1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শান্তিগঞ্জে তিনজনের মধ্যে দুই প্রার্থী কোটিপতি - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন

শান্তিগঞ্জে তিনজনের মধ্যে দুই প্রার্থী কোটিপতি

  • Update Time : রবিবার, ২ জুন, ২০২৪
  • ৭৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

আগামী ৫ জুন চতুর্থ ধাপে শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১২ জন প্রার্থী। এরমধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন। হলফনামা অনুযায়ী কোটিপতি প্রার্থী রয়েছেন দুইজন। এই দুইজনই চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একজন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম এবং অন্যজন সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের ছেলে শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাদাত মান্নান অভি। কালামের চেয়ে ২৩ গুণেরও বেশী সম্পদ রয়েছে অভির। কালামের ১ কোটি ২১ লক্ষ ৭০ হাজার ৬১০ টাকার সম্পদ রয়েছে। এদিকে সাদাত মান্নান অভির রয়েছে ২৮ কোটি ৫২ লক্ষ ৬৯ হাজার ৭৮৩ টাকার সম্পদ।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম ব্যবসা থেকে বাৎসরিক ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৬১ লক্ষ ৭৮ হাজার ৭১৯ টাকা, স্বর্ণালংকার ৪০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ১ লক্ষ টাকা, আসবাবপত্র ২০ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে কৃষি জমি ৪.৭২ শতক ২৬ লক্ষ ১৩ হাজার ১০০ টাকা, দ্বিতল ভবন ও দোকান ঘর ২০ লক্ষ টাকা, ১২৬৪ বর্গফুট দালান ৫ লক্ষ ৬৮ হাজার ৮০০ টাকা।

মো. বোরহান উদ্দিন কৃষিখাত থেকে বাৎসরিক ৪০ হাজার টাকা, পেশা (আইনজীবী) থেকে বাৎসরিক ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৫০ হাজার টাকা, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ৪ লক্ষ ৭১ হাজার ৯৩৯ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ১ লক্ষ ৮ হাজার ৭২৯ টাকা, পোস্টাল, সেভিংস সার্টিফিকেঁসহ বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্র বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগের পরিমাণ ২০ লক্ষ টাকা, নিজ নামে স্বর্ণালংকার ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৫০ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে স্ত্রী/স্বামীর নামে ১.৯৫ একর কৃষি জমি ২ লক্ষ টাকা। এছাড়াও যৌথ মালিকানায় রয়েছে ৮০ কেদার কৃষি জমি ও ৪০ কেদার অকৃষি জমি।
শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাদাত মান্নান অভি সুইজারল্যান্ডের আর্থিক প্রতিষ্ঠান অটোনমি ক্যাপিটাল রিসার্চ এর মহাব্যবস্থাপক। কৃষি খাত থেকে বাৎসরিক ১৪ হাজার ৬৫২ টাকা, বাড়ি/এপার্টমেন্ট/দোকান ভাড়া থেকে ৩৪ লক্ষ ৩৯ হাজার ৫০০ টাকা, চাকুরী থেকে ১৯ কোটি ৪৭ লক্ষ ৮৮ হাজার ৮৯ টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ১ লক্ষ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ১ লক্ষ টাকা, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ২০ লক্ষ ২০ হাজার ১৮১ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ৫০ ভরি স্বর্ণ ২৫ লক্ষ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ১৯ লক্ষ টাকা, আসবাবপত্র ১৫ লক্ষ টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে ১৯২ শতাংশ কৃষি জমি ১ কোটি ২০ লক্ষ ৯০ হাজার ৪০০ টাকা, ৩৬ শতাংশ অকৃষি জমি ১৭ লক্ষ ৫৮ হাজার ৪০১ টাকা, যৌথ মালিকানায় ১৬ কাঠা, ৭টি ফø্যাট ৬ কোটি ৫০ লক্ষ ৫৮ হাজার ৫৬০ টাকা।
ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর খাঁন ব্যবসা থেকে বাৎসরিক ৩ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৩ লক্ষ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ২ ভরি স্বর্ণালংকার ১ লক্ষ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৬০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, অন্যান্য (ব্যবসার পুঁজি) ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে যৌথ মালিকানায় ৩৫ কেদার কৃষি জমি, ৩ কেদার অকৃষি জমি, দুইটি দালান ২৫ লক্ষ টাকা।
রুকনুজ্জামান ব্যবসা থেকে বাৎসরিক ৫ লক্ষ টাকা আয় করেন। এছাড়াও নির্ভরশীলদের বাৎসরিক আয় ৪ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৫০ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ৩০ হাজার টাকা, নিজ নামে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ৫ লক্ষ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ২ লক্ষ টাকা, দুইটি সিমি ট্রাক ২৪ লক্ষ টাকা, একটি মোটরসাইকেল ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ৫ ভরি স্বর্ণ ২ লক্ষ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ২ লক্ষ টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে ১০ কেদার কৃষি জমি, ৩৩ শতক অকৃষি জমি ৬ লক্ষ ৫৬ হাজার ৭২৫ টাকা, দুইটি আধাপাকা দালান ২০ লক্ষ টাকা, দুইটি বাড়ি ২০ লক্ষ টাকা।

মোর্শারফ হোসেন জাকির কৃষিখাত থেকে বাৎসরিক ৭০ হাজার টাকা এবং অন্যান্য খাত থেকে ২ লক্ষ টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ২০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৪০ হাজার টাকা।
মো. আনোয়ার হোসেন ব্যবসা থেকে বাৎসরিক ২ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ১ লক্ষ টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ৫ ভরি স্বর্ণালংকার ৫০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৫০ হাজার টাকা, অন্যান্য (ব্যবসার পুঁজি) ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে যৌথ মালিকানায় ১৫ শতক কৃষি জমি ও একটি টিনসেড ঘর।
বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দুলন রানী তালুকদার শিক্ষকতা পেশা থেকে বাৎসরিক ৮৪ হাজার টাকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সম্মানী ৩ লক্ষ ২৪ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৩ লক্ষ টাকা, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ৩ লক্ষ ৫ হাজার টাকা, ১ ভরি স্বর্ণালংকার ৩৫ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ২ ভরি ৭০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৫০ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে ১.০০ একর অকৃষি জমি, যৌথ মালিকানায় ৪ একর কৃষি জমি।
মোছাঃ নাজমা বেগম একজন গৃহিণী। কৃষিখাত থেকে প্রার্থীর উপর নির্ভরশীলদের বাৎসরিক আয় ৫০ হাজার টাকা এবং চাকুরী থেকে ৩ লক্ষ টাকা। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ২০ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ৩০ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ ২ লক্ষ টাকা, স্বর্ণালংকার ৬ হাজার টাকা, স্ত্রী/স্বামীর নামে ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৮০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৯ লক্ষ টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে স্ত্রী/স্বামীর নামে ৪ একর কৃষি জমি, নিজ নামে ৩ শাতাংশ ও স্ত্রী/স্বামীর নামে ১ একর অকৃষি জমি, ১ তলা ভবন ২০ লক্ষ টাকা, টিনসেড ঘর ১০ লক্ষ টাকা।
জেসমিন আক্তার ব্যবসা থেকে বাৎসরিক ৩ লক্ষ টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ১ লক্ষ টাকা, স্বর্ণালংকার ২ লক্ষ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ২ লক্ষ টাকা, আসবাবপত্র ৫০ হাজার টাকা।

মোছাঃ রফিকা মহির অন্যান্য খাত থেকে বাৎসরিক ১ লক্ষ টাকা আয় করেন। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৩ লক্ষ ৯৫ হাজার টাকা, স্বর্ণালংকার ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ১ লক্ষ টাকা, আসবাবপত্র ১ লক্ষ টাকা। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে স্ত্রী/স্বামীর নামে ১১৫ শতক কৃষি জমি ৬ লক্ষ টাকা, বসতবাড়ি ১০ লক্ষ টাকা।
খাইরুন নেছা একজন গৃহিণী। হলফনামা অনুযায়ী তার কোন বাৎসরিক আয় নেই। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নিজ নামে নগদ ২ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, স্বর্ণালংকার ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৭০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৮০ হাজার টাকা, অন্যান্য ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

সৌজন্যে সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com