দক্ষিণ সুনামগঞ্জে লড়াই হবে দ্বিমুখি

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::
পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপের ভোট হবে ১০ মার্চ। আর মাত্র ১৪ দিন বাকী। প্রথমে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় নির্দেশনার পর দলের মনোনীত প্রার্থী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ সদর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম ছাড়া বাকী ৩জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। দলের কেন্দ্রিয় সিদ্ধান্তের কারণে বিএনপির দুই প্রার্থীর একজন মনোনয়ন প্রত্যাহার করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে থেকে যান উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ। তার রাজনৈতিক দল বিএনপি থেকে শাস্তিমূলক সিদ্ধান্ত আসতে পারে জেনেও প্রার্থীতা বহাল রেখে এখন মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি প্রতীক পেয়েছেন আনারস। এদিকে, সরকার দলের মনোনয়ন পাওয়ার পর নৌকা প্রতীক নিয়ে নিজের আসনকে পুনরায় টিকিয়ে রাখতে প্রচ- ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন আবুল কালাম। নির্বাচনকালীন গুরুত্বপূর্ণ এ সময়ে এই দুই প্রধান প্রার্থী-ই ছোটে বেড়াচ্ছেন গ্রাম থেকে গ্রাম, পাড়া-মহল্লা, হাট-বাজার এমনকি মাটি কাটার শ্রমিকদের মাটির গর্তেও। তাদের সাথে কথা বলছেন, গায়ে জড়িয়ে ধরে কুশল বিনিময় করছেন। ছবি তুলছেন। পোস্ট করছেন নিজেদের জনপ্রিয় ফেসবুকেও। মূলত: দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ভোটের লড়াই করবেন এই দুই প্রার্থী-ই। সাধারণ ভোটাররা এই দুই দক্ষ রাজনীতিকের মধ্য থেকেই বেছে নেবেন তাদের যোগ্য নেতাকে।
উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, যেহেতু আর কোনো প্রার্থী নাই সেহেতু এঁদের কাউকেই নির্বাচনে ভোট দিতেই হবে। উনাদের কাউকে না দিলে আর তো প্রার্থী-ই নাই। আর যদি আরো একাধিক প্রার্থী থাকতেনও, তবুও এই দুই জনের মধ্য থেকে একজনকেই তারা বেছে নিতেন। সাধারণের দৃষ্টিভঙ্গিতে ফারুক আহমদ ও আবুল কালাম দু’জনই যোগ্য লোক। যারা সব সময় নৌকায় ভোট দিয়ে আসছেন তারা সকলেই স্বতঃস্ফুর্তভাবে নৌকায় ভোট দিবেন এবং বিএনপি সমর্থকসহ যারা নৌকার বাইরে ভোট দেওয়ার কথা ভাবছেন তারাও প্রবল আগ্রহ নিয়ে ভোট দিবেন ফারুক আহমদের প্রতীক আনারসে। বিএনপির দলীয় নেতা এবং এই উপজেলার সভাপতি হওয়ায়- দলীয় ভোট, স্বতন্ত্র ব্যক্তি হিসেবে অতিসাধারণের ভোট ও আওয়ামী সমর্থকদের কিছু ভোট ফারুক আহমদের ঝুলিতে পড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় ভোট বিশ্লেষকেরা। অন্যদিক দলের একক প্রার্থী ও দলীয় প্রতীক নৌকা থাকায় জয়ের ব্যপারে বিশাল একটা সুযোগ থেকে যাবে আবুল কালামের। আবার অনেক স্থানীয় ভোটবোদ্ধারা মনে করেন- দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ায় ফারুক আহমদের পক্ষে না থেকে গোপনে আবুল কালামকে সমর্থন দিতে পারেন অনেক বিএনপি নেতা। সব মিলিয়ে মাঠের ও খাতার হিসেবে পুরোপুরি জমে গেছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।
এ ব্যপারে দরগাপাশা ইউনিয়নের ভমবমি বাজারে আছির আলী বলেন, ‘নৌকা-আনারসে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। আমরা চাই কোনো ঝামেলা ছাড়া নির্বাচনটা হোক।’
শিমুুলবাঁক ইউনিয়নের মো. আবদুল্লাহ্ বলেন, ‘আমার দৃষ্টিতে দু’জন মানুষই ভালো। তাদের দু’জনই যোগ্য। যে কাউকেই ভোট দেওয়া যায়। তবে, আমার এলাকায় যিনি শিক্ষায়, রাস্তাঘাট উন্নয়নের জন্য কাজ করবেন তাকেই ভোট দেবে সাধারণ মানুষ। যে নেতা ডাকলেই মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান, বিচার শালিসে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন তাকেই ভোট দেবো।’
পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের দরগাপুর গ্রামের জমির হোসেন বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে এই ইউনিয়নে ফারুক ভাই-কালাম ভাই সমানে সমান। তাদের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। তবে আমি নৌকাতেই ভোট দেবো। আমাদের ইউনিয়নের প্রেক্ষাপ্রটে কে বিজয়ী হবেন তা এখনো বুঝা যাচ্ছে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরের বীর মুক্তিযাদ্ধা আব্দুল কাদির শিকদার আর নেই, পরিকল্পনামন্ত্রীর শোক

» সুনামগঞ্জে তিন দিনে তিন খুন, ভাবাচ্ছে সকলকে

» হানিফ পরিবহনের ২ বাসের সংঘর্ষে নিহত-৩

» নিউজিল্যান্ডের রেডিও-টিভিতে জুমার আজান সম্প্রচারের ঘোষণা দিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী

» ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম হত্যা: ১৫ আসামির মৃত্যুদণ্ড

» ইউসুফ (আ.)-এর কবরের পাশে তিন ফিলিস্তিনি যুবককে গুলি করে হত্যা

» জগন্নাথপুরে চার জুয়াড়ি আটক

» নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন ২৮ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত

» তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা না রাখার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

» বাসচাপায় নিহত আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে লড়াই হবে দ্বিমুখি

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::
পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপের ভোট হবে ১০ মার্চ। আর মাত্র ১৪ দিন বাকী। প্রথমে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় নির্দেশনার পর দলের মনোনীত প্রার্থী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ সদর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম ছাড়া বাকী ৩জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। দলের কেন্দ্রিয় সিদ্ধান্তের কারণে বিএনপির দুই প্রার্থীর একজন মনোনয়ন প্রত্যাহার করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে থেকে যান উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ। তার রাজনৈতিক দল বিএনপি থেকে শাস্তিমূলক সিদ্ধান্ত আসতে পারে জেনেও প্রার্থীতা বহাল রেখে এখন মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি প্রতীক পেয়েছেন আনারস। এদিকে, সরকার দলের মনোনয়ন পাওয়ার পর নৌকা প্রতীক নিয়ে নিজের আসনকে পুনরায় টিকিয়ে রাখতে প্রচ- ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন আবুল কালাম। নির্বাচনকালীন গুরুত্বপূর্ণ এ সময়ে এই দুই প্রধান প্রার্থী-ই ছোটে বেড়াচ্ছেন গ্রাম থেকে গ্রাম, পাড়া-মহল্লা, হাট-বাজার এমনকি মাটি কাটার শ্রমিকদের মাটির গর্তেও। তাদের সাথে কথা বলছেন, গায়ে জড়িয়ে ধরে কুশল বিনিময় করছেন। ছবি তুলছেন। পোস্ট করছেন নিজেদের জনপ্রিয় ফেসবুকেও। মূলত: দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ভোটের লড়াই করবেন এই দুই প্রার্থী-ই। সাধারণ ভোটাররা এই দুই দক্ষ রাজনীতিকের মধ্য থেকেই বেছে নেবেন তাদের যোগ্য নেতাকে।
উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, যেহেতু আর কোনো প্রার্থী নাই সেহেতু এঁদের কাউকেই নির্বাচনে ভোট দিতেই হবে। উনাদের কাউকে না দিলে আর তো প্রার্থী-ই নাই। আর যদি আরো একাধিক প্রার্থী থাকতেনও, তবুও এই দুই জনের মধ্য থেকে একজনকেই তারা বেছে নিতেন। সাধারণের দৃষ্টিভঙ্গিতে ফারুক আহমদ ও আবুল কালাম দু’জনই যোগ্য লোক। যারা সব সময় নৌকায় ভোট দিয়ে আসছেন তারা সকলেই স্বতঃস্ফুর্তভাবে নৌকায় ভোট দিবেন এবং বিএনপি সমর্থকসহ যারা নৌকার বাইরে ভোট দেওয়ার কথা ভাবছেন তারাও প্রবল আগ্রহ নিয়ে ভোট দিবেন ফারুক আহমদের প্রতীক আনারসে। বিএনপির দলীয় নেতা এবং এই উপজেলার সভাপতি হওয়ায়- দলীয় ভোট, স্বতন্ত্র ব্যক্তি হিসেবে অতিসাধারণের ভোট ও আওয়ামী সমর্থকদের কিছু ভোট ফারুক আহমদের ঝুলিতে পড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় ভোট বিশ্লেষকেরা। অন্যদিক দলের একক প্রার্থী ও দলীয় প্রতীক নৌকা থাকায় জয়ের ব্যপারে বিশাল একটা সুযোগ থেকে যাবে আবুল কালামের। আবার অনেক স্থানীয় ভোটবোদ্ধারা মনে করেন- দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ায় ফারুক আহমদের পক্ষে না থেকে গোপনে আবুল কালামকে সমর্থন দিতে পারেন অনেক বিএনপি নেতা। সব মিলিয়ে মাঠের ও খাতার হিসেবে পুরোপুরি জমে গেছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।
এ ব্যপারে দরগাপাশা ইউনিয়নের ভমবমি বাজারে আছির আলী বলেন, ‘নৌকা-আনারসে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। আমরা চাই কোনো ঝামেলা ছাড়া নির্বাচনটা হোক।’
শিমুুলবাঁক ইউনিয়নের মো. আবদুল্লাহ্ বলেন, ‘আমার দৃষ্টিতে দু’জন মানুষই ভালো। তাদের দু’জনই যোগ্য। যে কাউকেই ভোট দেওয়া যায়। তবে, আমার এলাকায় যিনি শিক্ষায়, রাস্তাঘাট উন্নয়নের জন্য কাজ করবেন তাকেই ভোট দেবে সাধারণ মানুষ। যে নেতা ডাকলেই মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান, বিচার শালিসে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন তাকেই ভোট দেবো।’
পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের দরগাপুর গ্রামের জমির হোসেন বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে এই ইউনিয়নে ফারুক ভাই-কালাম ভাই সমানে সমান। তাদের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। তবে আমি নৌকাতেই ভোট দেবো। আমাদের ইউনিয়নের প্রেক্ষাপ্রটে কে বিজয়ী হবেন তা এখনো বুঝা যাচ্ছে না।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।