1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
‘মায়ের চেয়ে মাসির দরদ দেখাচ্ছেন সাংবাদিক সুজাত মনসুর- বঙ্গবন্ধু খুনি বির্তকে মন্ত্রী মান্নানকে জড়ানোর নিন্দা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

‘মায়ের চেয়ে মাসির দরদ দেখাচ্ছেন সাংবাদিক সুজাত মনসুর- বঙ্গবন্ধু খুনি বির্তকে মন্ত্রী মান্নানকে জড়ানোর নিন্দা

  • Update Time : শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০১৬
  • ৫৪১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা কে নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুটের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বির্তকে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জেলা পরিষদ প্রশাসক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের মামা অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তাকে অহেতুক জড়ানোর চেষ্ঠায় জগন্নাথপুরবাসী বিক্ষুব্দ হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে প্রবাসী সাংবাদিক সুজাত মনসুর অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা বির্তক নিয়ে মন্ত্রী এম এ মান্নানের বক্তব্য নিয়ে দুটি লেখা উদ্যেশে প্রনোদিতভাবে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে হিংসাত্বক অশালীন আক্রমন করার চেষ্ঠা করায় উপজেলাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। প্রবাসী এই সাংবাদিকের দুটি লেখার মন্তব্যে জগন্নাথপুরের মানুষ ব্যতিত হয়েছেন। জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জের দুই বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য সৎ ও সজ্জন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে বির্তকিত বিষয় নিয়ে তাৎক্ষনিক যে মন্তব্য করেছেন তা একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী ও রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে যথার্থ বলে মনে করি। তাই পাঠকের উদ্যেশে বির্তকিত বক্তব্য, সুজাত মনসুরের লেখা ও অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্য তুলে ধরছি। ১৫ আগষ্ট জাতিয় শোক দিবসে জেলা যুবলীগের সভায় সাবেক জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা জগন্নাথপুরের কুবাজপুর গ্রামের বাসিন্দা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের মামা উল্লেখ করে বক্তব্য দেন। এনিয়ে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকায় বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা নিয়ে ট্ক অব দ্যা টাউন শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদে সভায় উপস্থিত আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আমাদের জ্যেষ্ট নেতা নুরুল হুদা মুকুট ভংকর কথা বলেছেন। এটা আমি আগে কখনো শুনিনি,আজিজ পাশা নামে বঙ্গবন্ধুর একজন খুনি রয়েছেন,একজন আজিজ পাশাকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি,তিনি উপ-সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন,এই আজিজ পাশা যে বঙ্গবন্ধু হত্যার সাথে জড়িত তা জানি না,জগন্নাথপুরের কুবাজপুরে তার বাড়ি এটিও জানিনা,আজ আমি ঢাকায় যাচ্ছি, খোঁজ খবর নিয়ে ফিরে আসবো। জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যের পর পরই জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তথ্য সমৃদ্ধ একটি লেখা লিখেন। যাতে করে বঙ্গবন্ধুর খুনি নিয়ে সকল ধোয়াশা দূর হয়ে যায়। এরপরও সাংবাদিক সুজাত মনসুর তাঁর লেখায় সৎ ও সজ্জন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানকে উদ্যেশে করে অর্বাচীন মন্তব্য লিখেন। যা একজন দায়িত্বশীল সাংবাদিক হিসেবে ঠিক হয়নি। এছাড়াও লেখক জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মতিউর রহমান এর এবিষয়ে মন্তব্যকে সুকৌশলে এড়িয়ে গিয়ে শুধুমাত্র মন্ত্রী এম এ মান্নানের বিরুদ্ধে অশালীন মন্তব্য লিখেন। যা তাঁর লেখনিকে প্রশ্নবিদ্ধ করে রেখেছে পাঠক মহলে। জগন্নাথপুরবাসীর মতে,জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের মামার নামে বিভ্রান্তিমুলক বক্তব্যকে কেন্দ্র করে য্খন প্রতিবাদের ঝড় বইছে ঠিক তখনি ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের বক্তব্যকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্ঠা চালিয়ে মায়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশী দেখানোর চেষ্ঠা করে জগন্নাথপুরবাসীর হৃদয়ে ক্ষোভের আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছেন তিনি। তাঁর লেখনিতে সুনামগঞ্জের সুনাম নষ্ট করার চক্রান্তে রয়েছে। জেলার একমাত্র দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে দুটি মন্ত্রনালয়ের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে মন্ত্রী এম এ মান্নান যখন উন্নয়নের চাকাকে সচল রেখে সুনামগঞ্জকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তখন মন্ত্রীকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য আমাদেরকে হতাশ করেছে। লেখক হয়তো জানেন না, জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জের দুই বারের সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী (বাংলাদেশের ইতিহাসে একমাত্র প্রতিমন্ত্রী যিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আস্থাভাজন হিসেবে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ একনেকের সদস্যসহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকারী এম এ মান্নান ও (স্বাধীন বাংলার প্রথম সংসদ সদস্য জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জের নির্বাচিত এমপি প্রয়াত জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট আব্দুর রইছের সন্তান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান জেলা পরিষদের প্রশাসক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের সুর্ম্পক রয়েছে। ইমনকে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করতে একযোগে কাজ করে বিশেষ ভূমিকা রাখেন মন্ত্রী এম এ মান্নান যা সর্বজন স্বীকৃত। এম এ মান্নানকে সততার প্রতীক হিসেবে আখ্যায়িত করে ব্যারিষ্টার ইমন রাজনীতিতে তা অনুসরন করেন বলেও একাধিকবার সভা সমাবেশে উল্লেখ করেছেন।
এপ্রসঙ্গে ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম বলেন, যিনি আমার মামাকে আজিজ পাশা উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুর খুনি বলেছেন তাকে তা প্রমান করতে হবে। এবিষয়ে আমরা আইনি পদক্ষেপ নেব।তিনি বলেন,মন্ত্রী এম এ মান্নান কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেছেন বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশাকে চিনেন না। খোঁজ নিয়ে জানাবেন বলেও তিনি বলেছেন। আশা করি সুনামগঞ্জ আসলে তিনি এবিষয়ে সুস্পষ্ট বক্তব্য দিবেন। ইমন অবশ্য স্বীকার করেন, একটি মহল মন্ত্রীর বক্তব্যকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টির চেষ্ঠা করছেন।
এ প্রসঙ্গে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,বঙ্গব্ধুর সকল খুনির বিষয়ে আমি অবহিত রয়েছি। জেলার একজন জ্যেষ্ট নেতা যখন বক্তব্য দেন তখন আমি বলেছি বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে দেখব। তিনি বলেন,আমার নির্বাচনী এলাকা জগন্নাথপুরে কোন বঙ্গবন্ধুর খুনি নেই। বিষয়টি ইতিমধ্যে সুস্পষ্ট হয়ে গেছে। তারপরও যারা ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করতে চান তারাই নানা অপপ্রচার চালাচ্ছেন। তিনি বলেন,আমি অনেক কিছু পেয়েছি বলে যারা গাত্রদাহে জ্বলেন তারা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে এবিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেন।





শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com