মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার

তক্ষকের দাম কোটি টাকা স্রেফ গুজব

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ২৬৩ Time View

বিন্দু তালুকদার::
একেবারেই নিরীহ ও বাণিজ্যিকভাবে উপযোগিতাবিহনীন সরীসৃপ জাতীয় ছোট্ট প্রাণি তক্ষক। এর একটির দাম কোটি টাকা বা তার উপরে এমন প্রচারণা চালিয়ে একটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে ধাপ্পাবাজি করে আসছে। নিজেদের অজান্তে এই অপপ্রচারের অংশ হয়ে যাচ্ছেন বিজিবির লোকরাও। তক্ষক আটকের পর যখন তারা গণমাধ্যমে প্রেসরিলিজ পাঠান তখন আটক তক্ষকের দাম এরকম উচ্চমূল্যের বলেই উল্লেখ করে থাকেন। এভাবে তক্ষক নামক এই বন্য প্রাণিটিকে বিলুপ্তির দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের পক্ষ থেকে তক্ষকের কোটি টাকা মূল্য বিষয়ে ব্যাপক অনুসন্ধান ও তথ্য সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু কোথাও এমন কোন তথ্য মিলেনি যেখানে একটি তক্ষকের দাম এত বেশি হতে পারে। তক্ষকের ছোট শরীরের চামড়া, মাংস বা অন্যকোন বস্তু এমন কোন কাজে ব্যবহার করা সম্ভব হয় না যেখানে এত অধিক পরিমাণ অর্থের যোগসূত্র থাকতে পারে। প্রাণি বিশেষজ্ঞ ও সচেতন মহলের অভিমত এখনই তক্ষকের এমন উচ্চ মূল্যের প্রচারণা থেকে সকলের বেরিয়ে আসা উচিৎ নতুবা একসময়ে এই প্রাণিটি বিলুপ্তির দিকে চলে যাবে।
বন্য নিরীহ এই প্রাণিটির নাম ‘তক্ষক’ (ইংরেজি: Tokay gecko, বৈজ্ঞানিক নাম:Gekko gecko) গেকোনিডি গোত্রের একটি গিরগিটি জাতীয় প্রাণি এটি। পিঠের দিক ধূসর, নীলচে-ধূসর বা নীলচে বেগুনি-ধূসর। দেখতে অনেকটা টিকটিকি ও গুই সাপের বাচ্চার মতো।
বাংলাদেশ থেকে শুরু করে অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত কিছু কিছু দ্বীপাঞ্চলে রয়েছে এই প্রাণি। উইকিপিডিয়া থেকে জানা যায়, ভারত ও বাংলাদেশসহ মিয়ানমার, থাইল্যান্ড,ভিয়েতনাম, লাওস, কাম্পুচিয়া, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, চীন ও ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন দেশে প্রায় ৬০০ প্রজাতির তক্ষকের বাস।
গুজব রয়েছে চড়ামূল্যে বিক্রি হয় এই প্রাণিটি। তাই অনেকেই এটির সন্ধানে ঘুরে ঘুরে নিঃস্ব হতে বসেছেন। তবু তারা হতাশ নন, খুঁজেই চলছেন। সীমান্ত এলাকাসহ সুনামগঞ্জ শহরের ষোলঘর এলাকায় বেশ কিছু তক্ষক ব্যবসায়ী রয়েছে বলে জানা গেছে।
অনেকেই জানান, তক্ষক ব্যবসায়ীরা যেখানে সন্ধান পাচ্ছেন, সেখানেই ছুটে যান। তাদের মতে, এই প্রাণির দুই ধরনের পা রয়েছে। কোনটার ‘মুরগী পা’ আর কোনটার ‘হাঁস পা’। ‘হাঁস পা’গুলোর দাম খুব বেশি। সর্বনিম্ন সাড়ে ৯ ইঞ্চি লম্বা ও ৫২ গ্রাম ওজনের ‘হাঁস পা’ চলে। এর কম ওজন বা লম্বায় সাড়ে ৯ ইঞ্চির ছোট হলে চলবে না। ইঞ্চির মাপ ধরা হয় চোখ থেকে লেজের শেষ পর্যন্ত। ‘মুরগি পা’গুলো ২৫৫ গ্রাম ওজন ও সাড়ে ১৫ ইঞ্চি লম্বা হতে হবে। এ ছাড়া একটা আছে ‘বার্মিজ’। ‘বার্মিজটা’র ওজন সাড়ে তিনশ গ্রামের নিচে হলে বিক্রির অনুপযুক্ত। গহীন বনের এই নিরীহ প্রাণীটির কয়েক কোটি টাকা দাম এই অপপ্রচার চালিয়ে সম্প্রতি সুনামগঞ্জ সীমান্ত এলাকায় শুরু হয়েছে বাণিজ্য ও চোরাচালানীদের একটি শক্ত সিন্ডিকেট। মূলত অপপ্রচারের মাধ্যমে মানুষকে এই ব্যবসায় জড়িত করে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেয়াই এই চক্রটির উদ্দেশ্য।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত প্রায় এক মাসে সুনামগঞ্জে বিজিবির লোকজন সীমান্ত এলাকা থেকে ৭টি তক্ষক উদ্ধার করেন। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) সকালে দোয়ারাবাজার সীমান্তের লক্ষীপুর ইউনিয়নের ভাঙাপাড়া এলাকায় মাঠগাঁও বিওপি’র জওয়ানরা ১টি তক্ষকসহ ৭ ব্যবসায়ীকে আটক করেন। পরে বিজিবি’র মাঠগাঁও বিওপি’র জওয়ানরা আটককৃত ওই ৭ তক্ষক ব্যবসায়ীকে বিকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে হাজির করেন। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আটকৃতদের প্রত্যেককে ৩ মাস করে কারাদ- প্রদান করেন। তক্ষক আটকের পর বিজিবির ২৮ রাইফেল ব্যাটলিয়ান থেকে দাবি করা হয় কয়েক কোটি টাকা আটক তক্ষকটির মূল্য।
তবে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ ও পরিবেশবিদসহ নানা মহলের দাবি একটি তক্ষকের কোটি টাকা মূল্য দাবি করা নিতান্তই অযৌক্তিক। এই ধরনের মূল্য নির্ধারণ করে প্রচারণা বরং প্রতারকদেরই সুবিধা করে দেয় বলে দাবি ওই মহলের। অন্যদিকে শুধু শুধু এই অপপ্রচার চালিয়ে নিরীহ এই প্রজাতির প্রাণিটিকে ধ্বংসের লীলায় মেতে উঠেছে প্রতারক চক্র ও তাদের দ্বারা প্রলুব্ধ কিছু ব্যক্তি। অপপ্রচারে সহযোগিতা করছে সরকারের দায়িত্বশীল সংস্থা। না বুঝে শুধু আন্দাজেই একটি তক্ষকের দাম কয়েক কোটি টাকা বলে প্রচার করে যাচ্ছেন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাসহ অনেকেই।
বণ্য প্রাণী সংরক্ষণ ও পরিবেশবিদরা দাবি করেছেন একটি তক্ষকের মূল্য কয়েক কোটি টাকা বলা নিতান্তই অসত্য। পৃথিবীর কোথাও আজ পর্যন্ত তক্ষক কোটি বা লাখ টাকায় বিক্রি হয় নি। এসব প্রাণী কেনা-বেচার কোন হাট নেই। সরকারি বা বেসরকারিভাবে আজ পর্যন্ত তক্ষকের কোন মূল্য নির্ধারণ করা হয়নি।
মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে অবস্থিত ‘বাংলাদেশ বণ্য প্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন’ এর চেয়ারম্যান শীতেস রঞ্জন দেব বলেন, ‘তক্ষক একটি নিরীহ প্রাণী। এরা সাধারণত পরিত্যক্ত দালানকোঠা ও বটগাছে থাকতে পছন্দ করে। এই প্রাণিটি টিকটিকি, পোকা মাকড়সহ নানা ধরনের কীট-পতঙ্গ খেয়ে জীবন ধারণ করে। বাংলাদেশ-ভারত উপমহাদেশে তক্ষক কোথাও বিক্রি হয় এটা আমি জীবনে শুনি নি। একটি দুষ্টচক্র গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে দিয়ে এই প্রাণীটিকে ধরায়। কেউ আজ পর্যন্ত কোথাও একটি তক্ষক বাজারে বিক্রি করেছেন এধরনের কোন তথ্য-প্রমাণ কেউ দেখাতে পারবেন না।’
জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা আজহারুল ইসলাম বলেন,‘সুনামগঞ্জের কোথাও তক্ষক চাষ হয় না। তক্ষকের চিকিৎসা বা পরামর্শের জন্য আজ পর্যন্ত আমাদের কাছে কেউ আসে নি। সাধারণ মানুষের মত আমরাও লোকমুখে শুনি একটি তক্ষকের দাম নাকি কোটি টাকা। আমার মনে হয় এসব দাবি সঠিক নয়। তক্ষকের দাম এত টাকা হতে পারে না, এসব শুধুই গুজব।’
জেলা বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা বলরাম রায় বলেন,‘বিজিবির লোকজন সীমান্ত এলাকা থেকে তক্ষক আটক করে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেন। তাদের দাবি বাংলাদেশ থেকে ভারতে পাচারের সময় তারা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এইসব প্রাণি উদ্ধার করে থাকেন। গত দুই মাসে বিভিন্ন সময়ে বিজিবি আমাদের কাছে ৭টি তক্ষক হস্তান্তর করেছে। আমরা সেগুলিকে গভীর বনাঞ্চলে উন্মুক্ত করেছি। ’
একটি তক্ষকের কোটি টাকা মূল্য কিভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘ কোটি টাকা মূল্য নির্ধারণের বিষয়ে আমাদেরও একই প্রশ্ন। কারা এই বণ্য প্রাণীর এমন মূল্য নির্ধারণ করেছে তা জানতে চাই। কোথাও এসব প্রাণী বেচা-কেনা হয় বলে আমাদের জানা নেই। কোটি টাকা মূল্য নির্ধারণের প্রসঙ্গ নিয়ে গতকাল রবিবার জেলা আইনশৃংখলা সভায় উপস্থিত একজন প্রশ্ন উত্থাপন করেছিলেন। উপস্থিত বিজিবির কর্মকর্তা কোন জবাব দেননি। জেলা প্রশাসক বলেছেন সরকারিভাবে এর কোন মূল্য নির্ধারণ করা হয়নি। আমাদের ধারণা তক্ষকের দাম কোটি টাকা এসব শুধুই অপপ্রচার। ’
বিজিবির ২৮ রাইফেল ব্যাটলিয়নের উপ অধিনায়ক মেজর মাহবুব আলম বলেন,‘একটি তক্ষকের প্রকৃত মূল্য কত টাকা তা আমরা জানি না। তক্ষকসহ আটককৃতরা যত টাকা মূল্য বলেন তাদের কথা অনুযায়ীই আমরা সিজার লিস্টে টাকার অংক উল্লেখ করি। তবে এত টাকা মূল্য বলার পেছনে গুজবও থাকতে পারে। কারণ ফেইসবুক, পত্র-পত্রিকায় আমরা একটি তক্ষকের দাম কোটি টাকা বলে দেখতে পাই। এই দামটা সঠিক কিনা তা আমরা নিশ্চিত নই।’
তিনি আরো বলেন,‘ তক্ষক ধরা, বেচা-কেনা ও পাচারের সাথে একটি ভয়ংকর চোরাচালানীচক্র জড়িত। চোরাচালানী প্রতিরোধ এবং তাদের আটক করতে কাজ করছি আমরা। গত দুই মাসে সীমান্তসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে বেশ কিছু তক্ষক উদ্ধারসহ জড়িতদের আটক করে বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করেছি। অনেক চোরাচালানীর জেল-জরিমানাও হয়েছে। ’
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,‘ তক্ষক একটা নিরীহ বন্য প্রাণী। এই প্রাণীটির দাম কয়েক কোটি টাকা বলা শুধুই অপপ্রচার। এই প্রাণীকে বাঁচানোর জন্য এই অপপ্রচার বন্ধসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে এবং জনসচেতনতা বাড়াতে হবে।’ তিনি আরো বলেন,‘ রবিবার জেলা আইনশৃংখলা সভায় তক্ষকের দাম নিয়ে কথা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ সভায় উপস্থিত অনেকেই বলেছেন একটি তক্ষকের দাম এরকম হওয়ার কোনই যুক্তি নেই।’
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কনজারভেশন অব বায়োলজি এবং ক্লাইমেট চেঞ্জ রিসার্স ইউনিট ‘প্রাণীবিদ্যা’ বিভাগের প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র দাস জানান, বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশে নানারকম গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে তক্ষক সংগ্রহের কাজে প্রলুব্ধ করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে যে, ৩০০-৪০০ গ্রাম ওজনের কাছাকাছি একটি তক্ষকের দাম কয়েক লক্ষ বা কোটি টাকা। সাধারণ মানুষ না বুঝেই তখন তক্ষক খোঁজা শুরু করে দেয়। গুজব রটনাকারী চক্রের খপ্পরে অনেকেই তক্ষক খোঁজেন। গোটা বিষয়টি নিঃসন্দেহে ধাপ্পাবাজী। তবে ইন্দোচায়না তথা বৃহত্তর দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার কয়েকটি দেশে তক্ষকের কিছু চাহিদা আছে। ওই সব দেশে গৃহপালিত প্রাণি হিসেবে কিংবা ঔষধ তৈরির কাজে তক্ষক ক্রয়-বিক্রয় হয়। কিন্তু কোনোক্রমেই তা লক্ষ লক্ষ বা কোটি টাকায় নয়।’ সূত্র- সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24