মিয়া বলেন, গত ৫ বছর ধরে রংপুরের শ্রমিকরা আমার বাড়িতে আসেন। এবারও তারা এসেছেন। তবে এবার শ্রমিক এসেছে কম। তিনি জানান, বৃষ্টির পানিতে হাওর জলমগ্ন হয়ে পড়ায় নাইয়াদের ধান কাটতে কষ্ট হয়েছে। যে কারণে সময় লেগেছে বেশী।
উপজেলা হাওর উন্নয়ণ পরিষদের নেতা সিদ্দিকুর রহমান জানান, স্থানীয়ভাব ধান কাটা শ্রমিক সংকট থাকায় উত্তরাঞ্চলের শ্রমিকদের ওপর আমাদের কৃষকদেরকে নির্ভর করতে হয়। যত দিন যাচ্ছে উত্তরাঞ্চলথেকেও শ্রমিক কম আসছে তাই কৃষকদের প্রযুক্তির দিকে নজর দিতে হবে। তার মতে কৃষি বিভাগ হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটার সুযোগ করে দিলে এক সাথে ধান কাটা মাড়াই ও বস্তাবন্দি হয়ে গেলে অনেক ঝুঁকি থেকে কৃষকরা মুক্তি পাবেন। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার নাইয়া সর্দার সুলেমান ঠাকুর বলেন, আমি ১৫ বছর ধরে বোরো মৌসুমে ধান কাটতে শ্রমিক নিয়ে জগন্নাথপুরে আসি। এখানকার মানুষ অত্যন্ত আত্বীয়পরায়ন। এবার হাওরে পানি ঢুকে যাওয়ায় শ্রমিকরা ঠিকমতো ধান কাটতে পারেননি। তিনি জানান, দেশের বিভিন্ন জায়গায় এখন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচেছ তাই এত দূর ধান কাটতে শ্রমিকরা আগের মতো আসতে চান না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24