1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
সমাজ বদলের যোদ্ধা একজন শিক্ষক – ম. আমিনুল হক চুন্নু - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

সমাজ বদলের যোদ্ধা একজন শিক্ষক – ম. আমিনুল হক চুন্নু

  • Update Time : শুক্রবার, ১০ মে, ২০২৪
  • ৬৮ Time View

পৃথিবীতে কালে কালে সুযোগসন্ধানী, লোভী আর অমানবিক কিছু মানুষের আবির্ভাব ঘটে। তাদের কারণেই বারবার মানবতা সংকটের মুখে পড়ে। পৃথিবীর কোনো প্রান্তে যুদ্ধ সংঘটিত হলে তো কথাই নেই। সাধারণ মানুষের প্রতি রাষ্ট্রের বা ক্ষমতাবানদের অবহেলা, নারী-শিশুর ওপর নেমে আসা অবর্ণনীয় কষ্ঠের কথা কেউ মনে রাখে না।
ফলে ক্রুর হাসি হেসে পাশবিক ও নির্মম মরণখেলায় মেতে ওঠে যুদ্ধবাজরা। এমন অবস্থাকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন, “ বিচারের বানী নীরবে নিভৃতে কাঁদে”,
মধ্যযুগে বাঙালী কবি চন্ডীদাস বলেছেন,-‘শুনহ মানুষ ভাই,/ সবার উপরে মানুষ সত্য/ তাহার উপরে নাই’। এরও পরে লালন বলেছেন ‘মানুষ ধরো মানুষ ভজো, মানুষ খোঁজো, শোন বলিরে পাগল মন’। আর নজরুল আরও স্পষ্ট করে মানবতাবাদকে উর্ধ্বে তুলে ধরেছেন
কবি নজরুল মনেপ্রাণে উচ্চাশা করে গেছেন, নিজ নিজ ধর্ম বিনাদ্বন্ধে পালিত হবে। কিন্তু তার চেয়ে বড় কথা, একজন মানব সন্তানের বড় পরিচয় সে মানুষ। সে বিষয়েই সবচেয়ে জোরালোভাবে উচ্চারণ করেছেন তিনি। ফলে এ উপমহাদেশে যখন রাজনীতির ক্ষেত্রে ধর্মীয় পরিচয়ই বড় হতে যাচ্ছিল, গোটা বিশ্বে যখন ধর্মীয় বিভেদের কারণে হানাহানি বেড়ে যাচ্ছিল, তখন তিনি নিদ্ধিধায় বলেছেন :
-‘গাহি সাম্যের গান
মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই,
নহে কিছু মহীয়ান।
নাই দেশ-কাল-পাত্রের ভেদ, অভেদ ধর্ম জাতি,
সব দেশে, সব কালে ঘরে ঘরে তিনি মানুষের জ্ঞাতি। (‘মানুষ সাম্যবাদী’)
মানুষ্যসৃষ্ট নানা বিভেদ রেখায় বিভক্ত এই সমাজকে দেখে যারপর নাই বিচলিত ছিলেন কবি নজরুল। এসব থেকে কায়মনোবাক্যে মুক্তি চান তিনি। সেই কারণেই তার রচিত সাহিত্যের প্রধান উপাদান হয়েছে মানবতাবাদ, সাম্যবাদ আর অসাম্প্রদায়িক চেতনা।
তবে এই পৃথিবীতে সর্বকালে, সর্বযুগে সকল সভ্যতায় সবচেয়ে সম্মানিত মানুষ হচ্ছেন শিক্ষক, সে শিক্ষক হতে পারেন গৃহ শিক্ষক, হতে পারেন মক্তবের শিক্ষক, হতে পারেন মাদ্রাসার শিক্ষক, হতে পারেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, হতে পারেন হাইস্কুলের শিক্ষক, হতে পারেন কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। তিনি তো আমার শিক্ষক। তিনি আমার জীবনের পথ-প্রদর্শক, তিনি আমাকে আলোর সন্ধান দিয়েছেন। তিনিই আমার অন্ধতা দুর করে আলোর পথে হাটার পথ দেখিয়েছেন। সর্বোপরি তিনি আমাকে একজন মানুষ বানিয়েছেন, আর মানুষ হয়েছি বলে এই সমাজে নিজেকে প্রভাবশালী মানুষে পরিনত করতে পেরেছি, হয়েছি রাজনীতিবিদ, হয়েছি মন্ত্রী, এমপি হয়েছি আমলা, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ব্যবসায়ী, হয়েছি সমাজ বদলের একজন যোদ্ধা। এক কথায় বলতে গেলে এই সমাজে আমরা যে যে অবস্থানেই আছি না কেন শিক্ষিত হয়েছি বলেই একজন শিক্ষকের কাছে নীতি-নৈতিকতা , আদর্শ শিখেছি বলেই আমরা এই রাষ্ট্রের সমাজের সভ্যতায় প্রত্যেকে স্ব-স্ব অবস্থান তৈরি করতে পেরেছি। পিতা-মাতা সন্তানের জন্ম দেয় মাত্র আর সন্তান যখন কথা বলতে শিখে সন্তানের মধ্যে কোন কিছু বুঝার স্বক্ষমতা তৈরি হয় তখন মা-বাবা সন্তানকে শিক্ষকের কাছে দিয়ে দেয় জীবনের প্রথম পাঠ গ্রহণের জন্য।
পিতা-মাতা সন্তানের জন্ম দেয় আর সেই সন্তানকে মানুষ বানায় একজন শিক্ষক। তাই দার্শনিক প্লেটো বলেছিলেন- আমি আমার জন্মের জন্য আমার পিতা-মাতার কাছে দায়ী আর কর্মের জন্য দায়ী আমার মহান শিক্ষকের কাছে।
Plato Zvi Theory of education MÖ‡š’ e‡j‡Qb- Though a lot of beliefs and knowledge in the post have become out dated in favour of new discoveries . pelenty of philosophers remain relevent with their ideas that continue to exist and hold true in this day and age.
Take for example the Greek philosopher plato. A Student of Socretes and later on the teacher of the Aristotle, he ( Along with both Socrates and Aristotle) would later be lited as one of the many philosophers who set the foundation, for western thinking, in eluding religion, philosophy, polities and more. Plato be belived that education in one of the keys to eradicating evil and achieving this, because if people were educated and sound then the need for establishing laws were on necessary, but if they wire unless.

অত্যন্ত দু:খের সাথে আমাকে আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসে বাংলাদেশের শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনা নিয়েই লিখতে হচ্ছে, আমি নিয়মিত লিখি সমসাময়িক ঘটনাবলী, শিক্ষা, রাজনীতি, পর্যটন, সংস্কৃতি ও লোকসাহিত্য, মাদকাশক্তি, ছাত্রসমাজ, ইভটিজিং, শিক্ষকদের দাবী, দেশের উন্নয়ন, মানবাধিকার, শিল্পকর্ম, বিশ্বশান্তি, বিশ্ব ঝুঁকিতে ঢাকা ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে। কিন্ত আজ শিক্ষকের উপর অপমান-নির্যাতন, এমনকি হত্যার মত মধ্যযুগীয় বর্বরতার যে ঘটনাবলী প্রতিনিয়ত বাংলাদেশে ঘটছে সে বিষয় নিয়ে না লিখে পারলাম না।
শিক্ষা জীবন শেষে ছাত্র হয়তো সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত ; কিন্তু মহান শিক্ষককে দেখে চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান জানানো , কখনো পা ছুঁয়ে সালাম করা কিংবা পদধুলি নেয়ার এই শিষ্টাচার আমরা বহু বছর ধরে দেখে আসছি। কিন্তু এখন বিজ্ঞান পড়াতে গেলে ছাত্র হিং¯্র হয়ে ওঠে। হৃদয় মন্ডল আক্রান্ত হয়েছেন ছাত্র দ্বারা। কয়েক মাস আগে শিক্ষকের ধর্ম নিয়ে প্রশ্ন তুলেই ক্ষান্ত হচ্ছে না ছাত্র: পিটিয়ে মেরেও ফেলছে শিক্ষককে। নড়াইলের মির্জাপুর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা গলায় দিয়ে ঘোরানো হয়েছে। কাজটি যিনি সংঘঠিত করতে ভূমিকা রেখেছেন তিনি স্বপন কুমার বিশ্বাসের একসময়ের ছাত্র। সাভারের আশুলিয়ায় হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে পিটিয়ে হত্যা করেছে তারই স্কুলের ছাত্র। ছাত্র জিতু বখাটে; ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করত। তাকে শাসন করার অপরাধে প্রাণ হারিয়েছেন শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার।
যে কোনো সুস্থ মানুষ উক্ত ঘটনাগুলোর খবর শুনলে অসুস্থ হয়ে পড়বেন। আমরা যারা স্কুলে পড়েছি তাদের শিক্ষকের জায়গা আমাদের হৃদয়ে কোথায় তা জানি। এমনকি যারা স্কুলে পড়েনি তারাও জানে। পরিবারের পরে যে কোন শিক্ষার্থীর মানস গঠনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন শিক্ষক। অনেক পরিবারের চেয়েও স্কুল শিক্ষকের ভূমিকা অনেক বেশি। সোজা কথায় স্কুল যদি হয় সমাজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান, তাহলে সেই স্কুল অচল শিক্ষক ছাড়া। শিক্ষকই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাহাতœ্য। তার অর্থ এই নয় যে শিক্ষক ভুল করবেন না বা অপরাধ করবেন না। যে কোনো মানুষের ভুল আর শিক্ষকের ভুল বা অপরাধ আইনের চোখে এক। তবে যারা শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরিয়েছে এবং যারা এই কাজে বাধা দেননি, বিশেষ করে অন্য শিক্ষার্থী, পুলিশ প্রশাসন তারা সকলেই আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছে, তারা নিজেরাই শাস্তি নির্ধারণ করেছে এবং শিক্ষকের জন্য যা সবচেয়ে অবমাননাকর তাই করেছে। পুলিশ সেই কর্মকান্ড দেখেছে, প্রসাশন অথৈবচ। তারা শিক্ষককে তাৎক্ষনিকভাবে রক্ষা করেননি।
শিক্ষাঙ্গনে শিক্ষক লাঞ্ছনার এই ঘটনাবলী সমাজ ও রাষ্ট্রের গভীর ক্ষতের বহিঃপ্রকাশ । মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে আমাদের শিক্ষাঙ্গনগুলোতে ছাত্র রাজনীতি হয়ে ওঠে সহিংস। একসময় ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয় শিক্ষক রাজনীতির লাল, নীল, গোলাপি, সাদা নানাবর্ণে বিভক্ত হয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা জাতীয় রাজনীতি রাজনৈতিক দলের অঙ্গ সংগঠন হিসেবে নিজেদের পরিচিত করেন। উপাচার্য, অধ্যক্ষ, অধ্যাপক, প্রধান শিক্ষকসহ গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো আর নীতি আদর্শবান হিসেবে পরিচিতি লাভ করা শিক্ষকদের হাতে থাকেনি। অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী তিনবার ভিসি প্যানেলে সর্বোচ্চ ভোট পাওয়ার পরও কোন সরকারই তাঁকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেননি। ফলে শিক্ষা ব্যবস্থায় অজান্তেই শিকড় গেড়েছে অনৈতিকতা।
মুক্তিযুদ্ধ পূর্ববর্তী সময়ের ছাত্র রাজনীতি আদর্শ দ্বারা মোড়ানো ছিল। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ের ছাত্র রাজনীতি আদর্শবিহীন ধারায় পরিচালিত হয়ে এখন নিঃশেষপ্রায়। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক নিয়োগে ভালো ছাত্র আর ভালো রেজাল্ট হলেই চলবে না; থাকতে হবে দলীয় আনুগত্য। এই ধারাবাহিকতা নৈতিক মূল্যবোধের স্থানটি হয়ে গেছে সংকুচিত । বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভিসি, কলেজের অধ্যক্ষ, জানেন, তাঁর চেয়েও শক্তিমান তাঁরই শিক্ষাঙ্গনের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনের সভাপতি। ইচ্ছে করলে ওই সভাপতি তাঁকে বিপদে ফেলতে পারে যখন তখন। এজন্য শুধু বর্তমান সরকার নয়, যখন যে রাজনৈতিক দল ক্ষমতা দখল করেছে তারাই করেছে এ কাজ। যে শিক্ষাঙ্গন একসময় ছিল সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার, সেই শিক্ষাঙ্গনে এক বিজ্ঞান শিক্ষক নিগৃহীত হন সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গিতে। বিজ্ঞানমনস্ক মানুষ সৃষ্টিতে অক্ষম শিক্ষাব্যবস্থাই এজন্য দায়ী বহুলাংশে। দায়ী মূল্যবোধহীন ভোগবাদিতার প্রতিযোগিতায় গড়ে ওঠা সমাজ।
অতি সম্প্রতি ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনায় প্রতীয়মান হয় সাম্প্রদায়িকতার নতুন টার্গেট এখন শিক্ষাঙ্গন। তবে গত ২৬ জুন ২০২২ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের জোহা চত্বরে শিক্ষকদের অবমাননা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে প্রতীকী অনশন করেছেন। সরকারী দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের কর্মীরা নবাব আব্দুল লতিফ হলে রসায়ন বিভাগের ছাত্র মুন্নাকে হল থেকে বের করে দিয়েছে। সাংবাদ মাধ্যম বলেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শারিরিক-মানসিক নিপীড়ন করে ছাত্রলীগ। সীট বানিজ্য, হল থেকে বের করে দেওয়া সবকিছুই করে তারা। রাজশাহী গদাগড়ি উপজেলার রাজবাড়ী কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম রেজাকে সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী নিজ কার্যালয়ে ডেকে একজন শিক্ষককে নির্মমভাবে যে বর্ণনা গণমাধ্যম দিয়েছে তাতে গোটা জাতি বিস্মিত, স্তম্ভিত। একজন আইন প্রণেতা হয়ে আইন লঙ্গনের এ ঘটনার ধিক্কার জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। ওমর ফারুক সাহেবের আইন পরীক্ষা পাসের সনদ কি আছে? আমার সন্দেহ হচ্ছে ! সরকারের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, একজন জন প্রতিনিধি ক্ষমতা অপব্যবহারের মাধ্যমে ধরাকে সরা জ্ঞান করছেন। শিক্ষক নির্যাতনকারী সংসদ সদস্যের সর্বোচ্চ শাস্তি জানাচ্ছে এম সি এন্ড গভ: কলেজ এলামনাই এসোসিয়েশন ইউএসএ।
২০১৬ সালে নারায়নগঞ্জে একজন সম্মানিত শিক্ষককে একজন সংসদ সদস্য কর্তৃক কান ধরে উঠবস করানোর মধ্য দিয়ে শিক্ষকদের নিপীড়ন-অবমাননার যে কলুষিত সংস্কৃতি এদেশে চালু হয়েছে ক্রমাগতভাবে সেই সংস্কৃতি এখন পুরো শিক্ষক সমাজকে আঘাত করেছে। শিক্ষক নির্যাতন এখন মামুলি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাছাড়া ড. ফরিদ উদ্দিন বলেছেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখন প্রতিবাদহীনতা চলছে। এ পরিস্থিতি সর্বত্র; বিশেষ করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও। নভেম্বর মাসের (২০২১) ৩০ তারিখে খুলনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের লালন শাহ হলের প্রভোষ্ট ড. মোঃ সেলিম হোসেন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ ওঠে প্রচন্ড মানসিক পীড়নে মৃত্যু হয়েছে এ শিক্ষকের।
তবে শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা ! বাক্যটি যে কোনো মানুষের মাথা নত করে দেয়। এটা কেবল উচ্চারণ বা পংতি নয়, এটা কোন শব্দমালাও নয়, এটা বাস্তব ঘটনা। বাংলাদেশে নড়াইলে একজন শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা পড়ানো হয়েছে। এই জুতোর মালা পড়ানো ঘটনা মর্মান্তিক। ধর্ম অবমাননার অজুহাতে পুলিশের সামনে নড়াইল সদরের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষের গলায় জুতোর মালা পরানোর ঘটনা এর আগে কখনও এই বাংলায় ঘটেছে বলে আমার জানা নেই। মহানবী (স.)কে নিয়ে বির্তকিত মন্তব্যকারী ভারতের বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মা ছবি দিয়ে ফেসবুকে ওই কলেজের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রের পোষ্ট দেওয়াকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট ঘটনায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে এই কলেজের ছাত্র ও স্থাানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা। একই ধর্মের হওয়ায় ঐ ছাত্রকে সার্পোট দিচ্ছে এমন অভিযোগ তুলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতোর মালা পড়িয়ে দেওয়া হয় এবং এ ঘটনায় অভিযুক্ত কলেজছাত্রের সঙ্গে অধ্যক্ষকেও আটক করা হয়। তবে এ ঘটনার সঙ্গে কোন সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় ওই দিনই থানা হাজত থেকে অধ্যক্ষকে পুলিশ ছেড়ে দেয়।
ইসলাম ধর্ম, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন ও বাংলাদেশ সংবিধানে নিষ্ঠুর, অমানবিক ও মর্যাদার জন্য অবমাননাকর শাস্তি নিষিদ্ধ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য বাংলাদেশের সংবিধানের ৩৫(৫) অনুচ্ছেদে উল্লেখ রয়েছে, ‘কোন ব্যক্তিকে যন্ত্রণা দেওয়া যাইবে না কিংবা নিষ্ঠুর, অমানুষিক বা লাঞ্ছনাকর দন্ড দেওয়া যাইবে না কিংবা কাহারও সহিত অনুরূপ ব্যবহার করা যাইবে না।’ কি অভিযোগে অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে জুতোর মালা পরানোর মত চরম লাঞ্ছনার আচরণ করা হলো ? অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস তো কোনো অপরাধ করেননি। ফেসবুক পোষ্টটি দেখার পর স্বপন কুমার বিশ্বাস কলেজের শিক্ষক, ওই শিক্ষার্থীর বাবা ও কলেজ পরিচালনা পর্ষদের কয়েকজন সদস্যকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি আলোচনা করেন। আলোচনায় সিদ্ধান্ত হয়ে ক্যাম্পাসে পুলিশ ডেকে শিক্ষার্থীকে তাদের কাছে সোপর্দ করা হবে। যদি ধরেই নিই উন্মুক্ত জনতার হাতে থেকে একজন বিপন্ন শিক্ষার্থীকে আগলে রেখে একজন আদর্শ শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সৈয়দ মোহাম্মদ শামসুজ্জোহা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের দায়িত্ব পালনকালে আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯৬৯ সালের ১৮ ফেরুয়ারী পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর আক্রমণের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতে গিয়ে শহীদ হন। জোহা স্যার বলেছিলেন, ‘ছাত্রদের গায়ে গুলি লাগার আগে সেই গুলি আমার বুকে লাগবে’, ছাত্রদের রক্ষায় নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন তিনি। জুন ২০২২ যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের উভালডে শহরের রব এলিমেন্টারি স্কুলে বন্দুকধারীর গুলিতে ২১জন নিহত হন । নিহতদের মধ্যে শিক্ষক ইভা মিরেলেস ও তাঁর সহশিক্ষক ইরমা গার্সিয়াও ছিলেন। এই দুই মহান শিক্ষক নিজের জীবন বাজি রেখে শিশুদের বাঁচানোর চেষ্টা করেছেন। গুলি থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতে মৃত্যুর আগে শিশুদের বুকে জড়িয়ে রাখেন এই দুই শিক্ষক। শিশুদের বুকে জড়িত ধরা অবস্থায় শিশুদের লাশ উদ্ধার করা হয়। অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসও এমন মহান দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করেছেন। তার শাস্তি জুতোর মালা ? অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে কলেজ কিংবা রাষ্ট্রের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার কী সুযোগ ছিল না ? বাংলাদেশের আইন এবং ইসলাম ধর্মের বিধান কি আইন নিজের হাতে তুলে নেয়ার অনুমতি দেয়?
মানুষ গড়ার কারিগর অধ্যক্ষ মহোদয় আমাদের সন্তানদের দেশের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার দূর্বহ মহান দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন । আর সেই মানুষটাকে আমরা নিজ হাতে চরম অপমান করলাম ! শিক্ষক জ্ঞানের আলো দ্বারা যুগের সব অন্ধকার দূর করে মানুষের জন্য সভ্য পৃথিবী সৃজন করেন। সঠিক শিক্ষাদানের মাধ্যমে শিক্ষক মানুষের ভেতর সত্যিকারের মানুষ লালন করেন। তাই শিক্ষককে বলা হয় সন্তানের দ্বিতীর জন্মদাতা। জ্ঞান বা বিদ্যার্জনের জন্য শিক্ষকের ভূমিকাকে দ্বিতীয় জন্মদাতার সঙ্গে তুলনা করে শাহ মুহম্মদ সগীর কবিতার ছন্দে লিখেছেন- ওস্তাদে প্রণাম করো পিতা হস্তে বাড়,/ দোসর জনম দিলা হিত সে আঙ্গার।’
অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের সম্মানের যে অবমাননা হয়েছে পৃথিবীর কোন কিছুর বিনিময়ে কি আর সেই সম্মান ফিরিয়ে দেওয়া যাবে? স্ত্রী-সন্তান, স্বজনের সঙ্গে স্বপন কুমার যখন দাঁড়াবেন জুতোর মালা গলায় পরার দৃশ্যটি যখন তার চোখের সামনে ভেসে উঠবে, তার কি অনুভূতি হবে তা চিন্তা করে দেখেছেন কখনো ? অধ্যক্ষ বিশ্বাসের চরম লাঞ্ছনার ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই উৎপল কুমার নামের আরেক শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা করল জিতু নামক এক বখাটে শিক্ষার্থী। তাছাড়া শ্রেণিকক্ষে ভিডিও ধারণ করে শিক্ষক হৃদয় মন্ডলকে ফাঁদে ফেলল তাঁরই ছাত্ররা। শিক্ষার্থীরা নিজের শিক্ষাগুরুর নামে স্লোগান দিল ‘হৃদয় মন্ডলের দুই গালে জুতো মারো তালে তালে।’ আমার প্রজন্মের যারা তারা নিশ্চয়ই একমত হবেন যে আমরা যখন স্কুলে পড়েছি শিক্ষকদের কী সম্মান, শ্রদ্ধা আর সমীহের চোখে দেখতাম । এমন একটি স্লোগান দেওয়ার কথা আমাদের প্রজন্ম কি কখনো করতে পারত ? সাম্প্রতিক সময়ে হিজাব বির্তকের আরেক ঘটনায়ও জানা গেল, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষক আরেক শিক্ষককে শায়েস্তা করতে ধর্মকে ব্যবহার করেছেন। অন্যদিকে স্কুলের ইউনিফর্ম না পড়ার শাস্তি দানকে হিজাব পরার কারণে শাস্তি দেওয়া হয়েছে বলে ওই শিক্ষকের নামে মিথ্যা প্রচার চালানো হয়েছে। এটি এখন সুস্পষ্ট যে, সারা দেশে একটি গোষ্ঠী পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক বিষবাস্প ছড়াচ্ছে। তাদের টার্গেট এমন শিক্ষাঙ্গন। দেশের নানা জায়গায় সাম্প্রদায়িক উস্কানি ছড়িয়ে শিক্ষকদের হত্যা, অপদস্ত ও হয়রানি করা হচ্ছে।
অধ্যক্ষ বিশ্বাস দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে তিনি একই কলেজে শিক্ষকতা করে আসছেন। এলাকার প্রতিটি মানুষের সাথে তার সম্পর্ক অবশ্যই সু-সম্পর্কের, তা না হলে এক নাগারে ২৭ বছর কিভাবে শিক্ষকতা করে যাচ্ছেন। এলাকায় যাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সে জন্য পুলিশে খবর দিয়েছিলেন। আর সেটির উল্টো ব্যাখ্যা করে শিক্ষককে অভিযুক্ত করা হলো, তিনি নাকি আমাদের ধর্মের অবমাননা করেছেন। এবার শুরু হলো তার উপর খড়গ তারই কলেজের সরাসরি তার ছাত্র, থানা-পুলিশ মিলেমিশে তার উপর নির্যাতন, সর্বশেষ তার গলায় জুতোর মালা পরিয়ে তাঁকে যেভাবে অবমাননা করা হলো, মনে হলো আমরা আইয়্যামে জাহেলিয়াতের যুগে ফিরে গিয়েছি। যে যুগে কন্যা সন্তানকে জীবন্ত কবর দেয়া হতো। মানুষ ছিল অসভ্য-বর্বর। যার যা ভালো লাগতো সেটাই করতো, যৌনতা বিকৃত রুচি, ধর্ষণ, মাদকাসক্তি, জুলুম, নির্যাতন, গোত্র গোত্র মারামারি এসব ছিল সেই যুগের চিত্র। আর বিশ্বমানবকুলের শ্রেষ্ঠ পুরুষ, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানবের আবির্ভাবের ফলে আস্তে আস্তে সেই অন্ধকার যুগের অবসান ঘটেছিল। বিশ্ব সভ্যতা হলো আলোকিত সভ্যতা, মহানবী (স.)এর আবির্ভাবের কারণে। আজ আবার ১৪০০ বছর পর আমাদের এই সমাজে কি অসভ্য বর্বর মানুষরূপী কিছু অমানুষের জন্ম হয়েছে। তাদের কাছে শিক্ষা, শিক্ষক, সভ্যতা, মানবতা মূল্যহীন। ধর্মীয় গোড়ামী তাদেরকে হিতাহিত জ্ঞানশূন্যে পরিণত করেছে, বানিয়েছে অমানুষ। একজন শিক্ষককে অপমান করার আগে একবার ভেবে দেখা উচিত ছিল দীর্ঘ ২৭ বছরের কর্মকান্ড। কি করেছেন এই সমাজের জন্য, কি শিক্ষা দিয়েছেন কলেজের হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রীকে। দীর্ঘ ২৭ বছরের শিক্ষকতা জীবনে তিনি কি ওই এলাকায় একজন শিক্ষিত ছাত্র তৈরি করতে পারেননি? নাকি ২৭ বছরে যারা শিক্ষিত হয়েছেন ওই এলাকার আজ তারা মানুষ থেকে পশুতে পরিণত হয়েছে। এলাকার প্রশাসন, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি, এলাকার সুধী সমাজ তারা কি ভূমিকা পালন করেছিলেন? ছি: ছি: ভীষণ লজ্জা আমাদের দেশ ও জাতির জন্য। অন্যদিকে প্রেমিকাকে নিয়ে ছাত্রের আপত্তিকর চলাফেরার জন্য শিক্ষক আপত্তি জানিয়েছিলেন বা তাকে নিবৃত্ত রাখার চেষ্টা করেছিলেন। আর সেই অপরাধে হকিস্টিকের মারাত্বক আগাতে ওই মহান শিক্ষকের জীবন দিতে হলো আজকের এই সভ্য সমাজে। হায়রে ভন্ড সভ্যতা ! আর ভন্ড সমাজ সমাজপতিরা সমাজের রাজনৈতিক যন্ত্রের মেশিনে জন্ম নেয়া। সমাজপতিরা তোমরা কি রাজনীতির মাঠে থেকে সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে করতে রিলিফের গম, আটা চুরি করতে করতে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছো ? কি হচ্ছে এ সমাজে ? দিনে দিনে সমাজে যে অসুরের জন্ম নিয়ে এই সমাজ সভ্যতাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে, এসব দেখভাল করার দায়িত্ব কি সমাজ-সভ্যতা-সরকার কি তোমাদের দেয়নি ?
সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষক লাঞ্ছনার প্রতিবাদে নিউইয়র্কে ৩ জুলাই ২০২২, লন্ডনে ২২ জুলাই ও বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ এবং শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, সিটি মেয়র, সমাজের খ্যাতি সম্পন্ন ব্যক্তিরা অভিমত, নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। নিম্নে তা উল্লেখ করা হলো-
সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন নড়াইলের শিক্ষক লাঞ্ছনা এবং আশুলিয়া শিক্ষক হত্যা, ঢাকায় অধ্যাপক রতন সিদ্দিকীর উপর মৌলবাদী হামলার ঘটনা ও সর্বশেষ রাজশাহীতে সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী নিজ কার্যালয়ে ডেকে একজন কলেজ শিক্ষককে নির্মমভাবে পেটানোর যে বর্ণনা আমরা গণমাধ্যমে পেয়েছি তা অত্যন্ত দুঃখজনক ও বাঙালি জাতির দূর্ভাগ্য ।
বাংলাদেশ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (বাকবিশিস) এর কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. নুর আহমদ তালুকদার, কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যক্ষ ভাস্কর রঞ্জন দাস ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, সহসাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) অজয় কুমার রায় ও সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মো: আবিদুর রহমান, শিক্ষকদের হত্যা, মারধর ও লাঞ্ছিত করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
শিক্ষক আন্দোলনের সংগ্রামী নেতৃবৃন্দ আরও বলেন,- কয়েক মাসে ধর্মীয় উস্কানি ছড়িয়ে মুন্সীগঞ্জের স্কুল শিক্ষক হৃদয় মন্ডলকে গ্রেপ্তার, নড়াইলে কলেজের অধ্যক্ষকে গলায় জুতোর মালা পরিয়ে লাঞ্ছনা, সাভারে কলেজ শিক্ষককে নির্মমভাবে খুন, ঢাকায় অধ্যাপক রতন সিদ্দিকীর উপর মৌলবাদী হামলা, সর্বশেষ রাজশাহীতে সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী নিজ কার্যালয়ে ডেকে কলেজ শিক্ষককে নির্মমভাবে পেটানোর যে বর্ণনা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, তাতে আমরা বিস্মিত ও স্তম্ভিত। একজন আইন প্রণেতা হয়ে আইন লঙ্ঘনের এ ঘটনার ধিক্কার জানানোর ভাষা আমাদের নেই। এহেন ঘটনা প্রবাহের অবসান চাই। শিক্ষক নেতারা প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত ও বিচার নিশ্চিতের জোর দাবি জানান।
তবে বাংলাদেশে যে সভ্যতার চরম সংকট বিরাজ করছে, বুয়েটের মেধাবী শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ সতীর্থদের হাতে জীবন দিয়ে জাতিকে সেই বার্তা দিয়ে গিয়েছে বলে অধ্যাপক সেলিমা আকতার মনে করেন।
আজকের যে শিক্ষক প্রতিবাদহীন: নিজেই জানেনা আগামীকাল তিনিও আক্রান্ত হতে পারেন। অমানবিক, নিষ্ঠুর এই রাজনীতি এ অঞ্চলে বপন করেছিল বৃটিশরা ক্ষমতা সংহত এবং দীর্ঘায়িত করার স্বার্থে । তার বিরুদ্ধে লড়াই যে হয়নি তা নয় । লড়াই হয়েছে বলেই সাম্প্রদায়িক পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ সৃষ্টি করা সম্ভব হয়েছে। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লড়াই একটি ধারাবাহিক সংগ্রাম। এর বিরুদ্ধে লড়াই এর বড় অস্ত্র বিজ্ঞানচর্চা, সাংস্কৃতিক আন্দোলন , নৈতিকতা ও আদর্শবোধের চর্চা। আজকের বাংলাদেশে এই উপাদান নিয়ে কাজ করার সংগঠনগুলো আর আগের মতো সক্রিয় নয়। যেখানে এই সংগ্রাম বিস্তার লাভ করার প্রয়োজন ছিল সেখানে হয়েছে সংকুচিত। বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক শক্তির সাথে একটা আপসকামীতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। হেফাজতে ইসলামের সাথে সরকারের যোগাযোগ, কওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতি দান এই আপসকামীতার বহিঃপ্রকাশ মাত্র।
সময়ের পরিক্রমায় বাংলার অসাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি আজ ভয়ানক হুমকির মুখে। অসাম্প্রদায়িকতার আদর্শ বুকে ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধেও মাধ্যমে যে বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়েছে সেখানে সাম্প্রদায়িকতা নতুন রূপ ও নতুন মাত্রায় আবির্ভূত হচ্ছে। সাম্প্রদায়িকতার কিং মাস্টাররা বারবার সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস করতে সফল হচ্ছে। স্বাধীনতা বিরোধীরা, মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শত্রুরা, ধমান্ধ গোষ্ঠী সাম্প্রদায়িকতা উস্কে দিচ্ছে, ষড়যন্ত্র করছে এমন বক্তব্য দিয়ে সাম্প্রদায়িকতার শিকড় উপড়ে ফেলা যাবে না। সাম্প্রদায়িকতার শিকড় গভীরে প্রোথিত। সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সম্মিলিত প্রতিরোধ গড়ে তোলে এই গোষ্টিকে পরাজিত করতে না পারলে বাংলাদেশের মূল চেতনাই পরাজিত হবে। সর্বোপরি মুক্তিযুদ্ধের চার মূলনীতির আলোকে শিক্ষা, প্রশাসনসহ রাষ্ট্রের সব কার্যসাধনে প্রতিষ্ঠানগুলো ঢেলে সাজাতে হবে।
যে কোন দেশের অর্থনৈতিক ও অবকাঠামো উন্নয়নের চেয়েও দেশের আদর্শকে সমুন্নত রাখা। আদর্শ সমুন্নত রাখতে না পারলে নতুন প্রজন্ম তা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে না, তাদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ তৈরী হবে না। আর এই সামাজিক মাধ্যমের যুগে, ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখে উৎসাহিত বোধ করবে আইন নিজের হাতে তোলে নিতে। এটা কোন দেশের এবং কোন সমাজের জন্যই মঙ্গল জনক নয়। বিশ্ববাসী এখন জানে, আমেরিকার মতো মহা শক্তিধর দেশের প্রেসিডেন্টও আইন ভাঙলে বিচারের হাত থেকে রক্ষা পান না।
সামাজিক মাধ্যমে দেয়া পোস্ট নিয়ে বাংলাদেশের বারবার অরাজক অবস্থা তৈরি হচ্ছে। অনেকে এই মাধ্যমে অপব্যবহার করছে। এ বিষয়ে আইনও করা হয়েছে। কিন্তু যারা সরকার বিরোধী পোস্ট দেয়, তাদেরই শাস্তি হয়, অন্য এধরনের অচিন্ত্যনীয় পোস্টের জন্য সরকারের যন্ত্র নীরব থাকে। নিরব থেকে প্রমাণ করে, বরং সমর্থনই আছে এই ধরনের আইন নিজের হাতে তুলে নেয়ার প্রতি।
আইন অমান্যের ঘটনা সর্বত্র ঘটে। কিন্তু আইন রক্ষাকারী বাহিনী এবং প্রশাসনের দায়িত্ব হচ্ছে তা রোধ করা আর আদালতের দায়িত্ব তার বিচার করে শাস্তি দেওয়া। একটি সমাজ এভাবেই চলমান থাকে। বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কোন এক ইশারায় তা রোধ করে না। আর আদালত তার সুষ্ঠু বিচার করে না। ফলাফল হল : এই ধরনের আইন অমান্যের ঘটনা বাড়তেই থাকে। বিচারহীনতার এবং আইন রক্ষা না করার সংস্কৃতি সমাজের জন্য ভয়ংকর হয়। আজ সরাসরি তার প্রতিফলন না দেখতে পেলেও একদিন তা ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে। বাংলাদেশের সরকার, রাজনীতিবিদ এবং সমাজতত্তবিদগণ নিশ্চয় বিষয়টি নিয়ে ভাববেন। কারণ স্বপন কুমার বিশ্বাস একজন শিক্ষক নন, তিনি বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজের প্রতিনিধি। তাঁকে জুতার মালা পরানোর অর্থ বাংলাদেশের সকল শিক্ষক এবং শিক্ষা ব্যবস্থার গলায় জুতোর মালা পরানো। এই সহজ সত্যটুকু কি কেউ বুঝতে পারল না ?
শিক্ষা, শিক্ষক ও ছাত্রসমাজকে বাঁচাতে আজ প্রয়োজন সাংস্কৃতিক আন্দোলনের জাগরন, বিজ্ঞানমনস্ক মানুষ সৃষ্টির সংগ্রাম, নৈতিকতা ও আদর্শবোধের চর্চা। এটি শাহবাগ চত্বরে আটকে রাখার বিষয় নয়। এর জন্য দেশব্যাপী কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে সংঘটিত হয়ে।

(লেখক, গবেষক, প্রাবন্ধিক, প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, নুরজাহান মেমোরিয়াল মহিলা ডিগ্রী কলেজ, সিলেট। পিএইচ ডি ফেলো, নিউউয়র্ক,)।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com