1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
ধনু অমলিন- অশেষ কান্তি দে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:২২ পূর্বাহ্ন

ধনু অমলিন- অশেষ কান্তি দে

  • Update Time : রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ১০৯ Time View

মানুষের মৃত্যু হলে ও মানব
থেকে যায়;অতীতের থেকে উঠে আজকের মানুষের কাছে
প্রত্থমত চেতনার পরিমাপ নিতে আসে।

মৃত্যু নিয়ে এই কবিতা লিখেছিলেন জীবনানন্দ দাশ।
মৃত্যু চিরন্তন,মৃত্যু অবধারিত।
জন্মিলে মরিতে হইবে এর চাইতে সত্য আর কী- ই বা আছে।

তবু কিছু কিছু মৃত্যু মেনে নেওয়া খুব দুষ্কর। শ্বাশত জেনে ও।

জীবনানন্দ তো মারা গেলেন ট্রাম দুর্ঘটনায়।
ট্রামে এভাবে কেউ মারা যায় নাকি!
তার ক্ষেত্রে তাই হয়েছিল।

জীবিতকালে জীবনানন্দ বলতে গেলে স্বীকৃতি পাননি বললেই চলে।
পেয়েছেন লাঞ্চনা কিংবা অপমান।একটি চাকরির জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন কবি।অভাবের তাড়নায় পরিবার নিয়ে একসাথে মরে যাওয়ার কথাও ভেবেছেন কখনো।

বেঁচে থাকতে যে জীবনবাবুকে বুঝতে চায়নি তেমন কেউ কবি বলে স্বীকার করতে কুন্ঠিত হয়ে উপহাসের পাত্র হয়েছিলেন কেবল মৃত্যুর পরে তিনি ধীরে ধীরে হয়ে উঠলেন মহিরুহ। বাংলা ভাষার প্রধান কবিদের অন্যতম।

জীবনানন্দের মৃত্যু সড়ক দুর্ঘটনায়।আমাদের অনেকের প্রিয় বন্ধু ধনঞ্জয় দাস ধনুর মৃত্যুর কারন ও ওই সড়ক।

বড় অবেলায় তার বিষন্ন চলে যাওয়া।
এই জনপদে সড়ক একের পর এক মৃত্যু পরোয়ানা নিয়ে আসে এখন প্রতিনিয়ত।

ফেন্রুয়ারির সেই সকালে ধনু তার মোটর বাইক নিয়ে বেরিয়েছিল সুনামগঞ্জ শহরে যাবে বলে।ছেলে অর্জুনকে দেখে ফেরার তাড়াও ছিল তার।

ফিরে ব্যবসায়িক কাজে যেতে হবে তাকে ঢাকায়।
যতটুকু পথ গিয়েছিল তাতে গন্তব্য ছিল অনেকটা সন্নিকটেই।

এমনি এক মুহুর্তে ঢাকা থেকে আসা সুনামগঞ্জগামী বাস মোটরবাইককে সজোরে ধাক্কা মারে।ফলাফল ধনু দারুনভাবে আহত হয়।
ঘটনার আকস্মিকতায় লোকজন হতবিহবল হয়ে পড়ে।

এমন পরিস্হিতিতে এগিয়ে এলেন কেউ কেউ।স্হানীয় এক হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় সিলেটের এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

সেখানে চিকিৎসা চললো।ডা: বন্ধু মধুসুধন ধর মধু সাথে থাকায় আমরা ভালো কিছুর আশায় অপেক্ষা করি।
ইমারজেন্সি থেকে বেরোনোর পর তাকে ও দেখি উদ্বিগ্ন।তবে কী আশা মরিচীকা!

এক সময়ে ওসমানী থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে।
মাউন্ট এডোরায় চিকিৎসা চলে আইসিইউতে।দিন যায় আমরা আশায় বুক বাঁধি।।কিন্ত হায় আশার সম্ভাবনা ধীরে ধীরে ফিকে হতে থাকে।

পৃথিবীর সব আলো নিভে গেলে পাণ্ডুলিপি করে আয়োজন

শেষমেশ ধনুকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকায়।সেখানেই শেষ হয় তার জীবনের বিষাদ সমাপ্তি।
মৃত্যুর সাথে লড়াই চলছিল দারুণ। সে লড়াইয়ে হার মানতে হয় তাকে শেষ পর্য়ন্ত।

ধনু চলে যায় না ফেরার দেশে।তখনো দোলাচলে মন কী হয়েছে আসলে।

মধুকে ফোন দেই।শুধু বলে গাড়িতে আছে।জগন্নাথপুর চলে আসছে।আর বিশেষ কিছু বলে না।
বাকিটা নিজ থেকে বুঝে নেওয়া।

ক্রমান্ব্যয়ে খবর দাবানলের মতো ছড়িয়ে যায় এলাকাজুড়ে।
শোক কান্না আর আহাজারি!

দুই হাজার ষোল থেকে দুই হাজার চব্বিশ।
দেখতে দেখতে পেরিয়ে গেছে প্রায় আট বছর।

ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে ধনঞ্জয় দাস ধনু স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট।অন্যান্য বারের ন্যায় এই টুর্নামেন্টকে ঘিরে উচ্ছ্বাস প্রশংসনীয়।সেখানে আছে বন্ধু সহপাঠী আর সুহৃদ। আর ধনু আছে না থেকেও।

ব্যাটে বলে চৌকস ক্রিকেটার ছিল সে।মনে আছে কলেজ মাঠে তার দারুণ বাউন্ডারিগুলো দেখে কৃষানদা উচ্ছ্বসিত হয়ে বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম হলেও এগুলো বাউন্ডারি হতো।

ধনু এভাবেই ফিরে আসে।অতীত থেকে বর্তমানে।স্মৃতিপটে জেগে রয়। হঠাৎ নিদারুণভাবে উঁকি দেয় সন্মুখে।

ধনু অমলিন।
ধনু বারেবারে ফিরে আসে।

#অশেষ কান্তি দে,প্রভাষক জগন্নাথপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজ।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com