রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

‘বাচঁতে চাইলে পালাও, নইলে সবাইকে মেরে ফেলব’

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৪৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে প্রত্যন্ত দুটি গ্রামে রয়েছে হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা। তাদের ভাষ্য, গ্রাম ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য সবাইকে বারবার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তারা খাবার পাচ্ছে না। প্রতিনিয়ত চলছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অত্যাচার।

রয়টার্সের বিশেষ এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে আহ নাউক পিন নামের ওই গ্রামের রোহিঙ্গাদের কথা। গ্রামের বাসিন্দা মং মং রয়টার্সকে টেলিফোনে বলেন, ‘আমরা আতঙ্কিত। শিগগিরই আমরা খাদ্যাভাবে মারা যাব। তারা আমাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে।’

ওই গ্রামের আরও এক রোহিঙ্গার সঙ্গে যোগাযোগ হয় রয়টার্সের। নাম প্রকাশে রাজি হননি তিনি। বলেন, ‘আমাদের গ্রামে রোহিঙ্গাবিরোধী স্থানীয় লোকজন বারবার আসছে। চিৎকার করে বলছে, পালাও, নইলে তোমাদের সবাইকে মেরে ফেলব।’

গত ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে কয়েকটি তল্লাশিচৌকিতে সন্ত্রাসী হামলার জের ধরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নতুন অভিযান শুরু করে। নিরস্ত্র রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ-শিশুদের ওপর তাদের নির্যাতন ও ধ্বংসযজ্ঞ চলতে থাকে। এরপর থেকে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ৪ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গা প্রাণ বাঁচাতে সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে।

রাখাইন রাজ্যে সাম্প্রতিক সহিংসতা পর্যন্ত প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার বসবাস ছিল। তাদের বেশির ভাগের ওপরই বিভিন্ন বিষয়ে কড়া নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। মিয়ানমারে তাদের নাগরিকত্ব নেই। স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের দাবি, তারা অবৈধ অভিবাসী।

রাখাইন রাজ্য সরকারের সচিব টিম মং সোয়ে রয়টার্সকে বলেন, তিনি রাথিডং কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কাছে থেকে কাজ করেছেন। তবে রোহিঙ্গা গ্রামবাসীকে হুমকি-ধমকি দেওয়ার ব্যাপারে তাঁর কাছে কোনো তথ্য নেই। উদ্বেগের কিছু নেই। রাথিডংয়ের দক্ষিণাঞ্চল পুরোপুরি নিরাপদ।

পুলিশের মুখপাত্র মিয়ো থু সোয়ে বলেন, তাঁর কাছেও রোহিঙ্গা গ্রামের সহিংস পরিস্থিতি নিয়ে কোনো তথ্য নেই। তবে তিনি বিষয়টি তদন্ত করবেন।

জানতে চাইলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পূর্ব এশিয়া বিভাগের মুখপাত্র ক্যাটিনা অ্যাডামস ওই গ্রামগুলোর পরিস্থিতি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তিনি বলেন, অবিলম্বে সহিংসতা বন্ধ এবং আইন অনুসারে কাজ করার জন্য মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

ক্যাটিনা অ্যাডামস আরও বলেন, রাখাইন রাজ্যের উত্তরাঞ্চলে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা খাদ্য, পানি ও আশ্রয়ের অভাবে রয়েছে। অবিলম্বে সরকারের উচিত তাদের সাহায্য করা।

অ্যাডামস বলেন, এ সপ্তাহে মিয়ানমারের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পূর্ব এশিয়া বিভাগের উপসহকারী সচিব প্যাট্রিক মারফি সাক্ষাৎ করেন। সে সময় তিনি রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গভীর উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের পাশাপাশি আজ সোমবার যুক্তরাজ্য রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য মন্ত্রীপর্যায়ের বৈঠক আহ্বান করেছে।

নৌকা নেই
রাখাইন রাজ্যের আহ নাউক পিন গ্রামটি রাথিডংয়ের ম্যানগ্রোভ এলাকা। এর চারদিকে পানি। গ্রামবাসী বলছে, তাদের কাছে কোনো নৌকা নেই।

তিন সপ্তাহ আগে রাথিডংয়ে মুসলিম-অধ্যুষিত ২১টি গ্রাম ছিল। সেখানে মিয়ানমারের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের তিনটি আশ্রয়শিবিরও ছিল। এর আগে চলা ধর্মীয় সহিংসতায় গৃহহারা মুসলিমরা ওই শিবিরগুলোয় ছিল। এসব গ্রামের মধ্যে ১৬টি এবং তিনটি শরণার্থীশিবিরই এখন জনশূন্য। এর মধ্যে অনেক ঘরবাড়ি পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। সহিংসতার কারণে গ্রাম ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছে ২৮ হাজার রোহিঙ্গা।

মানবাধিকারবিষয়ক পর্যবেক্ষকেরা বলছেন, রাথিডংয়ের টিকে থাকা পাঁচটি রোহিঙ্গা গ্রাম এবং সেখানকার আট হাজার বাসিন্দা খুবই বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে রয়েছে।

আহ নাউক পিং এবং পার্শ্ববর্তী নং পিন গি গ্রামের পরিস্থিতি ভয়াবহ। সেখান থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার পথ দীর্ঘ, কষ্টকর। রাখাইনের সশস্ত্র রোহিঙ্গাবিরোধী প্রতিবেশীরা প্রায়ই তাদের বাধা দেয়।

রাখাইনের রোহিঙ্গাদের হুমকির মধ্যে থাকার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে রাথিডংয়ের কর্মকর্তা থিয়েন অং বলেন, তাদের জন্য কোথাও চলে যাওয়াই ভালো।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমার পুলিশের তল্লাশিচৌকিতে হামলাকারী আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) দুজন রাথিডংয়ের ছিল। এখন পুরো রাথিডং ধর্মীয় উত্তেজনার মধ্যে রয়েছে।
পুলিশকে ফোন করেছি ৩০ বার
রোহিঙ্গা মং মং বলেন, গ্রামবাসীর বিপদের কথা জানিয়ে তিনি কমপক্ষে ৩০ বার পুলিশকে অভিযোগ নিতে বলেছেন। ১৩ সেপ্টেম্বর তিনি রাখাইনের পরিচিত এক গ্রামবাসীর কাছ থেকে ফোন পান। তিনি মং মংকে হুমকি দিয়ে বলেন, ‘কাল পালাও। না হলে আমরা এসে তোমার ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেব।’ মং মং রয়টার্সকে ওই কথোপকথনের রেকর্ডও দেন।

মং মং এর প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, পালানোর কোনো উপায় নেই। তখন ওই প্রতিবেশী বলেন, ‘এটা আমাদের ভাবার বিষয় না।’

গত ৩১ আগস্টের একটি ঘটনারও বর্ণনা দেন মং মং। তিনি বলেন, রাখাইনের ১৪ পুলিশ কর্মকর্তা আহ নাউক পিং গ্রাম থেকে সাতজন রোহিঙ্গা নিয়ে রাস্তার ধারে একটি সভা করেন। কিন্তু ওই সভায় রোহিঙ্গাদের কোনো অভিযোগ শোনা হয়নি। বরং মং মং ও আরও দুই রোহিঙ্গা, যাঁরা ওই সভায় অংশ নিয়েছিলেন, তাঁদের হুমকি দেওয়া হয়।

আহ নাউক পিন গ্রামের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোহিঙ্গা বাসিন্দা বলেন, সভায় তাঁদের সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এই এলাকায় কোনো মুসলিম থাকতে পারবে না। মুসলিমদের অবিলম্বে এলাকা ছাড়তে হবে। রোহিঙ্গারা তাতে রাজি। কিন্তু রোহিঙ্গাদের পালানোর জন্য কর্তৃপক্ষকে নিরাপত্তা দিতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই রোহিঙ্গা রয়টার্সকে একটি চিঠি দেখান। সেখানে ৭ সেপ্টেম্বর রাথিডং কর্তৃপক্ষকে দেওয়া এক চিঠিতে গ্রামের বয়োজ্যেষ্ঠরা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের যেন আলাদা জায়গা খুঁজে নিতে বলা হয়।

রোহিঙ্গা-অধ্যুষিত ওই দুই গ্রামের বাসিন্দারা বলছে, তারা রাখাইনের বিক্রেতাদের কাছ থেকে খাবার কিনতে পারছে না। তাদের খাবার ও ওষুধ শেষ হয়ে আসছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24