বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে হাওরে পানি সংকট, বোরো আবাদ নিয়ে শঙ্কিত কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ৩৯ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে চলতি বোরো ফসলের চাষাবাদ নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন।
আবাদের শুরুতেই হাওরজুড়ে পানি সংকটে দেখা দিয়েছে। হাওর এলাকার খাল বিল জলাশয় ভরাট হয়ে যাওয়ায় হাওরে তীব্র পানির সংকট চলছে।
জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর নলুয়া ও মইয়ার হাওরে পানির সংকট প্রকট আকার ধারন করেছে বলে কৃষকরা জানান।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় ও কৃষকরা জানান, জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ নলুয়া হাওরসহ উপজেলার ছোট বড় কমপক্ষে ১৫টি হাওরে এবার ২০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে হাওর ঘুরে কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কৃষকরা এখন জমিতে চারা রোপন করছেন। নলুয়া ও মইয়ার হাওরে চারা রোপন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। চারা রোপনের পর এসব জমিতে পানি দিতে হয়। পানি সংকটের কারনে কৃষকরা বেকায়দায় পড়েছেন।
নলুয়ার হাওরে এবার ২০ কেদার জমিতে আবাদ করছেন নয়াচিলাউড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল হামিদ। তিনি বলেন, আবাদের শুরুতেই পানি সংকটে পড়েছি। এর মধ্যে কিছু জমিতে পানির অভাবে চারা লালসে হয়ে যাচ্ছে। সঠিক সময়ের মধ্যে যদি পানি না পাওয়ায় তাহলে এবার গোলায় হয়তো ফসল তুলা যাবে না। তিনি বলেন, আল্লাহর ওপর ভরসা করেই আবাদ শুরু করেছি।

আরেক কৃষক যাত্রাপাশা গ্রামের বকুল গোপ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তিনি ছয় কেদার বোরো আবাদ করেছেন। চারা রোপনের পর জমির আশেপাশে পানি না থাকায় পানি দিতে পারছেন না। হাওর এলাকার খালগুলো ভরাট হয়ে যাওয়ায় তীব্র পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়াও আমাদের জমির দেড় কিলোমিটার দুরে থাকা রৌয়া বিল থেকে পানি আনতে গেলে বিলের ইজারাদাররা মাছ ধরার সুবিধার জন্য বাধা দিচ্ছে। আবার অনেক বিল পুরোপুরি শুকিয়ে মাছ ধরার কারনে পানির সংকটে পড়তে হচ্ছে।
নলুয়া হাওরেরপাড়ের কৃষক নেতা সিদ্দিকুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওর এলাকার খালগুলো ভরাট হয়ে যাওয়া ও বিল শুকিয়ে মাছ ধরার কারনে কৃষকরা বোরো চাষাবাদে পানির সংকটে পড়ছেন। তিনি বলেন, মৎস্য ব্যবসায়ীরা মাছ ধরার জন্য নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে জলমহাল শুকিয়ে মাছ ধরার জন্য পানির সংকট দেখা দেয়।

পৌর এলাকার ভবানীপুর গ্রামের কৃষক আফছর উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,সময়মতো চারায় পানি দিতে না পারলে চারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়ে। তিনি বলেন, যথাসময়ে চারায় পানি পড়লে দ্রুত চারা বাড়তে থাকে। ফলন ভাল হয়।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরে পানির সংকটে বোরো আবাদে বিঘœতার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে হাওরের খালগুলো খননের উদ্যাগ নেয়া দরকার। বিএডিসির মাধ্যমে আমরা সেচ সুবিধা নিশ্চিত করতে একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাব পাঠিয়েছি। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে হাওরে সেচ সুবিধা নিশ্চিত হবে।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম মাসুম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওর এলাকায় জলমহাল শুকিয়ে মাছ ধরার নীয়ম নেই। এধরনের অভিযোগ পেলে আইনানুগ পদক্ষেপ নেব। তিনি বলেন, হাওরের খালগুলো খননের চেষ্টা করব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24