প্রেরণা ও সাহসের নাম বরুন রায়- খলিল রহমান

খলিল রহমান::
কমরেড বরুণ রায়। ভাটি-বাংলার প্রবাদ পুরুষ। একজন অসাম্প্রদায়িক ও আলোকিত মানুষ। প্রগতি আর সাহসিকতার দীপশিখা হাতে তিনি শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করেছেন জীবনভর। ত্যাগের রাজনীতির ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন কিংবদন্তির নায়ক। সাম্যবাদ, মনুষ্যত্ব, বাঙালি জাতিসত্ত্বা, মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক মুক্তিই ছিল তাঁর স্বপ্ন-সংগ্রামের আদর্শ। তাই বিপ্লবী বরুণ রায় আছেন জনতার-শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার অলিন্দে।
বরুণ রায় তাঁর জীবন-যৌবনের শ্রেষ্ঠ সময় উৎসর্গ করেছেন দেশ ও মানুষের কল্যাণে। তাঁর রাজনীতি, দর্শন সবই ছিল খেটেখাওয়া মানুষের জন্য। মানুষের মুক্তির জন্য। মানুষকে ভালোবেসে, মানুষের মুক্তির জন্য যুদ্ধে নেমে সারা জীবন যেন যুদ্ধেই কেটেছে তাঁর। মুক্তির যাত্রাপথে তিনি পেয়েছেন জেল, জলুম, হুলিয়া, আত্মগোপন আর নিন্তর এক অন্তরীন জীবন। যে জীবনের ১৪টি বছর কেটেছে নির্জন কারাবাসে।
১৯২২ সালের ১০ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন এই বিপ্লবী। তাঁর পিতামহ রায় বাহাদুর কৈলাশচন্দ্র রায় ছিলেন ভারতের বিহার রাজ্যের শিক্ষা বিভাগের আন্ডার সেক্রেটারি। সেখানেই জন্মগ্রহণ করেন বরুণ রায়। তাঁর শৈশব কেটেছে সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলি গ্রামে ও ভারতের শিলংয়ে। বরুণ রায়ের পিতা করুনাসিন্ধু রায় ছিলেন রাজনীতিবিদ, এমএলএ। ইচ্ছে করলে বরুণ রায় আরাম-আয়েশে জীবন কাটাতে পারতেন। কিন্তু আরাম-আয়েশ আর জমিদারি তাঁকে টানেনি। তিনি মিশে গেছেন সাধারণের মাঝে। জীবনভর তিনি তাঁদের কাতারে থেকে, তাঁদের মুক্তির জন্যই লড়াই করে গেছেন। সুনামগঞ্জের হাওরের জল-মাটি আর মানুষের কাছে তিনি যেন মানুষের চেয়েও ছিলেন বেশি কিছু। সিক্ত হয়েছেন তাঁদের সীমাহীন শ্রদ্ধা-ভালোবাসায়। তাঁর ‘ভাসান পানির’ আন্দোলন এখনো হাওরের জলে ঢেউ হয়ে জেলে-কৃষকের রক্তে শিহরণ জাগায়।
ব্রিটিশ, পাকিস্তান আর বাংলাদেশ-এই তিন পতাকাতলেই কেটেছে তাঁর রাজনৈতিক জীবন। পিতৃসূত্রে তিনি ছিলেন রাজনৈতিক জীবনের উত্তরাধিকার। সুতরাং জেল জুলুম সহ্য করার মানসিকতা নিয়েই তিনি বেড়ে ওঠেছিলেন। বরুণ রায়ের পিতা করুনাসিন্ধু রায় সামন্ত পরিবারে জন্ম নিলেও, বেছে নিয়েছিলেন কৃষক প্রজার পক্ষের রাজনীতি। তিনি আসাম পরিষদের এমএলএ ছিলেন।
ছাত্র ফেডারেশনের কর্মী হিসাবে বরুণ রায় কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসেন। ১৯৪২ সালের মাত্র ২০ বছর বয়সে পার্টির সদস্যপদ লাভ করেন। এ বছরই স্বাধীনতা দিবস পালন করার সময় তাঁকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়। আবার গ্রেপ্তার হন ১৯৪৯ সালে। এ সময় একটানা ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত তিনি জেলে ছিলেন। এরপর মুক্তি পেলেও রাখা হয় নজরবন্দী করে। এর কিছু দিন পরে আবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৫৮ সালে যখন আইয়ুব খান সামরিক ফরমান জারি করেন তখন তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। আরও পাচ বছর তিনি কারাবরণ করেন। ১৯৬৮-৬৯ সালে গণ-আন্দোলনের সময় তিনি প্রকাশ্যে চলাফেরা থেকে বিরত থাকেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং নেতৃত্ব দেন। ১৯৮০ সালে তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৮৬ সালে তিনি সুনামগঞ্জ-১ আসন থেকে কমিউনিস্ট পার্টির প্রাথী হিসাবে জয়লাভ করেন। এর আগে তিনি ১৯৫৪ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৮৭ সালে তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়।
৯০’র পর থেকে বরুণ রায় আর রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না। তবুও দেশ, দেশের মানুষ, দেশের রাজনীতি তাঁর চিন্তা-চেতনায় ছিল সক্রিয়। বলতেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ অর্জন। এই গর্ব ও অহংকারের ধন নিয়ে আমরা বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি। আমরা লড়াই করে মানচিত্র, পতাকা আর জাতীয় সংগীত অর্জন করেছি। বাংলাদেশ সা¤প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। মুক্তিযদ্ধের চেতনা থেকে আমাদের কেউ সরাতে পারবে না। সরানোর শক্তি নেই।
এই শক্তি-সাহস যুগ যুগ ধরে প্রেরণা জোগাবে নিপীড়িত মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে। বরুণ রায় এই মাটির সন্তান। এই মাটির প্রতি, মানুষের প্রতি তাঁর ভালোবাসা ছিল সীমাহীন। প্রিয়জনেরা বাসায় গেলে প্রায়ই তিনি তাঁর শেষ ইচ্ছের কথা বলতেন। এটি হলো, মৃত্যুর পর যেন তাঁর কপালে এ দেশের মাটির তীলক এঁকে দেওয়া হয়। মা-মাটির পরশ নিয়েই তিনি শেষ বিদায় নিতে চান। এ কথাটি তাঁর স্বজনেরা যেমন জানতেন, তেমনি জানতেন সুনামগঞ্জ শহরবাসী। শেষ ইচ্ছে অনুযায়ী তাঁর কপালে এঁকে দেওয়া হয়েছিল বাংলাদেশের মাটির তীলক।
বরুণ রায়ের রজনীতি-ধর্ম-কর্ম সবই ছিল মানুষের কল্যাণে। তাঁর ধ্যান-জ্ঞান ছিল ‘সবার উপরে মানুষ সত্য…।’ এই সত্যকেই লালন করেছেন আজীবন। তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন, তেমনি মানুষের শ্রদ্ধা-ভালোবাসার একজন বরুণ রায়। মনে পড়ে ২০০৯ সালে সালে ৮ ডিসেম্বরের কথা। শেষ বিদায়ের দিনে, শেষ বিকেলে বরুণ রায়ের বাসা, শহীদ মিনার সবখানেই ছিল মানুষের ঢল। শোকাহত জনতার মিছিল। বরুণ রায়কে শেষ দেখা, তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সেদিন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ছুটে আসেন অনেকেই। নারী-পুরুষ-শিশু সব বয়সী মানুষের ঢল নামে শহীদ মিনারে। এতো মানুষ, এতো ফুল, সবই ছিল তাঁদের প্রিয় মানুষ বরুণ রায়ের জন্য। এক সময় ফুলে ফুলে ঢাকা পড়ে যায় কফিন।
মাটি ও মানুষের এই আপন মানুষটির মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তিনি আজ নেই। রয়েছে তাঁর আদর্শ, মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসার মন্ত্র। যে মন্ত্র মানুষের মুক্তির একমাত্র পথ।
লেখক-সাংবাদিক ও আইনজীবী

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের কবিতা-মিছিল হবে মিছিল

» ‘ড. কামালের ওপর হামলা দুঃখজনক, ফৌজদারি অপরাধ’

» ভোটকক্ষে সাংবাদিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

» বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ

» বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরে দাড়াতে দুই দিনের আল্টিমেটাম আ.লীগের

» জগন্নাথপুরে বিএনপির সভায় পাশা- সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে নৌকার পোষ্টার ছেঁড়ে ফেলায় যুবদল নেতা গ্রেফতার

» উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দিন- এম এ মান্নান

» জগন্নাথপুরে ডা: মাসুম খানের মৃত্যুতে শোকসভা

» নৌকা সমর্থনে পাটলী ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মীসভা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

প্রেরণা ও সাহসের নাম বরুন রায়- খলিল রহমান

খলিল রহমান::
কমরেড বরুণ রায়। ভাটি-বাংলার প্রবাদ পুরুষ। একজন অসাম্প্রদায়িক ও আলোকিত মানুষ। প্রগতি আর সাহসিকতার দীপশিখা হাতে তিনি শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করেছেন জীবনভর। ত্যাগের রাজনীতির ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন কিংবদন্তির নায়ক। সাম্যবাদ, মনুষ্যত্ব, বাঙালি জাতিসত্ত্বা, মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক মুক্তিই ছিল তাঁর স্বপ্ন-সংগ্রামের আদর্শ। তাই বিপ্লবী বরুণ রায় আছেন জনতার-শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার অলিন্দে।
বরুণ রায় তাঁর জীবন-যৌবনের শ্রেষ্ঠ সময় উৎসর্গ করেছেন দেশ ও মানুষের কল্যাণে। তাঁর রাজনীতি, দর্শন সবই ছিল খেটেখাওয়া মানুষের জন্য। মানুষের মুক্তির জন্য। মানুষকে ভালোবেসে, মানুষের মুক্তির জন্য যুদ্ধে নেমে সারা জীবন যেন যুদ্ধেই কেটেছে তাঁর। মুক্তির যাত্রাপথে তিনি পেয়েছেন জেল, জলুম, হুলিয়া, আত্মগোপন আর নিন্তর এক অন্তরীন জীবন। যে জীবনের ১৪টি বছর কেটেছে নির্জন কারাবাসে।
১৯২২ সালের ১০ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন এই বিপ্লবী। তাঁর পিতামহ রায় বাহাদুর কৈলাশচন্দ্র রায় ছিলেন ভারতের বিহার রাজ্যের শিক্ষা বিভাগের আন্ডার সেক্রেটারি। সেখানেই জন্মগ্রহণ করেন বরুণ রায়। তাঁর শৈশব কেটেছে সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলি গ্রামে ও ভারতের শিলংয়ে। বরুণ রায়ের পিতা করুনাসিন্ধু রায় ছিলেন রাজনীতিবিদ, এমএলএ। ইচ্ছে করলে বরুণ রায় আরাম-আয়েশে জীবন কাটাতে পারতেন। কিন্তু আরাম-আয়েশ আর জমিদারি তাঁকে টানেনি। তিনি মিশে গেছেন সাধারণের মাঝে। জীবনভর তিনি তাঁদের কাতারে থেকে, তাঁদের মুক্তির জন্যই লড়াই করে গেছেন। সুনামগঞ্জের হাওরের জল-মাটি আর মানুষের কাছে তিনি যেন মানুষের চেয়েও ছিলেন বেশি কিছু। সিক্ত হয়েছেন তাঁদের সীমাহীন শ্রদ্ধা-ভালোবাসায়। তাঁর ‘ভাসান পানির’ আন্দোলন এখনো হাওরের জলে ঢেউ হয়ে জেলে-কৃষকের রক্তে শিহরণ জাগায়।
ব্রিটিশ, পাকিস্তান আর বাংলাদেশ-এই তিন পতাকাতলেই কেটেছে তাঁর রাজনৈতিক জীবন। পিতৃসূত্রে তিনি ছিলেন রাজনৈতিক জীবনের উত্তরাধিকার। সুতরাং জেল জুলুম সহ্য করার মানসিকতা নিয়েই তিনি বেড়ে ওঠেছিলেন। বরুণ রায়ের পিতা করুনাসিন্ধু রায় সামন্ত পরিবারে জন্ম নিলেও, বেছে নিয়েছিলেন কৃষক প্রজার পক্ষের রাজনীতি। তিনি আসাম পরিষদের এমএলএ ছিলেন।
ছাত্র ফেডারেশনের কর্মী হিসাবে বরুণ রায় কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসেন। ১৯৪২ সালের মাত্র ২০ বছর বয়সে পার্টির সদস্যপদ লাভ করেন। এ বছরই স্বাধীনতা দিবস পালন করার সময় তাঁকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়। আবার গ্রেপ্তার হন ১৯৪৯ সালে। এ সময় একটানা ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত তিনি জেলে ছিলেন। এরপর মুক্তি পেলেও রাখা হয় নজরবন্দী করে। এর কিছু দিন পরে আবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৫৮ সালে যখন আইয়ুব খান সামরিক ফরমান জারি করেন তখন তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। আরও পাচ বছর তিনি কারাবরণ করেন। ১৯৬৮-৬৯ সালে গণ-আন্দোলনের সময় তিনি প্রকাশ্যে চলাফেরা থেকে বিরত থাকেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং নেতৃত্ব দেন। ১৯৮০ সালে তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৮৬ সালে তিনি সুনামগঞ্জ-১ আসন থেকে কমিউনিস্ট পার্টির প্রাথী হিসাবে জয়লাভ করেন। এর আগে তিনি ১৯৫৪ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৮৭ সালে তাঁকে আবার গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়।
৯০’র পর থেকে বরুণ রায় আর রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না। তবুও দেশ, দেশের মানুষ, দেশের রাজনীতি তাঁর চিন্তা-চেতনায় ছিল সক্রিয়। বলতেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ অর্জন। এই গর্ব ও অহংকারের ধন নিয়ে আমরা বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি। আমরা লড়াই করে মানচিত্র, পতাকা আর জাতীয় সংগীত অর্জন করেছি। বাংলাদেশ সা¤প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। মুক্তিযদ্ধের চেতনা থেকে আমাদের কেউ সরাতে পারবে না। সরানোর শক্তি নেই।
এই শক্তি-সাহস যুগ যুগ ধরে প্রেরণা জোগাবে নিপীড়িত মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে। বরুণ রায় এই মাটির সন্তান। এই মাটির প্রতি, মানুষের প্রতি তাঁর ভালোবাসা ছিল সীমাহীন। প্রিয়জনেরা বাসায় গেলে প্রায়ই তিনি তাঁর শেষ ইচ্ছের কথা বলতেন। এটি হলো, মৃত্যুর পর যেন তাঁর কপালে এ দেশের মাটির তীলক এঁকে দেওয়া হয়। মা-মাটির পরশ নিয়েই তিনি শেষ বিদায় নিতে চান। এ কথাটি তাঁর স্বজনেরা যেমন জানতেন, তেমনি জানতেন সুনামগঞ্জ শহরবাসী। শেষ ইচ্ছে অনুযায়ী তাঁর কপালে এঁকে দেওয়া হয়েছিল বাংলাদেশের মাটির তীলক।
বরুণ রায়ের রজনীতি-ধর্ম-কর্ম সবই ছিল মানুষের কল্যাণে। তাঁর ধ্যান-জ্ঞান ছিল ‘সবার উপরে মানুষ সত্য…।’ এই সত্যকেই লালন করেছেন আজীবন। তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন, তেমনি মানুষের শ্রদ্ধা-ভালোবাসার একজন বরুণ রায়। মনে পড়ে ২০০৯ সালে সালে ৮ ডিসেম্বরের কথা। শেষ বিদায়ের দিনে, শেষ বিকেলে বরুণ রায়ের বাসা, শহীদ মিনার সবখানেই ছিল মানুষের ঢল। শোকাহত জনতার মিছিল। বরুণ রায়কে শেষ দেখা, তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সেদিন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ছুটে আসেন অনেকেই। নারী-পুরুষ-শিশু সব বয়সী মানুষের ঢল নামে শহীদ মিনারে। এতো মানুষ, এতো ফুল, সবই ছিল তাঁদের প্রিয় মানুষ বরুণ রায়ের জন্য। এক সময় ফুলে ফুলে ঢাকা পড়ে যায় কফিন।
মাটি ও মানুষের এই আপন মানুষটির মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তিনি আজ নেই। রয়েছে তাঁর আদর্শ, মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসার মন্ত্র। যে মন্ত্র মানুষের মুক্তির একমাত্র পথ।
লেখক-সাংবাদিক ও আইনজীবী

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।