1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
সুনামগঞ্জে শিশু ধর্ষণ, সালিশ থেকে ধর্ষক গ্রেফতার - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০২:১২ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে শিশু ধর্ষণ, সালিশ থেকে ধর্ষক গ্রেফতার

  • Update Time : শনিবার, ২২ জুন, ২০১৯
  • ৪৪৬ Time View

সুনামগঞ্জের ৯ বছরের শিশু কন্যাকে ধর্ষণের সাতদিন পর পুলিশ জালাল মিয়া (৩২) নামের এক ‘ধর্ষণকারীকে’ গ্রেফতার করেছে।

শুক্রবার রাত ৮টায় ছাতক থানা পুলিশ উপজেলার দুর্গম সীমান্তপল্লী বৈশাকান্দি বাহাদুরপুর গ্রামে চলা কথিত সালিস বৈঠক থেকে ভারতীয় একটি চোরাই মোটরসাইকেলসহ তাকে গ্রেপ্তার করে।

তিনি ছাতক উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী বনগাঁও গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে।

ধর্ষণের শিকার শিশুর অভিভাবক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বনগাঁও গ্রামে জালাল শুক্রবার দুপুরে পার্শ্ববর্তী বৈশাকান্দি বাহাদুরপুর গ্রামে কাজ দেওয়ার নাম করে এক দরিদ্র শ্রমিকের বাড়িতে যায়। ওই দিন দুপুরে শ্রমিকের ফাঁকা বসতঘরে হতদরিদ্র ওই শ্রমিকের ৯ বছরের শিশু কন্যাকে জালাল জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

শিশু কন্যার বাবা-মা বাড়ি ফিরলে তাদেরকে ও পাড়া-প্রতিবেশীর নিকট ঘর্ষণের ঘটনা খুলে বলে শিশু। এরপর রাতেই আইনি সহায়তা ও চিকিৎসা নিতে ভিকটিমকে নিয়ে তার পরিবারের লোকজন ছাতক উপজেলা সদরে যেতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য সালিস কঠোর বিচারের আশ্বাসে তাদেরকে উপজেলা সদরে যেতে বাঁধা দেন।

অভিযোগ রয়েছে, ওই ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য ও স্থানীয় কয়েকজন সালিশি ধর্ষণকারীর নিকট থেকে মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে ভিকটিমের পরিবারের লোকজনকে সালিসের নামে নানা অজুহাতে সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন।

এদিকে ঘটনা ধামাচাপা দিতে শুক্রবার বিকেলে ভিকটিমের গ্রামের বাড়ি লাগোয়া সাজানো সালিস বৈঠকে বসেন অভিযুক্ত ধর্ষণকারীকে নিয়ে ওই ইউপি সদস্য ও সালিসিরা।

এদিকে ধর্ষণের ঘটনায় ন্যায়বিচার প্রাপ্তির শঙ্কায় এলাকার লোকজন শুক্রবার সালিস বৈঠক চলাকালে ছাতক থানা পুলিশ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মুঠোফোনে ঘটনাটি অবহিত করেন।

এরপর থানা পুলিশ রাতে বৈশাকান্দি বাহাদুরপুর গ্রামে গিয়ে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পেয়ে চলমান সালিস বৈঠক থেকে ‘ধর্ষক’ জালালকে একটি ভারতীয় চোরাই মোটরসাইকেলসহ গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

শুক্রবার রাত সোয়া ৮টার দিকে ছাতক উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবদুল হাইর ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করে ঘটনা ও সালিস সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এখনো ঘটনা তদন্ত করছি, দেখি কী করা যায়।

সালিসে ধর্ষণের মত ঘটনা নিষ্পত্তি করা আইনসিদ্ধ কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমি ও কয়েকজন গ্রাম্য মুরুব্বী মিলে চেষ্টা করেছিলাম বিষয়টি মিটমাট করে দিত। কিন্তু গ্রামের কিছু যুবক মোবাইল করে থানা পুলিশ ও ইউএনও ম্যাডামকে জানালে আর তা সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টায় ছাতক থানার ওসি (তদন্ত) মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, প্রাথমিক তদন্তে ধর্ষণের সত্যতা পাওয়ায় অভিযুক্তকে একটি ভারতীয় চোরাই মোটরসাইকেলসহ পুলিশ গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com