বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জের ৩টি নদী খণন প্রকল্পের বাস্তবায়ন নেই

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭
  • ৩১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: জেলার তিনটি নদী খননের প্রায় সাড়ে ২৬ কোটি ঘনফুট মাটি কোথায় ফেলা হবে এর কোন পরিকল্পনা না করেই ৩ টি ভরাট হওয়া নদী খননের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। যদিও সুনামগঞ্জ পাউবো’র এই বিষয়ে জবাব হচ্ছে ‘ঠিকাদার নিজ ব্যবস্থাপনায় মাটি ফেলবে এবং এটি বুঝেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে চুক্তি সই করতে হবে।’ ১৩৯ কোটি টাকা ব্যয়ে সুনামগঞ্জের ৩ টি নদী খনন প্রকল্পের দরপত্র হয়েছে। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ও ২ মার্চ দরপত্র গ্রহণও করা হয়েছে। এখন যাচাই-বাছাই চলছে। হাওর এলাকার কৃষক নেতারা বলছেন,‘নদী’র তলদেশের মাটি ফেলার পরিকল্পনা না থাকায়, এই মাটি অনেক দরিদ্র কৃষকের জমি নষ্টের কারণও হতে পারে।’
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীর ৬.১২৫ কিলোমিটার খনন হবে এবং আপার বৌলাই নদীর ১৬ কিলোমিটার খনন হবে। যাদুকাটা খননের জন্য বরাদ্দ হয়েছে ১২ কোটি। আপার বৌলাইয়ে বরাদ্দ হয়েছে ৩৪ কোটি টাকা। একইভাবে সদর উপজেলার পৈন্দা থেকে কিশোরগঞ্জের মিঠামইন পর্যন্ত মরা সুরমা নদীর ৪০ কিলোমিটার খনন কার্যক্রমে অর্থ বরাদ্দ হয়েছে ৯৯ কোটি টাকা।
যাদুকাটা ও আপার বৌলাই খননের দরপত্র ১৫ ফেব্রুয়ারি গ্রহণ করা হয়েছে। মরা সুরমা’র দরপত্র গ্রহণ করা হয়েছে ২ মার্চ।
অংশগ্রহণকারী ঠিকাদারদের দরপত্র যাচাই-বাছাই শেষে আগামী এপ্রিল মাসে কার্যাদেশ দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন পাউবো কর্মকর্তারা।
এই তিনটি প্রকল্পই প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত। সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে নদী খননের এমন বড় প্রকল্প এগুলোই প্রথম। কমপক্ষে সাড়ে ২৬ কোটি ঘনফুট পলি ও বালি মাটি এই তিনটি নদীর তলদেশ থেকে ওঠানো হবে। হাওরপাড়ের কৃষক সংগঠকরা এই বিশাল পরিমাণের মাটি কোথায় ফেলা হবে এ নিয়ে চিন্তিত রয়েছেন। পাউবো সংশ্লিষ্টরা এর সন্তোষজনক জবাবও দিতে পারছেন না। ধর্মপাশার কৃষক নেতা খায়রুল বাশার ঠাকুর খান বলেন,‘নদী খননের প্রকল্প হয়েছে। দরপত্র হয়েছে। কাজ কোন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান পাবে। অর্থ লো-পাট হবে। এই ধান্দায় আছে সকলে। এই পলি-বালি নদীর পাড়ের হাওরের দরিদ্র কৃষকের জমিতে ফেলা হবে। জমি নষ্ট হবে। ছোট-খাটো মাছের অভয়াশ্রম নষ্ট হবে। কেউ প্রতিবাদও করতে পারবে না। স্থানীয় কিছু টাউট-বাটপারও ঠিকাদারের পক্ষে মাস্তানী করবে। ভয় দেখাবে, সরকারি প্রকল্পে বাঁধা দিলে মামলা হবে। দুয়েক বছরের মধ্যেই আবার নদীর পাড়ে ফেলা এই পলি ও বালি আবার নদীতে এসে পড়বে।’ তিনি জানান, সরকার যেহেতু কৃষক এবং হাওরবাসীর উপকার করতে চায়। নদী খননের এই পলিমাটি ও বালি ফেলার জন্য জমি অধিগ্রহণ করা উচিৎ ছিল। ঐ জমি ভরাট করে ভিট তৈরি করা যেতো।’
জেলা সিপিবি’র সভাপতি মধ্যনগরের বাসিন্দা চিত্ত রঞ্জন তালুকদার বলেন,‘এভাবে নদীর তলদেশের পলি ও বালি ফেললে, খননে যেটুকু লাভ হবে, ক্ষতি তার চেয়ে বেশি হবে। এলোপাথাড়ি মাটি ফেলবে, দরিদ্র কৃষকের জমি নষ্ট হবে। কেউ প্রতিবাদও করতে পারবে না।’ তিনি জানান, হাওরের কোচ (উঁচু-নিচু) জমি রয়েছে, যেখানে ফসল করা যায় না, এসব এলাকা দেখে নদীর তলদেশের পলি-বালি ফেলা যেতে পারে। এক্ষেত্রে পরিকল্পনা থাকতে হবে। হাওর পাড়ের কৃষকদের সঙ্গে কথা বলতে হবে।’
সুনামগঞ্জের হাওরে অঞ্চলে কাজ করেছেন পাউবো’র এমন একজন প্রকৌশলী বললেন, ‘সুনামগঞ্জের নদী খননের জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করার আগে অবশ্যই নদীর তলদেশের শত বছরের পলি-বালি উত্তোলন করে কীভাবে-কোথায় ফেলা হবে, এর পরিকল্পনা থাকতে হবে। ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তি করার আগেই এই নিয়ে চিন্তা করতে হবে। না হয় ঠিকাদারকে দিয়ে পরে পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করানো যাবে না।’ এই প্রকৌশলী বললেন, ‘নদীর তলদেশের পলি ও বালি ফেলার জন্য জমি নির্ধারণ করে প্লাটফরম তৈরি করতে হবে এবং বন্যামুক্ত করে উঁচু করে জিওবি দিয়ে আটকাতে হবে অথবা বড় কোন সড়ক নির্ধারণ কওে ওই সড়কে পরিকল্পিতভাবে মাটি ফেলে জিওবি বিছিয়ে আটকানোর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। পরে এখানে বসতি (গ্রাম), বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গাছের বাগান ইত্যাদি হতে পারে।’
সুনামগঞ্জ পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আফছর উদ্দিন বললেন,‘তিনটি নদী খননে প্রায় ৭৫ লাখ কিউবিক পলি-বালি নদীর তলদেশ থেকে উঠবে। এই পলি ও বালি ঠিকাদার নিজ ব্যবস্থাপনায় ফেলবে। চুক্তিপত্রে এই কথা উল্লেখ থাকবে। এটি বুঝে শুনেই ঠিকাদারকে চুক্তি করতে হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24