মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

মধ্যরাতে শ্বশুর বাড়ি থেকে এসপি বাবুল আক্তারকে নিয়ে গেছে ডিবি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৫ জুন, ২০১৬
  • ১৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক: মধ্যরাতে শ্বশুর বাড়ি থেকে এসপি বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তোলে নিয়ে যাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে কিছু জানানো না হলেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, “কয়েকজন আসামির সামনে মুখোমুখি করে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।”

আরও পড়ুন- মধ্যরাতে এসপি বাবুল আক্তারকে নিয়ে গেছে ডিবি

অনলাইন সংবাদমাধ্যম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এই খবর প্রকাশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাতে জানিয়েছে, এসপি বাবুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে কি না, বা তাকে কেন জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এ প্রশ্নে মন্ত্রীর উত্তর, “এখনও বলার সময় হয়নি। শিগগিরই জানতে পারবেন।”

চট্টগ্রামের বহুল আলোচিত মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যাকাণ্ডে তার স্বামীকে এসপি বাবুল আক্তারকে শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাওয়ার পর তাকে এখনো নিজেদের হেফাজতেই রেখেছেন গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

এদিকে বাবুল আক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পেরে তার স্বজনদের মধ্যে তৈরি হয়েছে সন্দেহ আর উদ্বেগ। বাবুলের মোবাইলে যোগাযোগ করতে না পেরে বিষয়টি তারা সংবাদ মাধ্যমে জানান।

তার বাবা ও শ্বশুর বলছেন, বাবুলের স্ত্রী খুন হওয়ার পর থেকে পুলিশ নিরাপত্তা দিয়ে এসেছে; কিন্তু এখন তারাও সহযোগিতা ‘করছে না’।

এদিকে মিতু হত্যায় সরাসরি জড়িত সন্দেহে আবু মুছা (৪৫) ও এহতেশামুল হক ভোলা (৩৮) নামে দুই ব্যক্তিকে ইতোমধ্যেই আটক করেছে পুলিশের একটি ইউনিট। এরা দু’জনই এসপি বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। ধারণা করা হচ্ছে, তৃতীয় কোনো পক্ষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ভাড়াটে খুনি হিসেবে তারা মিতুকে হত্যা করেছে অথবা সাহায্য করেছে। তাছাড়া মিতু হত্যায় যে অস্ত্রটি ব্যবহার হয়েছে, সেটি নাকি বাবুল আক্তরের সোর্স বিভিন্ন সময় ভাড়া দিতো।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জুন নগরীর জিইসি’র মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাত ও গুলিতে খুন হন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনার পরদিন পাঁচলাইশ থানায় বাবুল আক্তার বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে গোয়েন্দা পুলিশ, র‌্যাব, সিআইডি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিআই)। তবে মামলার মূল তদন্তে আছে চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। তবে সবগুলো সংস্থা মিলে এখন পর্যন্ত এ ঘটনার কোন রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি তারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24