জগন্নাথপুরে শিশুপুত্র হত্যার দায়ে মাসহ দুইজনের মৃত্যুদণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ছেলে হত্যার দায়ে মাসহ দুজনকে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করা হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের দুজনকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন এ রায় দেন।
দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন- জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের চিতুলিয়া গ্রামের বারিক মিয়া ও সিতারা বেগম। রায় ঘোষণার সময় বারিক মিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তবে সিতারা বেগম পলাতক রয়েছেন।  এ মামলার অারেক আসামি শিশু হওয়ায় তার বিচার শিশু আদালতে বিচারাধীন আছে।
জানা গেছে,  জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামের সৌদিপ্রবাসি  রফিকুল ইসলামের স্ত্রী সিতারা বেগমের সঙ্গে  একই এলাকার  বারিক মিয়ার অবৈধ সম্পর্ক ছিল। বারিক মিয়া রফিকুলের চাচাতো ভাই।
রফিকুল ইসলাম প্রবাসে থাকার তাদের সর্ম্পক বাঁধাহীনভাবে চলতে থাকে। সিতারা বেগমের ১১ বছর বয়সী শিশু ছেলে সোয়াইবুর রহমান তার মা ও মায়ের প্রেমিককে অনৈতিক কাজে দেখে পেলে। বিষয়টি বাবাকে জানিয়ে দেবে বলে মাকে জানায়। তখন বারিক ও সিতারা সোয়াইবুরকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।
২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যার দিকে তাকে হত্যা করে স্থানীয় একটি মাদ্রাসার
টয়লেটের ট্যাংকে ফেলে দেওয়া হয়। ঘটনার পরের দিন নিহতের চাচাতো ভাই হামজা মিয়া বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন।পুলিশ ঘটনার তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৫ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।
মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবি ছইল হোসেন জানান, আদালতের রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।  অপর দিকে আসামী পক্ষে আইজীবি রুহুল আমিন জানান, এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না

» লোকসভা নির্বাচন মুসলিমদের কি একপেশে করে রাখা হচ্ছে!

» জগন্নাথপুরে ১ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেফতার

» পরীক্ষা কেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আটক-১

» দলকে না জানিয়ে এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

» ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কা হামলার সম্পর্কের প্রমাণ নেই’

» ক্লাসে শিক্ষকদের সিগারেট-পান নিষিদ্ধ

» জগন্নাথপুরে এক সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

» জগন্নাথপুরে নিসচা’র উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ

» জগন্নাথপুরের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে আনহার মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে শিশুপুত্র হত্যার দায়ে মাসহ দুইজনের মৃত্যুদণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ছেলে হত্যার দায়ে মাসহ দুজনকে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করা হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের দুজনকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন এ রায় দেন।
দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন- জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের চিতুলিয়া গ্রামের বারিক মিয়া ও সিতারা বেগম। রায় ঘোষণার সময় বারিক মিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তবে সিতারা বেগম পলাতক রয়েছেন।  এ মামলার অারেক আসামি শিশু হওয়ায় তার বিচার শিশু আদালতে বিচারাধীন আছে।
জানা গেছে,  জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামের সৌদিপ্রবাসি  রফিকুল ইসলামের স্ত্রী সিতারা বেগমের সঙ্গে  একই এলাকার  বারিক মিয়ার অবৈধ সম্পর্ক ছিল। বারিক মিয়া রফিকুলের চাচাতো ভাই।
রফিকুল ইসলাম প্রবাসে থাকার তাদের সর্ম্পক বাঁধাহীনভাবে চলতে থাকে। সিতারা বেগমের ১১ বছর বয়সী শিশু ছেলে সোয়াইবুর রহমান তার মা ও মায়ের প্রেমিককে অনৈতিক কাজে দেখে পেলে। বিষয়টি বাবাকে জানিয়ে দেবে বলে মাকে জানায়। তখন বারিক ও সিতারা সোয়াইবুরকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।
২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যার দিকে তাকে হত্যা করে স্থানীয় একটি মাদ্রাসার
টয়লেটের ট্যাংকে ফেলে দেওয়া হয়। ঘটনার পরের দিন নিহতের চাচাতো ভাই হামজা মিয়া বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন।পুলিশ ঘটনার তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৫ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।
মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবি ছইল হোসেন জানান, আদালতের রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।  অপর দিকে আসামী পক্ষে আইজীবি রুহুল আমিন জানান, এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।
© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।