শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

নায্য মজুরী থেকে বঞ্চিত শিশুরা-হাওর অঞ্চলে বাড়ছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ মে, ২০১৫
  • ২১১ Time View

অমিত দেব :: তিন ভাই তিন বোন ও মা বাবা মাকে নিয়ে দশ বছরের ছেলে তাহমিদের সংসার। বাবা আকস্মিক প্যরালাইসে রোগে আক্রান্ত হয়ে কর্মক্ষম হয়ে ঘরবন্দি। মা মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করেন। পরিবারের সকলের ভরন পোষনের কষ্ট দেখে বড় ছেলে হিসেবে বই খাতা রেখে বেরিয়ে পড়ে কাজের সন্ধানে। সে এখন জগন্নাথপুরের একটি চায়ের দোকানে মাসিক এক হাজার টাকা বেতনে কাজ করছে। মাকে সাহায্য করতে নিজের কাঁধে নিয়েছেন পরিবারের বোঝা। সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে দারিদ্রতা অপরিকল্পিত জনসংখ্যা ও সচেতনতার অভাবে বাড়ছে তাহমিদের মতো শিশু শ্রমিকের সংখ্যা।
হাওর অঞ্চলের বাসিন্দা ও শিশুদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, যে বয়সে একটা শিশু বই খাতা পেনন্সিল নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা দুরন্তপনা ও চঞ্চলতায় খেলার মাঠে মেতে উঠার কথা সেই বয়সে দারিদ্রতার কারণে এসব শিশুদের লেখাপড়া ছেড়ে পরিবারের হাল ধরে জীবিকার সন্ধানে ছুঠতে হচ্ছে। অনেক শিশু আবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝুঁকিপুর্ন কাজে যোগ দিচ্ছেন। অনেকইে আবার শিশু বয়সে মাদকাসক্ত হয়ে অকালে জীবন ধ্বংস করছে। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এসব শিশুদের একটি বড় অংশ বিভিন্ন গাড়ির কারখানা,ওয়েল্ডিং ওয়াকশপ,হোটেল রেস্তুুরা ও বাসা বাড়ি দোকানে কম মজুরীতে কাজ করছে। বঞ্চিত হচ্ছেন নায্য মজুরী থেকে।
জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ অনুযায়ী অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত বিনামুল্যে বাধ্যতামূলক শিক্ষার ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও প্রায় ১০ লাখ শিশু কোন দিন স্কুলে যায়নি। সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে এ সংখ্যা উদ্বেগজনক। যারা স্কুলে যায় তাদের উল্লেখযোগ্য অংশ প্রাথমিকের গন্ডি পেরোনোর আগেই ঝড়ে পড়ে শ্রমে নিয়োজিত হয়। ২০১৩ সালে এ জেলায় শুধু প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ঝড়ে পড়েছে ১০ হাজার শিক্ষার্থী।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী জেলার জগন্নাথপুর উপজেলায় গত বছর ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫১১জন। দিরাই উপজেলায় ৬৯৪জন,তাহিরপুর উপজেলায় ১৫১৫জন,ধরমপাশা উপজেলায় ৩০৮ জন,দোয়ারাবাজার উপজেলায় ১৫৪৭জন, সুনামগঞ্জ সদরে ৮৪৬জন,শাল্লা উপজেলায় ১০৫৫জন, ছাতকে ৭৫১জন,দক্ষিন সুনামগঞ্জে ৬৯৪জন বিশ্বম্ভরপুরে ১০২৪জন শিক্ষার্থী পড়ালেখা ছেড়ে দিয়েছে। এসব শিক্ষার্থীর অধিকাংশরাই জীবিকার সন্ধানে কাজ করছে।
জাতীয় শিশু শ্রম নিরসন আইনানুযায়ী ১৮ বছরের কম বয়সী কোন শিশুকে শ্রমে নিয়োগ না করতে নীতিমালায় উল্লেখ থাকলেও এ জেলায় এ আইনের কোন বাস্তবায়ন নেই। জনসচেতনার অভাবে এক শ্রেণীর মানুষ দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে শিশু দের কম মজুরীতে এমনকি পেঠে ভাতে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে ব্যবহার করছে।
জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদ তার পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বইতে শিশুদের ঝড়ে পড়ার কারণ হিসেবে দারিদ্রতাকে চিহিৃত করেছেন। তিনি জানান, দারিদ্রতার কারণে শিশুরা পড়ালেখা ছেড়ে বাধ্য হয়েই শ্রমে যোগদান করছেন। অনরূপভাবে জেলায় অধিকাংশ উপজেলায় শিশুদের প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ঝড়ে পড়ার কারণ দারিদ্রতা হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে।
কথা হয় দিরাই উপজেলার রাজনগর গ্রামের ১১ বছরের ছেলে আল আমীনের সঙ্গে। সে জানায়, তার পরিবারের ৬ ভাই বোনের মধ্যে সে সবার বড়। বাবা বিয়ে করে অন্যত্র চলে গেছেন। মা তাদেরকে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছেন। বাধ্য হয়েই তাকে বই খাতা রেখে ভাঙ্গারির দোকানে কাজ করতে হচ্ছে। দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজারে কথা হয় আট বছরের শিশু বখতিয়ারের সঙ্গে। সে বাজারে ফেরি করে বড়ই আচার বিক্রি করে। গাড়ি থামলেই দৌড় দেয় যদি বিক্রি করতে পারে। দিনরাত পরিশ্রম করে মহাজনকে দিয়ে নিজের পেঠের ভাত জোগাড় করা ছাড়া তেমন কিছু পায় না সে তবুও বাঁচার প্রয়োজনে চলছে তার সংগ্রাম।
ছাতক উপজেলার শক্তির গাঁও গ্রামের বাসিন্দা সুমন টেম্পুর হেলপার হিসেবে কাজ করছে। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাগলা-জগন্নাথপুর সড়কে চালিয়ে যাচ্ছে তাঁর জীবন সংগ্রাম। পড়ালেখার প্রতি তার মন কাঁদে কিন্তুু বাধ্য হয়েই পরিবারের হাল ধরতে হচ্ছে থাকে।
শিশুদের নিয়ে কাজ করা একটি বেসরকারী সংস্থার কর্মকর্তা জানান, গত কয়েক বছরে সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। যা বিভিন্ন জরিপের পাশাপাশি বিদ্যালয় গুলোর ঝড়েপড়ার সংখ্যা দেখলেই অনুমান করা যায়। তিনি এজন্য সচেতনতা ও দারিদ্রতার কবল থেকে শিশুদের মুক্ত করে বাধ্যতামুলক প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে সরকারী বেসরকারী উদ্যোগে প্রসারিত করার দাবী জানান।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা বলেন, সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে দারিদ্রতা জনসংখ্যার হারবৃদ্ধি ও সচেতনতার অভাবে ক্রমশ বাড়ছে শিশু শ্রমিকের হার। তবে বর্তমান সরকার শিশু শ্রম বন্ধে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আমরা উপজেলা পরিষদ থেকে ঝড়ে পড়া রোধে দরিদ্র জনগোষ্ঠী অঞ্চলের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার কার্যক্রম চালু করেছি। আশা করছি এধরনের কার্যক্রম বিদ্যালয়ের ঝড়ে পড়া ও শিশু শ্রম রোধে ভূমিকা রাখবে।
সুনামগঞ্জ শিশু কর্মকর্তা বাদল চন্দ্র বর্মন জানান, আমাদের কাছে জেলার শিশু শ্রমিকের কোন সংখ্যা না থাকলেও মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন কাজের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে প্রতি বছর বাড়ছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা। আগামী মাসে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা নিরূপনের কাজ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24