রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সামাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল

বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম স্বীকার করলেন পাউবো কর্মকর্তারা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৪ মে, ২০১৭
  • ৪৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: সুনামগঞ্জে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়ম হয়েছে। এই অনিয়মের কথা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) মহাপরিচালক জাহাঙ্গীর কবিরসহ সাত কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে স্বীকার করেছেন বলে জানান দুদকের মহাপরিচালক (ডিজি) মুনীর চৌধুরী।

জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে এমন অন্য চয় কর্মকর্তা হলেন পাউবোর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি) আবদুল হাই বাকী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব খলিলুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী আবদুল হাই, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম ও সুনামগঞ্জে পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ১২টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত সেগুনবাগিচার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে পরিচালক বেলাল হোসেনের নেতৃত্বে দুদকের অনুসন্ধান দল তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এই সাত কর্মকর্তা গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

তবে সুনামগঞ্জে বাঁধ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণে অনিয়মের কথা পাউবোর কর্মকর্তারা স্বীকার করেছেন জানিয়ে দুদকের ডিজি মুনীর চৌধুরী বলেন, ‘হাওরে বাঁধ নির্মাণে অনিয়মের বিষয়টি অনুসন্ধান পর্যায়ে রয়েছে। তবে বাস্তবতা উদ্‌ঘাটন করতে সক্ষম হয়েছি যে, বাঁধ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রচণ্ড গাফিলতি ছিল। তারা এই প্রকল্প যথাযথভাবে বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয়েছে। ডিজি থেকে শুরু করে প্রায় সবাই স্বীকার করেছেন, পানিতে বাঁধ ডুবে গিয়েছে এবং ডুবে যাওয়ার কারণে বাঁধগুলো তাঁরা তখনই মেজারেমন্ট করতে পারেননি ফিজিক্যালি। এভাবেই চলে আসছে।’

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ২১ এপ্রিল ‘সুনামগঞ্জে ফসল রক্ষা বাঁধে ভাঙন’ শীর্ষক একটি সংবাদ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়। এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন চেয়ে দুদক থেকে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে চিঠি পাঠানো হয়। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হলেও সেটি করা হয়নি। প্রায় এক বছর পর চলতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসে একটি প্রতিবেদন পাঠানো হয় দুদকে।

দুদকের দাবি, ওই প্রতিবেদন কোনো মতামত, বিশ্লেষণ কিংবা সুপারিশ ছিল না। এ ছাড়া প্রতিবেদনটিতে বাঁধ ভাঙার কারণ হিসেবে প্রাকৃতিক কারণকে প্রাধান্য দেওয়া হয়। এই প্রতিবেদন অসন্তুষ্ট, বিলম্বে পাঠানো ও বিষয়বস্তু নিয়ে আলোচনার জন্য এই সাত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

বাঁধ নির্মাণকারী ঠিকাদারদের বিরুদ্ধেও পাউবো ব্যবস্থা নেয়নি উল্লেখ করে মুনীর চৌধুরী বলেন, অনিয়মের অভিযোগে দুজন ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারা (পাউবো) জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছিল, এরপর সে দুজন ঠিকাদার ২০১৬ সালে কাজ করতে পারেনি। কিন্তু তারা এবারও কাজ পেয়েছে। এ ছাড়া পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা ছিল একজন নির্বাহী প্রকৌশলীকে ওএসডি করে তাঁর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার। কিন্তু পাউবো সেটিও করেনি।

দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেলে আইন প্রয়োগ করা হবে জানিয়ে মুনীর চৌধুরী বলেন, ‘দুর্নীতির প্রমাণ পেলে দুদক তার যে নিজস্ব আইন আছে সেটি প্রয়োগ করবে। দুর্নীতির প্রমাণ এখনই বলা যাবে না। বিষয়টি অনুসন্ধানের পর তদন্ত হবে। কিন্তু আমাদের জিজ্ঞাসাবাদে যেটি উঠে এসেছে, তারা (পাউবি) কাজ আদায় করতে পারেনি। কাজ সম্পাদনে ব্যর্থ হয়েছে এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে যে অনিয়ম সেটি তাঁরা স্বীকার করেছেন।’ সুত্র-প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24