সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

সব চেষ্টা ব্যর্থ, তলিয়ে গেল শনি, হাওরপাড়ের চলছে আহাজারি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৫১ Time View

গোলাম সরোয়ার লিটন, হাওরাঞ্চল :: একমাস পানির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হাওরটির বেড়িবাঁধ রক্ষায় সব ধরণের চেষ্টা করেছিলেন শনির হাওরপাড়ের অর্ধশতাধিক গ্রামের কৃষক। কিন্তু সবচেষ্টা ব্যর্থ করে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে যাচ্ছে হাওরটি। তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের সামনে অবস্থিত সুনামগঞ্জ জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর শনি। গতকাল রোববার রাত আড়াইটায় হাওরটির তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের রাজধরপুর গ্রাম সংলগ্ন লালুরগোয়ালা বেড়ীবাঁধটি ৫০ ফুট দীর্ঘ হয়ে ভেঙ্গে পড়ে। এছাড়াও রামজীবনপুর গ্রামের সামনে বেড়ীবাঁধের একটি অংশও ভেঙ্গে যায়। ভেঙ্গে যাওয়া অংশ দিয়ে তীব্র স্রোতে হাওরটির পাশ দিয়ে বয়ে চলা বৌলাই নদীর পানি ঢুকছে হাওরটির ভেতর। এতে করে এই হাওরটির দশ হাজার হেক্টর জমির এক ফসলী কাঁচা বোরো ধান পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। হাওরটির সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে তাহিরপুর উপজেলার কৃষকরা এবং সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে পাশর্^বর্তী জামালগঞ্জ ও বিশম্ভরপুর উপজেলার কৃষকরা বোরো ধান চাষ করেছিলেন। বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি ঢুকছে এ খবরশুনে হাওরপাড়ের অর্ধশতাধিক গ্রামের কৃষক পরিবারে চলছে আহাজারি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস সালাম জানান, শনির হাওরের সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছিলেন তাহিরপুর উপজেলার কৃষকরা। হাওরের বাকী জমির ধান পাশর্^বর্তী জামালগঞ্জ ও বিশম্ভরপুর উপজেলার কৃষকরা চাষ করেছেন। তাঁর দাবী তাহিরপুর উপজেলায় এ পর্যন্ত ১৫ হাজার একশত হেক্টর জমির বোরো ধান পানিতে তলিয়েছে। তবে কৃষকরা জানিয়েছেন, পানিতে তলিয়ে যাওয়া জমির পরিমাণ আরো অনেক বেশী।
হাওরপাড়ের বাসিন্দারা জানান , মার্চ মাসের শেষ দিকে টানা বৃষ্টি শুরু হলে নিজের জমির ধান পানি থেকে রক্ষায় কৃষকরা স্বেচ্ছাশ্রমে বেড়িবাঁধে কাজ শুরু করেন। টানা একমাস রাতদিন হাওরের বাঁধে কাজ করেছেন হাওরপাড়ের অর্ধশতাধিক গ্রামের হাজারো কৃষক। কিন্তু টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলে হাওর সংলগ্ন বৌলাই নদীর পানি বেড়ে চলায় শেষ রক্ষা হয়নি। বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গে পড়েছে হাওরের বেড়ীবাঁধ।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৯৭৭ , ১৯৯৩ ও ২০১০ সালে তাহিরপুর উপজেলাসহ আশেপাশের সবগুলো হাওরের এক ফসলী বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গেলেও ঠিকে ছিল শনির হাওরটি। কিন্তু এ বছর বেড়িবাঁধের কাজ নি¤œমানের হওয়ার মার্চের শেষ দিকে নদীতে সামান্য পানি বৃদ্ধি পেলেই ঝুঁিকপূর্ণ হয়ে ওঠে বিভিন্ন বাঁধ । কৃষকরা এ ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ রক্ষায় গত একমাস কাজ করেছিলেন ।
হাওরটির মধ্য তাহিরপুর গ্রামের কৃষক একরাম হোসেন বলেন, ভাই ধার দেনা করে হাওরটিতে ১৫ কিয়ার জমি করেছি। সব ধানই কাঁচা। যা কয়েক ঘন্টার মধ্যেই পানিতে তলিয়ে যাবে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে সারা বছর কি খেয়ে বাঁচব সে চিন্তাই করছি।
হাওরপাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামগুলো হচ্ছে ভাটি তাহিরপুর, ঠাকুরহাটি, গোবিন্দশ্রী, জাকিরনগর, সাহাগঞ্জ, শ্রীপুর, নিশ্চিন্তপুর, ইকরামপুর, নোয়ানগর, মাড়াল, গোপালপুর,সাহেবনগর, রামজীবনপুর, আলীপুর, রাধানগর, বেহেলী, ইসলামপুর, চন্ডীপুর, শিবপুর, মশালঘাট, রাজিনপুর, বসন্তপুর, বাগোয়া, শাহাপুর, দাওয়া, মাহমুদপুর, বারুংকা, তিওরজালাল, পাতারি, আনোয়ারপুর, লোহাচুড়া, নোয়াহাট, ফাজিলপুর, দক্ষিণকুল, হোসেনপুর, চিকসা, বীরনগর, জয়নগর, ধুতমা, উজান তাহিরপুর, মধ্য তাহিরপুর। এছাড়াও পাশর্র্বতী কিছু গ্রামের কৃষকরা এ বৃহত্ত হাওরটিতে বোরো ধান চাষ করে থাকেন।
জানা যায়, বিশাল এ হাওরটি বছরের ৬ মাস কয়েক ফুট গভীর পানিতে নিমজ্জ্বিত থাকে। পৌষ মাসে হাওরটিতে বোরো ধানের চারা রোপন করা হয়। যা বৈশাখ মাসে কাটা হয়। আর এক ফসলী এই বোরো ধানই হাওরপাড়ের ৯০ ভাগ পরিবারের আয়ের প্রধান অবলম্বন। একমাত্র ফসল হারিয়ে হাওরপাড়ের এই সকল গ্রামের পরিবারগুলো এখন দিশেহারা।
কৃষক সংগ্রাম সমিতি তাহিরপুর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আকিকুর রহমান বলেন, যখন বাঁধের কাজ হয় তখন কেউই সোচ্চার হননা। কেউ সোচ্চার হোন না সুবিধা পেয়ে আর কেউ সচেতনতার অভাবে। আর এজন্যই নদীতে যে বছর আগাম পানি বাড়ে সে বছর কৃষকরা স্বেচ্ছায় কাজ করে ফসলরক্ষা বাঁধ ঠিকিয়ে রাখতে কাজ করেন।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, হাওরের ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ রক্ষায় হাওরপাড়ের কৃষকরা সবধরণের চেষ্টাই করেছেন । প্রশাসন সাধ্যের চেয়ে বেশি বাঁশ,বস্তা ও বালু সরবরাহ করেছে। অনেক জায়গাতে মজুরির ভিত্তিতেও কাজ করিয়েছি। জনপ্রতিনিধিরাও আন্তরিক ছিলেন। তবুও রক্ষা করা গেলনা শনির হাওরটি। তিনি আরও জানান, কৃষক পরিবার যাতে ভাতের জন্য কষ্ট না করে এজন্য পবিার প্রতি ২০ কেজি চাল উপজেলার সাড়ে বার হাজার কৃষক পরিবারকে দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24