সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

সুনামগঞ্জে টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউট- কাজ চলছে ধীর গতিতে

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : সোমবার, ২০ মে, ২০১৯
  • ২৯০ Time View

সুনামগঞ্জে টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউটের নির্মাণ কাজ চলছে ধীরগতিতে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিশিষ্টজনেরা বলেছেন,‘যেভাবে কাজ চলছে, এই গতিতে কাজ চললে ২০২০ (নির্ধারিত সময়) সালে এই কাজ শেষ হবে না।’
গত বছরের ৭ অক্টোবর সুনামগঞ্জে টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউটের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী (তৎকালীন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী) এম এ মান্নান এমপি এবং তৎকালীন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার উল্টোদিকে প্রায় ১০ কোটি টাকায় ৫ একর জমি অধিগ্রহণ শেষে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রায় ৭৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ইনস্টিটিউটের ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়।
ছাত্র নিবাস, ছাত্রী নিবাস, ডায়িং শেড, ওয়েডিং শেড, প্রিন্সিপাল কোয়ার্টার ও ভাইস প্রিন্সিপাল কোয়ার্টারের কাজ এক সঙ্গে শুরু হলেও রোববার (১৯ মে’২০১৯) পর্যন্ত একটি ভবনের কাজও দৃশ্যমান হয়নি।
দরপত্র আহ্বান কিংবা প্রাক্কলন তৈরি’র প্রক্রিয়ায় রয়েছে অফিসার ডরমেটরি, স্টাফ ডরমেটরি, স্পিনিং শেড, মসজিদ ও সাবস্টেশন ভবন। গণপূর্ত অফিসের একজন কর্মকর্তা বলেছেন,‘কাজ দ্রুত করার উদ্যোগের অভাব রয়েছে অফিসের ভেতরেই।’
স্থানীয় জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সোহেল তালুকদার বলেছেন,‘গত ৫ মাসে টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউটে দৃশ্যমান কোন কাজ হয়নি। কচ্ছপের গতিতে চলছে কাজ, এভাবে কাজ চললে ৫ বছরেও শেষ হবে না কাক্সিক্ষত এই প্রতিষ্ঠানের কাজ। মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান মহোদয়ের স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান এটি। হাওরাঞ্চলের তরুণদের যুগোপযোগি শিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্যই এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছেন তিনি। কারো গাফিলতিতে কাজ বিলম্বিত হোক, এটি নিশ্চয়ই তিনি চাইবেন না।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নূর হোসেন বললেন,‘কাজের গতি আমরা যেভাবে আশা করি, সেভাবে হচ্ছে না। এভাবে কাজ হলে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ হবে না, বিষয়টি মন্ত্রী (পরিকল্পনা মন্ত্রী) মহোদয়কেও অবহিত করবো।’
জানতে চাইলে টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটের প্রকল্প পরিচালক মো. সাইফুর রহমান বলেন,‘টেক্সটাইল ইসস্টিটিউটের ভবনগুলোর প্রাক্কলন তৈরি হয়েছিল ২০১৪ সনের দরে। দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে ২০১৮’এর দর অনুযায়ী। এজন্য এই প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। আরও এক একর জমিও প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণ করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। সব মিলিয়ে এই প্রকল্পের সংশোধিত ডিপিপি তৈরি করা হচ্ছে। অন্যদিকে ভবন নির্মাণেরও কাজ চলছে।’
তিনি জানান, ২০২০’এর জুন’এর মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবার কথা ছিল। গণপূর্ত বিভাগ এখন বলছে জুন’এর মধ্যে শেষ না হলেও ২০২০’এর ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করবে তারা। ২০২১ সাল নাগাদ সুনামগঞ্জ টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউটে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে।
সুনামগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আশরাফুল আলম বলেন,‘কাজের শুরুতে কিছু সমস্যা থাকে, ঠিকাদার এবং আমরা সেগুলো কাটিয়ে উঠেছি। যেমন ওখানে বিদ্যুৎ ছিল না, মালামাল প্রকল্পস্থলে নেবার সড়ক ছিল না। সেগুলো এখন হয়েছে। দৃশ্যমান কাজ অবশ্যই ঈদের পর দেখা যাবে, কাজের গতিও বাড়বে।’
প্রসঙ্গত. ২০২১ সালে বাংলাদেশে টেক্সটাইল সেক্টরে দুই লাখ ৭০ হাজার দক্ষ জনবল প্রয়োজন হবে। কিন্তু বর্তমানে এই কাজের জনবল তৈরির জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান চালু আছে, সেসব প্রতিষ্ঠান হতে ৮৭ হাজার ৯৫০ জন কর্মী বের হবে। এই ঘাটতি পূরণের জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সারা দেশে পর্যায়ক্রমে টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট, টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট ও টেক্সটাইল কলেজ স্থাপন করছে। সুনামগঞ্জ বাংলাদেশের একটি পশ্চাৎপদ অঞ্চল। এ অঞ্চলে ইতোপূর্বে কোন টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট স্থাপন করা হয়নি। দেশের উন্নয়ন অগ্রগতিকে আরো ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে এবং এই এলাকার শিক্ষার্থীদের দেশের উন্নয়নের কাজে অংশীদারিত্ব করার জন্যে সুনামগঞ্জ জেলায় একটি টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এই বিষয়টি উল্লেখ করে ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর বস্ত্রমন্ত্রণালয়ে অনুরোধপত্র পাঠিয়ে বস্ত্রমন্ত্রীকে এই বিষয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন এমএ মান্নান। এরপর থেকেই এই বিষয়ে কার্যক্রম শুরু হয়।
২০১৭ সালের ২৬ এপ্রিল একনেকে অনুমোদিত হয় সুনামগঞ্জ টেক্সটাইল ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউট প্রকল্প।
এই প্রকল্পটির অগ্রগতি শুরু থেকেই পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নানের নির্দেশে দেখভাল করছিলেন রাজধানীর লুজিং ফ্যাশন গ্রুপের পরিচালক পোশাক শিল্প উদ্যোক্তা শ্যামল রায়।
শ্যামল রায় জানিয়েছেন, মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রীর আগ্রহ দ্রুত এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হোক, সুনামগঞ্জ পিছিয়ে থাকা জেলা। এখানকার মানুষ একফসলি জমির উপর নির্ভরশীল। ফসলের উপর নির্ভর করে জীবনযাত্রা পরিচালনা করা কঠিন হয়ে উঠেছে। মানুষের বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হচ্ছে। সকলেই এখানে দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করবেন বলেই প্রত্যাশা আমাদের।

সৌজন‌্যে- সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24