1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
মরমী সাধক কবি রাধারমণ দত্তের কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ৩০ একর ভূসম্পত্তি প্রভাবশালীদের দখলে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

মরমী সাধক কবি রাধারমণ দত্তের কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ৩০ একর ভূসম্পত্তি প্রভাবশালীদের দখলে

  • Update Time : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০১৫
  • ৯৮০ Time View

অমিত দেব:: লোকসংষ্কৃতির মহারাজা মরমী সাধক কবি রাধারমণ দত্তের বিপুল পরিমান ভূসম্পত্তি প্রভাবশালীদের দখলে। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কেশবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণকারী মরমী এই সাধক কবির মৃত্যু শতবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্মরণ অনুষ্ঠান করার উদ্যোগ নেয়া হলেও উদ্ধার হয়নি তার দখল হয়ে যাওয়া কোটি টাকা মূল্যের ভূসম্পত্তি। অবহেলায় পড়ে আছে মরমি কবির শেষ স্মৃতিচিহৃ সমাধি মন্দির।

রাধারমণ দত্ত পুরকায়স্থ পৈত্রিকভাবে প্রচুর ভূসম্পত্তির অধিকারী ছিলেন। ১৯৫২ সালে ভূমি জরিপে তাঁর ছেলে বিপিন বিহারী দত্তের নামে প্রায় ৩০ একর ভূমি রের্কড ভূক্ত হয়।১৯১৫ সালে রাধারমণ দত্তের মৃত্যুর পর তার একমাত্র ছেলে বিপিন বিহারী দত্ত মৌলবীবাজারের ভূজবল মাতুয়ালয়ে চলে গেলে সমস্ত সম্পত্তি বেহাত হয়ে যায়। বিভিন্ন সময়ে রাধারমণ দত্তের উত্তরসূরী ও রাধারমণ অনুরাগীরা এসব সম্পত্তি উদ্ধার করে রাধারমণ স্মৃতি বাঁচিয়ে রাখার আবেদন করলেও সুযোগসন্ধানী ভূমি কর্মকর্তা ও প্রভাবশালী দখলবাজদের কারণে তা সম্ভব হয়নি। প্রভাবশালী দখলবাজরা রাধারমণ দত্তের সমাধীমন্দিরে জায়গা ছাড়া আর কিছু অবশিষ্ট রাখেনি। অভিযোগ উঠেছে, দুর্নীতিবাজ ভূমি কর্মকর্তাদের সহায়তায় রাধারমণ দত্তের বিশাল ভূসম্পত্তি প্রভাবশালী দখলবাজরা গ্রাস করে নিয়েছেন। অনুসন্ধানে দেখা গেছে রাধারমণ দত্তের পৈত্রিক জায়গায় বর্তমানে প্রতিষ্টিত রয়েছে কেশবপুর বাজার ও জগন্নাথপুর কলেজ। প্রভাবশালী দখলবাজচক্র কেশবপুর ভূমিহীন সমবায় সমিতির নামে একসনা বন্দোবস্ত নিয়ে রাধারমণ দত্তের সম্পত্তি ক্রয় বিক্রয় করে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা।

জগন্নাথপুর উপজেলা ভূমি কার্যালয় দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, রাধারমণ দত্তের ছেলে বিপিন বিহারী দত্ত ও তাঁর পূর্বপুরুষদের নামে ভরতপুর মৌজার জেএল নং-৪৬ খতিয়ান নং-৫১ দাগ নং ১১২ ও ১১৩ বর্তমানে কেশবপুর বাজার পরিমাণ ৩.৩২ একর এর মধ্যে ১১২নং দাগ বন্দোবস্ত মোকদ্দমা নং ১০৮/৭৮-৭৯মূলে বন্দোবস্ত দেয়া হয় কেশবপুর ভূমিহীন সমবায় সমিতিকে। একই ভাবে ১১৫ নং দাগ পরিমাণ ৩.১৪ একর ভিপি বন্দোবস্ত মোকদ্দমা নং ১০৮/৭৮-৭৯ মূলে বন্দোবস্ত প্রদান করা হয় কেশবপুর ভূমিহীন সমবায় সমিতিকে। ১০৯ নং দাগ পরিমাণ ৪.১৮ একর ভূমি ভিপি বন্দোবস্ত মোকদ্দমা নং ৯৩/৭৮-৭৯ এর মূল্যে বন্দোবস্ত প্রদান করা হয় একই সমিতিকে। সমিতির লোকজন কেশবপুর গ্রামের বাসিন্দা। তারা নিজেরা সমিতির নামে বন্দোবস্ত এনে রাধারমণ দত্তের সম্পত্তি দখল করেন।

অপরদিকে জগন্নাথপুর কলেজের নামে ১২ একর ভূসম্পত্তি বন্দোবস্ত নেয়া হয়। তন্মেধ্যে ১১১ নং দাগে পরিমান ৬.০৯ একর ভূমি। ভিপি বন্দোবস্ত মোকদ্দমা ০৩/৯৪-৯৫ মূলে জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজ এ বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। খতিয়ান নং ৫৬ দাগ নং ৪৪,৪৫,৪৪নং দাগে ২ একর ভি,পি বন্দোবস্ত মোকদ্দমা ১৫৬৭৮-৭৯ও১২/৮৬-৮৭ নং মুলে জগন্নাথপুর কলেজ বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। খতিয়ান নং -৫৭ পরিমাণ ২.০১ দ্গা নং ১৭৭-৪৪,৪৫ ও ৪৪ একই বন্দোবস্ত মামলা মূলে জগন্নাথপুর কলেজকে প্রদান করা হয়। খতিয়ান নং ৫৮ একই দাগ পরিমান ২.০০ একর বন্দোবস্ত মোকদ্দমা নং জগন্নাথপুর কলেজকে প্রদান করা হয়। ১১৩ নং দাগ ‘খ” তপশীল ভূক্ত ভূমি। ভূমি কার্যালয় সূত্র আরো জানায়, রাধারমণ দত্তের সমাধি অবস্থিত ১৪৯ নং দাগের ২৩ শতাংশ ভূমির ওপর। ওই দাগের ভূমি রাধারমণ দত্তের উত্তরসূরীদের না হলেও রাধারমণ দত্ত ওই জায়গা আশ্রমস্থাপন করে শিয্যদের নিয়ে গান গাইতেন। তাঁর ইচ্ছাতেই ওই জায়গায় তাকে সমাহিত করা হয়। সমাধির পাড়ে রাধারমণ দত্তের উত্তরসূরীদের বাড়ি, পুকুর সহ ৩.১১ একর জায়গা রয়েছে। তন্মেধ্যে ১৫২ দাগে ৭০ শতাংশ বাড়ি রকম ভূমি,১৫১ দাগে ৭৮ শতাংশ পুকুর রকম ভূমি,এছাড়াও ১৪৫ দাগে ১৭ শতাংশ,১৫৪ দাগে ১৮ শতাংশ,১৩৬ দাগে ১৬ শতাংশ,১৩৪ দাগে ৬ শতাংশ,১৪৪ দাগে ১৮ শতাংশ,১৫২ দাগে ৬১ শতাংশ,১৫৪ দাগে ১৯ শতাংশসহ মোট ৩.১১ শতাংশ জায়গা রাধারমণ দত্তের স্বজন অধির রঞ্জন দত্ত বিশ্বেশর দত্ত,মধু সুদন দত্ত,নির্মল দত্ত,হরিপদ দত্ত,মুকুন্দ দত্ত ও বনমালি দত্তের নামে রের্কডভূক্ত ছিল। পরবর্তীতে সমূদয় সম্পত্তি সরকারের খাস খতিয়ান ভূক্ত হলে কেশবপুর গ্রামের আব্দুল রহিম,আব্দুল গৌছ পিতা মৃত হবিব উল্যাহ ভিপি মামলা নং -৯৫/৭০-৭১ মূলে বন্দোবস্ত নেন। উপজেলা ভূমি কার্যালয়ে সেই সময়ের নথি না থাকলেও উক্ত ভিপি বন্দোবস্ত মামলার ১৯৯৪-৯৫ সাল থেকে রের্কড রয়েছে। যা পর্যালোচনায় দেখা যায় আব্দুর রহিম ও গৌছ আলী গংদের উত্তরসূরীরা প্রতি বছর সন সন সরকারেরর খাজনা আদায়ের মাধ্যমে বন্দোবস্ত নবায়ন করে যাচ্ছেন। সর্বশেষ তাদের উত্তরসূরী গৌছ আলী, ইয়াছমিন উল্যাহ,অলিউর রহমান, আব্দুল্লাহ মিয়া,আব্দুল ওদুদ গং ১৪২২ বাংলা সন পর্যন্ত খাজনা পরিশোধ করেছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ রাধারমণ দত্ত ও তাঁর পূর্বপুরুষদের ভূসম্পত্তি ভূমি অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীর সহায়তায় নানাভাবে জাল জালিয়াতির আশ্রয়নিয়ে ভোগ দখল করছেন এলাকার প্রভাবশালীরা। রাধারমণ দত্ত জীবদ্দশায় কোন ভূমি বিক্রি না করলেও তাঁর নামে রয়েছে অসংখ্য জাল দলিল। এছাড়া ভরতপুর মৌজার ১২,৫০, ১৫,৫৫, ৭৪ খতিয়ানে রয়েছে রাধারমণ দত্তের জায়গা। ভূমি কার্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী প্রায় ৩০ একর ভূসম্পত্তি রয়েছে রাধারমণ দত্ত ও তাঁর স্বজনদের নামে। এসব সম্পত্তির অধিকাংশ দখলকারী কেশবপুর ভূমিহীন সমবায় সমিতির বর্তমান সভাপতি সানুর আলী জানান,রাধারমণ দত্তের সম্পত্তি জবর দখল করা হয়নি। ১৯৭৮ সাল থেকে সরকারকে খাজনা পরিশোধের মাধ্যমে বন্দোবস্ত এনে ওই সম্পত্তি ভোগ দখল করছেন সমিতির লোকজন। তিনি জানান, ২০০৭ সালে তাদের বন্দোবস্ত বাতিল করে বিপুল পরিমাণ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। পরবর্তীতে ২০১০ সালে পূনরায় কেশবপুর ভূমিহীন সমবায় সমিতির নামে বন্দোবস্ত নিলেও দুই বছর পর তাদের বন্দোবস্ত বাতিল করা হয়। পরে সমিতির পক্ষ থেকে হাইকোর্টে একটি মামলা দায়ের করা হলে আদালত উক্ত জায়গা সমিতি ব্যতিত নতুন করে কাউকে বন্দোবস্ত না দিতে স্থগিতাদেশ প্রদান করেন। বর্তমানে সমিতির সদস্য সংখ্যা ৭০জন। সবাই কেশবপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং রাধারমণ দত্তের সম্পত্তিতে ভোগ দখলে আছেন বলে তিনি জানান।

রাধারমণ দত্তের উত্তরসূরী প্রপৌত্র নিশীত রঞ্জন দত্ত বলেন,রাধারমণ দত্ত সারাদেশের সম্পদ। আমরা তাঁর কোন সম্পত্তির অধিকার নিতে চাই না। শুধু চাই এই গুনী সাধকের স্মৃতি বিজড়িত স্থানে সরকারি পৃষ্টপোষকতায় গড়ে উঠুক রাধারমণ একাডেমী। যেখানে রাধারমণ চর্চ্চা হবে এবং লোক সংষ্কৃতির প্রসার ঘটবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের শাসনামলে অর্পিত সম্পত্তি প্রর্ত্যাপন আইনে অবমুক্তির সুযোগ তৈরী হলে আমরা সুনামগঞ্জ ট্রাইব্যুনালে মামলা করি। কিন্তু আইনি জটিলতায় এখন পর্যন্ত কোন উপকার পাওয়া যায়নি।

কেশবপুর গ্রামের তরুণ সাংস্কৃতিককর্মী আবু হেনা রণি বলেন, রাধারমণ দত্তকে নিয়ে আমরা গর্ব করি। অথচ রাধারমণ দত্তের শেষ স্মৃতিচিহৃ অযতœ অবহেলায় উপেক্ষিত হয়ে রয়েছে। যা দেশ বিদেশের রাধারমণ অনুরাগীদের মতো আমাদেরকে পীড়া দেয় । একই গ্রামের আরেক সাংষ্কৃতিককর্মী মোহাম্মদ আলী আফরোজ বলেন, রাধারমণ দত্তের স্মৃতি রক্ষার্থে সরকার উদ্যোগী হবে এমনটাই প্রত্যাশা আমাদের। আমরা চাই লালন একাডেমীর মতো এখানে রাধারমণ একাডেমী হবে। সংস্কৃতিকর্মী শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন বলেন লোকসংষ্কৃতির বিশাল অংশজুড়ে রয়েছেন আমাদের রাধারমণ। সংষ্কৃতিবান্ধব এই সরকারের আমলে যদি তাঁর স্মৃতিচিহৃকে সংরক্ষন করা না যায় তা হবে দুঃখজনক। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ বলেন, রাধারমণ দত্তের সম্পত্তি বেহাত হওয়ার পাশাপাশি তাঁর পৈত্রিক সম্পত্তির ওপর অনেক প্রতিষ্ঠান সগৌরবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তারই একটি নির্দশন জগন্নাথপুর কলেজ। সাধক এই কবির সম্পত্তি উদ্ধারের পাশাপাশি জগন্নাথপুর কলেজের নবনির্মিত ভবনের নামকরণ তাঁর নামে করলে প্রজন্মান্তরে রাধারমণ দত্তের স্মৃতি বেঁচে থাকবে।

সুনামগঞ্জের সন্তান সাবেক সচিব পিএসসির সদস্য ড. মোহাম্মদ সাদিক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, রাধারমণ দত্ত জগৎ বিখ্যাত একজন সাধক কবি। তাঁর স্মৃতি বিজড়িত জায়গায় প্রশাসন ও এলাকাবাসীর সমন্ধয়ে রাধারমন একাডেমী প্রতিষ্ঠিত হলে ওই এলাকা আলোকিত হবে। তাই এলাকাবাসীকে স্বতঃস্ফুতভাবে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, রাধারমণ দত্তের মৃত্যু শতবার্ষিকী রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের মাধ্যমে মরমি এই সাধক কবির পূনজন্ম হবে বলে বিশ্বাস করি। কারণ জীবদ্দশায় রাধারমণ, জীবনানন্দ দাশ সহ অনেক গুনী কবিকে আমরা চিনতে পারিনি। রাধারমণ দত্ত মৃত্যুর শতবছর পর হলেও স্বমহিমায় আমাদের মধ্যে বিরাজমান।

সুনামগঞ্জের সাবেক জেলা প্রশাসক যুগ্ম সচিব মোহোম্মদ আলী খান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, লোকসংষ্কৃতির মহারাজা রাধারমণ দত্তের ভূসম্পত্তি উদ্ধার করে কমপ্লেক্স স্থাপন হলে মরমী সাধক কবির স্মৃতি ধরে রাখার পাশাপাশি দেশের লোক সংষ্কৃতি আরো সমৃদ্ধ হবে। এখনও রাধারমণ দত্তের সম্পত্তি উদ্ধার করে কমপ্লেক্স্র স্থাপন করা সম্ভব। এজন্য তিনি স্থানীয় রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংষ্কৃতিক অঙ্গনের ব্যক্তিদের প্রশাসনের সহযোগীতায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি রাধারমণ দত্তের জায়গায় রাধারমণ কমপ্লেক্স হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বর্তমান সরকারের বৈশ্যিষ্ট্যগুলোর মধ্যে অন্যতম বাঙ্গালী সংস্কৃতির ইতিহাস ঐহিত্য সমুন্নত রাখা। রাধারমণ দত্ত আমাদের ইতিহাস ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ। কাজেই তাঁর ভূসম্পত্তি উদ্ধার ও তাঁর স্মরণে রাধারমণ কমপ্লেক্স নির্মাণ করতে বর্তমান সরকার উদ্যোগী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com