শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-কাঠালখাইড়-গোয়ালাবাজার সড়কের বেহালদশা, জনদুর্ভোগ চরমে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ মে, ২০১৫
  • ৮৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলার ভবেরবাজারে-সৈয়দপুর-গোয়ালাবাজার ও নয়াবন্দর-কাঠালখাইড় সড়কের বেহাল দশা বিরাজ করছে।পুরো সড়ক জুড়ে গর্ত আর খানাখন্দ তৈরী হওয়ায় জনদুর্ভোগ উঠেছে চরমে। দীর্ঘ দুই বছর ধরে সড়কটি সংস্কারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিবীদরা আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত সড়কের কাজ শুরু না হওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) সড়কের কাজের টেন্ডার হয়েছে বলে দাবী করলেও স্থানীয় লোকজন এসব বিশ্বাস করছেন না।
এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার অন্যতম প্রবাসী অধ্যুষিত ইউনিয়ন হিসেবে সৈয়দপুর শাহারপাড়া ও আশারকান্দি ইউনিয়নবাসী উক্ত সড়ক দিয়ে প্রতিদিন উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন। এছাড়াও জগন্নাথপুর উপজেলার লোকজন উক্ত সড়ক দিয়ে গোয়ালাবাজার হয়ে স্বল্প সময় দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন। গত দুই বছর ধরে সড়কের বেহালদশা বিরাজ করছে। আর স্থানীয় জনপ্রতিনিধি,রাজনীতিবীদ ও এলজিইডি কর্তৃপক্ষ এলাকাবাসীকে আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন। উক্ত সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী যাত্রী জাকির হোসেন বলেন, সড়কের বেহালদশার চিত্র নিজের চোখে না দেখলে কেউ বিশ্বাস করতে পারবেন না। সমস্ত সড়ক জুড়ে গর্ত ও খান্দাখন্দ। সামন্যবৃষ্টি হলেই সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
নয়াবন্দর বাজার এলাকার বাসিন্দা শেখ মামুনুর রশীদ জানান, দুই বছর ধরে এলাকাবাসী অর্বননীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এসব দেখার যেন কেউ নেই।
আটঘর গ্রামের বাসিন্দা সমাজকর্মী জুবেদ খান বলেন, প্রতিদিন চলাচলকারী যাত্রীরা আমাদের প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের যে ভাষায় গালিগালাজ করেন আমাদেরকে নিরবে তা সহ্য করতে হয়। টেন্ডার হয়েছে বললেও কেউ বিশ্বাস করে না।
সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মুহিবুল ইসলাম বলেন, মানুষের ধৈর্য্যরে বাধ ভেঙ্গে যাচ্ছে। অচিরে কাজ না ধরলে লোকজন রাস্তায় নেমে আসবে।
যুবলীগ নেতা জাকির হোসেন বলেন, ভবেরবাজার-সৈয়দপুর-গোয়ালাবাজার সড়ক নিয়ে একজন রাজনৈতিককর্মী হিসেবে আমরা লজ্জিত। জাকির জানান,সড়কটির কাজ অনেক আগেই শুরু হওয়ার কথা ছিল এলজিইডি কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত ব্যায় দেখিয়ে যে প্রকল্প পাঠিয়েছিলেন তা দাতাসংস্থার লোকজন ফেরৎ পাঠানোর কারণে এক বছর পেছাতে হয়েছে। এখন টেন্ডার হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে কাজ শুরু হবে। আমরা জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দর মাধ্যমে কাজ দ্রুত শুরু করতে যোগাযোগ করছি।
সরেজমিনে দেখা যায়, ভবেরবাজার থেকে সৈয়দপুর বাজার পর্যন্ত গর্তের সংখ্যা কিছুটা কম হলেও সৈয়দপুর বাজার থেকে নয়াবন্দর বাজার হয়ে কাঠালখাইড় গোয়ালাবাজার পর্যন্ত সমস্ত রাস্তা জুড়ে শুধু গর্ত আর গর্ত। সড়কের পিচ উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্ঠি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তায় পানি জমে যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েন। ভবেরবাজার-সৈয়দপুর-গোয়ালাবাজার ২১ কিলোমিটার সড়কটি ও সংস্কার হচ্ছে না দীর্ঘ দিন থেকে। সড়কটির নয়াবন্দর, কাঁঠাল খাইড়, খাদিমপুর, উমারপুর, খুজগীপুর,ইসবপুর সহ বিভিন্ন এলাকায় পীচ উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কে চলাচলকারী যাত্রী, রোগী ও ছাত্র-ছাত্রীরা পোহাচ্ছেন চরম দুর্ভোগ।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি সূত্র জানায়, ভবেরবাজার-সৈয়দপুর-নয়াবন্দর গোয়ালাবাজার সড়কের ২১ কিলোমিটারের মধ্যে ১২ কিলোমিটার সড়ক জগন্নাথপুর উপজেলা অংশে এবং ৯ কিলোমিটার বালাগঞ্জ উপজেলা অংশে পড়েছে। বালাগঞ্জ অংশে সংস্কারের জন্য টেন্ডার হয়ে কাজ চলছে। অপরদিকে,জগন্নাথপুর উপজেলার অংশে টেন্ডার হলেও কাজ শুরু হয়নি। বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে ৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ১২ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার হবে। ইতিমধ্যে টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়েছে। সুনামগঞ্জের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান উক্ত সড়কের কাজ পেয়েছে। তবে কার্যাদেশ না পাওয়ায় তারা এখনও কাজ ধরেনি। বৃষ্টির মৌসুম চলে আসায় কাজ শেষ করা নিয়ে রয়েছে সংশয়। এছাড়াও অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কমদরে (সাড়ে নয় পারসেন লেসে) কাজ নেয়ায় কাজ কতটুকু বাস্তবায়িত হবে এনিয়ে চলছে নানা আলোচনা। সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী যাত্রী সোনাতনপুর গ্রামের বাসিন্দা এডঃ জুয়েল মিয়া বলেন,দ্রুত কাজ শুরু না করলে এবছর কাজ করা সম্ভব হনে না। বষামৌসুমে কাজ করা যাবে না। তাই এখনি দ্রুত কাজ শুরু করতে হবে।
আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব খান বলেন, জগন্নাথপুর ও বালাগঞ্জ উপজেলার শেষ প্রান্তে সংযোগ সড়ক হিসেবে অবস্থিত ভবেরবাজার নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজার সড়কটি। দুই উপজেলার মানুষের চলাচলের প্রধান সড়ক এটি। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে বিপুল সংখ্যক ছোট বড় যানবাহন চলাচল করে। জগন্নাথপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বিপুল জনগোষ্ঠীকে এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু সড়কটি দীর্ঘ দিন থেকে সংস্কার না হওয়ায় যানবাহন চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। প্রতিদিন ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা অর্বননীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে সড়কের বেহাল দশার কথা স্বীকার করে বলেন, সড়কটির কাজ দ্রুত শুরু করতে আমরা কার্যাদেশ পাওয়ার জন্য ঢাকায় কাগজ পাঠিয়েছি। কার্যাদেশ আসলেই ঠিকাদারকে কাজ শুরু করতে বলা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24