রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়ক: হাঁ করা মৃত‌্যুফাঁদ

আলী আহমদ
  • Update Time : শুক্রবার, ৩১ মে, ২০১৯
  • ৫৬৯ Time View

জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। জগন্নাথপুর উপজেলাবাসী সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার ওপর দিয়ে বিভাগীয় শহর সিলেট ও রাজধানী ঢাকায় যাতায়াতের জন্য ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের এই সংযোগ সড়কটি ব্যবহার করে। কিন্তু সংস্কারের অভাবে সড়কটির অবস্থা করুণ। ফলে দুই উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি ও এলাকাবাসী জানায়, ২০১৭ সালে জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সংস্কার করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নূরা এন্টারপ্রাইজ। কিন্তু কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার করায় নির্মাণের তিন মাসের মাথায়ই সড়কের একাধিক স্থানে ভাঙন ও গর্ত সৃষ্টি হয়। জগন্নাথপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০১৮ সালেও ১০ লাখ টাকার সংস্কারকাজ বাস্তবায়ন করে। বর্তমানে এই ১৩ কিলোমিটার অংশই বেহাল। পিচ উঠে সড়কজুড়ে গর্ত আর খান্দাখন্দে ভরে গেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সড়ক সংস্কারের নামে সরকারি বরাদ্দ অর্থ লুট হয়। আর বছরের পর বছর দুর্ভোগ পোহাতে হয় জনসাধারণকে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার ও কেউনবাড়ি থেকে বিশ্বনাথ বাইপাস মুখ পর্যন্ত ২৭ কিলোমিটার সড়কেই বড় বড় গর্ত। এসব গর্তে বৃষ্টির পানি জমে কাদাপানিতে একাকার। গর্তের মধ্যে প্রায়ই মালবাহী ট্রাক আটকে পড়ে। এর ফলে সড়কে সৃষ্টি হয় যানজট। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে সড়কের মীরপুর বাজার এলাকার মেঘারকান্দি সেতুর মোড়ে একটি ট্রাক গর্তে পড়ে। এতে প্রায় চার ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে ওই পথে। এ রকম ঘটনা প্রতিনিয়তই ঘটছে।

অন্যদিকে বিশ্বনাথ অংশের অবস্থা আরো নাজুক। এ পথে নিয়মিত যাতায়াতকারী জগন্নাথপুরের কেশবপুর এলাকার বাসিন্দা আবু হেনা রনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সড়ক সংস্কারের জন্য কোটি কোটি টাকা সরকার বরাদ্দ দেয়। কিন্তু নিম্নমানের কাজের কারণে সেই রাস্তা বছরও টেকে না। এর ফলে জনগণের অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।’ ফজলু মিয়া বলেন, ‘লক্কড়ঝক্কড় সড়ক দিয়ে যানবাহনে চলাচলও কষ্টকর।’

এসড়কের বাসচালক আবুল কালাম বলেন, ‘সড়কজুড়ে যেভাবে গর্ত তৈরী হয়েছে গাড়ি চালাতে নিজেদের ইচ্ছে করে না। জীবনজীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে চালাতে হয়’। তিনি বলেন, ‘সড়কের এমন নাজুকদশা যেন দেখার কেউ নেই’।
জগন্নাথপুরের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিনা রানী রায় জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,‘সিলেট শহর থেকে জগন্নাথপুরে বিদ্যালয়ে প্রতিদিন আসতে হয়। ভাঙ্গাচোরা সড়কে হেলেদোলে গাড়ি চলতে গিয়ে কষ্টের পাশাপাশি দুর্ঘটনার ভয়ে থাকতে হয়’। তিনি বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ন এ সড়কের এমন নাজুক দশা মেনে নেয়া যায় না’।
জগন্নাথপুরের শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘বিভাগীয় শহরের সাথে যাতায়াত ও রশিদপুর হয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এই সড়ক দিয়ে সংযুক্ত হয়ে দুই উপজেলাবাসীকে যাতায়াত করতে হয়। বছরজুড়ে সড়কের এমন নাজুকদশার কারণে সড়কটি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের স্থানান্তরের দাবি উঠেছে’। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান,‘জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় সিদ্ধান্ত নিয়ে সড়কটি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের স্থানান্তর করতে আবেদন করা হয়েছে। এছাড়াও জগন্নাথপুর অংশে দ্রুত কিছু সংস্কার কাজ করতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কে বলা হয়েছে’।
বিশ্বনাথের স্থানীয় সাংবাদিক মোহাম্মদ শিপন আলী জানান, ‘বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর,দৌলতপুর,দেওকলস ও বিশ্বনাথ সদর চার ইউনিয়নের লোকজন এসড়ক ব্যবহার করেন। সড়কে নাজুকদশায় জগন্নাথপুরের পাশাপাশি বিশ্বনাথ উপজেলাবাসী অর্বণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন’।

স্থানীয় সরকার উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘২০১৭ সালে যখন সড়কটির কাজ হয়, তখন আমি এ উপজেলায় ছিলাম না। আমি এসেই সড়কের নাজুকদশা দেখেছি। গত বছর কিছু মেরামত করেছি। এবারও জরুরি মেরামতের জন্য ১৩ লাখ টাকার টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তবে একটি সড়ক সংস্কারের তিন বছরের মধ্যে পুনরায় সংস্কার করার নিয়ম না থাকায় কাজ করা যাচ্ছে না। আগামী অর্থবছরে সংস্কার করা হবে।’ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর বিশ্বনাথ উপজেলার প্রকৌশলী হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি এ উপজেলায় নতুন যোগ দিয়েছি। খোঁজখবর নিয়ে পদক্ষেপ নেব।’

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘জনগুরুত্বপূর্ণ এই সড়কের বেহালদশায় একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতিনিয়ত লজ্জায় পড়তে হচ্ছে। সড়কটি দ্রুত সংস্কার করতে সুনামগঞ্জ জেলার মাসিক উন্নয়ন সভায় আলোচনা করেছি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24