বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা সৎ সাহস থাকলে প্রমাণ নিয়ে বসুন, প্রয়োজনে লাইভ হবে: ইলিয়াস কাঞ্চন

বাংলাদেশে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণে সহায়তা দিবে চীন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২১ মার্চ, ২০১৬
  • ৫২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: বাংলাদেশের সোনাদিয়া বা পায়রা যেখানেই গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করা হোক তাতে চীন সহায়তা দেবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত মা মিংকিয়াং। সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে কূটনৈতিক সাংবাদিকদের সংগঠন ডিক্যাব-এর ‘ডিক্যাব টক’ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা নিশ্চিতভাবেই গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণে সহযোগিতা করব, এই সহযোগিতা সবার জন্য উন্মুক্ত, এক্ষেত্রে যেকোনো দেশের সঙ্গে আমরা কাজ করতে রাজি আছি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ডিক্যাবের সভাপতি আঙ্গুর নাহার মন্টি ও সাধারণ সম্পাদক পান্থ রহমান।

সরকার পটুয়াখালীর পায়রায় দেশের প্রথম গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের কথা বিবেচনা করছে। ইতিমধ্যে প্রতিবেশী ভারত, চীন ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ এই বন্দর নির্মাণের কাজে সম্পৃক্ত হওয়ার আগ্রহ জানিয়েছে। ডিক্যাব-টকে চীনের রাষ্ট্রদূত মা মিং কিয়ান বাংলাদেশে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের বিষয়ে তার দেশের অবস্থান তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগরে এখন পর্যন্ত কোনো গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মিত হয়নি। চীন এ বন্দর নির্মাণে যেমন সর্বাত্মকভাবে কাজ করতে চায়, আবার অন্য বিদেশী সহযোগীর সঙ্গে সঙ্গে কাজ করতেও কোনো আপত্তি নেই।

মা মিং কিয়ান বলেন, ভূ-প্রাকৃতিক দিক দিয়ে বাংলাদেশ একটি সুবিধাজনক অঞ্চলে অবস্থান করছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, গত দুই-তিন বছরে চীনা বিনিয়োগ কম থাকলেও চলতি বছর প্রচুর বিনিয়োগকারী এ দেশে আসবে। এই বছরটি কিছুটা অন্যরকম হবে। বিনিয়োগের জন্য এই বছরটি আলাদা হবে।

তিনি জানান, বাংলাদেশের জ্বালানিখাত, সরকারি প্রকল্পের অবকাঠামো নির্মাণ ও তৈরি পোশাকখাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন। এছাড়া দেশটি আগামীতেও বাংলাদেশে সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে প্রচণ্ড বাণিজ্য ভারসাম্যহীনতা রয়েছে জানিয়ে চীনে বাংলাদেশের পণ্য রফতানি বাড়ানোর আহ্বাবান জানান রাষ্ট্রদূত।

তিনি বলেন, আগামী ৫ বছরে চীন বিদেশে থেকে ১০ ট্রিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করবে। এ পণ্য তৈরি করে চীনে রফতানি করলে বাংলাদেশ লাভবান হবে এবং বাণিজ্য ভারসাম্যহীনতা কমে আসবে।

এদিকে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের অস্তিত্ব আছে বলে পশ্চিমা দেশগুলো যে দাবি করছে তার ব্যাপারে তদন্ত ছাড়াই কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছতে অস্বীকার করেন চীনের রাষ্ট্রদূত মা মিং কিয়ান।

তিনি বলেন, যদি তদন্তে প্রমাণিত হয় বাংলাদেশে জঙ্গি সংগঠন আইএসের অস্তিত্ব আছে-তাহলে আছে, আর যদি তদন্তে দেখা যায় তাদের অস্তিত নেই- তাহলে নাই বলে মনে করবে চীন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24