বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি

হাওর দুর্গতি: ডুবিয়েছে পাউবো ও ঠিকাদার

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৪৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) গাফিলতি আর বাঁধ নির্মাণকারী ঠিকাদারদের দুর্নীতি-ব্যর্থতার কারণে সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের তিন লাখ কৃষক পরিবার পথে বসেছে। ঠিকাদারেরা হাওরের বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতের দায়িত্ব পেয়ে তা সময়মতো ও সঠিকভাবে শেষ করেননি। ফলে ফসল রক্ষা বাঁধগুলো একে একে ভেঙে ফসলহানির মতো বিপর্যয় ঘটে গেছে।

এ ধরনের বিপর্যয়ের আশঙ্কা আগেই করেছিল হাওরবিষয়ক উন্নয়ন সংস্থাগুলোর জোট ‘হাওর অ্যাডভোকেসি প্ল্যাটফর্ম’ ও নাগরিক সংগঠনগুলো। মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে তারা পাঁচটি জেলার সাতটি হাওরের বাঁধ নির্মাণকাজ পর্যবেক্ষণ করে তা জানিয়েছিল স্থানীয় প্রশাসনকে। এর দুই সপ্তাহ পরই প্রবল বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বাঁধ ভেঙে ফসলহানি ঘটে। এবার সুনামগঞ্জের হাওরে ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছিল। কৃষকেরা জানিয়েছেন, ৯০ শতাংশ ফসলই পানিতে ভেসে গেছে।

গতকাল মঙ্গলবার হাওর অ্যাডভোকেসি প্ল্যাটফর্ম (হ্যাপ) হাওরের বিপর্যয়ের কারণ ও করণীয় বিষয়ে একটি প্রতিবেদন চূড়ান্ত করেছে। তাতে এই বিপর্যয়ের পেছনে বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি-অনিয়মের পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) গাফিলতিকেও দায়ী করেছে। কারণ, পিআইসির দায়িত্ব ছিল বাঁধ মেরামত করা। আর বাঁধ নির্মাণ ও উঁচু করার দায়িত্ব ছিল ঠিকাদারদের।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পাউবোর মহাপরিচালক জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘কাজে গাফিলতির জন্য আমরা পাউবোর সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকেৌশলীকে প্রত্যাহার করে নিয়েছি। অন্য কোনো কর্মকর্তার গাফিলতি ছিল কি না, তা আমরা খতিয়ে দেখছি।’ তবে এই বিপর্যয়ের পেছনে হাওরের কৃষকদের ভূমিকাও আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা হাওর থেকে ধান কেটে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাঁধের ৮০০টি স্থান কেটে ফেলেছিল। এসব ভাঙা অংশ এত দ্রুত মেরামত করা যায়নি। আর এক সপ্তাহের মধ্যে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কয়েক গুণ বেড়ে যাওয়ায় এই বিপর্যয় ঘটে।

৩১ মার্চের মধ্যে বাঁধ নির্মাণের কাজ শেষ করার শর্তে ২৬টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ নিয়েছিল। তারা নির্দিষ্ট সময়ে কাজ শেষ করতে পারেনি। যতটুকু হয়েছে, তাও নিম্নমানের বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে পাউবোর অবস্থান জানতে চাইলে মহাপরিচালক বলেন, এ বিষয়ে পাউবো, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্ত কমিটি করেছে।

এদিকে হাওরের উন্নয়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত অপর সরকারি সংস্থা হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালকসহ চার শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা ১৮ এপ্রিল কানাডা সফরে গেছেন। ৩ মে তাঁদের দেশে ফেরার কথা। এ বিষয়ে বোর্ডের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

হ্যাপের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. শরিফুজ্জামান বলেন, ‘হাওরের এই মহাবিপর্যয়ের পেছনে পাউবোর দুর্নীতি-অনিয়ম এবং ঠিকাদারদের গাফিলতির বিষয়টি আমরা গত মার্চ থেকে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে জানিয়েছি। হাওরবাসীর প্রতি এই নিদারুণ অবহেলার আরেকটি প্রমাণ হলো, এই দুর্যোগের সময় হাওর বোর্ডের কর্মকর্তারা বিদেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।’

জানতে চাইলে পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ পবলেন, হাওরের বেশির ভাগ কাজ করে পাউবো। হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন বোর্ড পরিকল্পনার কাজ করে। আর হাওরের বাঁধের উচ্চতা ৬ দশমিক ৫ মিটার। কিন্তু অতিবৃষ্টি ও ঢলের কারণে পানির উচ্চতা ৭ থেকে ৮ দশমিক ১ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়েছিল। ফলে বাঁধ টপকে হাওরে পানি ঢুকেছে।

হ্যাপের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাঁধ নির্মাণের বরাদ্দ ডিসেম্বরে দেওয়া হলেও পিআইসি তাদের কমিটির নাম চূড়ান্ত করেছে ফেব্রুয়ারিতে। ওই কমিটির অনুমোদন ছাড়া ঠিকাদারেরা কাজ শুরু করতে পারেন না। প্রতিটি উপজেলায় স্থানীয় সাংসদের তিনজন প্রতিনিধি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের তিনজন প্রতিনিধি ওই কমিটিতে থাকেন। তাঁরা প্রতিটি প্রকল্পের নির্মাণকাজের অনুমোদন দেন ও তদারকি করে থাকেন।

হাওরে বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধানে পাউবোর গঠিত তদন্ত কমিটিও পিআইসির গাফিলতিকে দায়ী করেছে। একই সঙ্গে তারা ঠিকাদারদের ওপরও দোষ চাপিয়েছে। তবে এই বিপর্যয়ের পেছনে তারা সবচেয়ে বেশি দায়ী করছে আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনাকে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরে হাওরের জন্য ৮৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল। এর মধ্যে পাউবোর মাধ্যমে ৬৫ কোটি টাকা ও স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) কর্মসূচির আওতায় ২১ কোটি টাকা দেওয়া হয়। কিন্তু ৩১ মার্চের মধ্যে ওই কাজের ৬৫ শতাংশ শেষ হয়। আর ঠিকাদারদের ৩১ কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়।

বাঁধ নির্মাণে তিন কোটি টাকার তিনটি কাজের ঠিকাদারি পেয়েছিল মেসার্স নুর ট্রেডিং নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এর স্বত্বাধিকারী সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খাইরুল হুদা চপল। তাঁর ভাই সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট। খাইরুল হুদা প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা এসব ছোটখাটো কাজ করি না। আমার ঠিকাদারি লাইসেন্স ব্যবহার করে অন্যরা হাওরের এ কাজ নিয়েছে। কাজের গাফিলতি ও নিম্নমান নিয়ে আমি কিছু বলতে পারব না।’

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সহসভাপতি সজীব রঞ্জন দাশের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নয়টি প্যাকেজে প্রায় ছয় কোটি টাকার কাজ পেয়েছে। কাজের গাফিলতি ও নিম্নমান নিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা জানুয়ারিতে কার্যাদেশ পেয়েছি। আর মার্চে কাজ শুরু করতে না করতে বৃষ্টি শুরু হয়ে যায়। ফলে ৬০ শতাংশের বেশি কাজ করা যায়নি। নিম্নমানের কাজের অভিযোগের কথা বলা হলে তিনি বলেন, ‘মাটি দিয়ে বাঁধ নির্মাণে মানের কোনো প্রশ্ন নেই। এখানে তো ইট-সিমেন্ট ব্যবহার হচ্ছে না।’

হ্যাপের হাওরবিষয়ক প্রতিবেদনের সমন্বয়কারী আনিসুল ইসলাম বলেন, বিপর্যয়ের পেছনে দায়ী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না দিলে এ ঘটনা আবারও ঘটবে। বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় হাওরে জরুরি অবস্থা ও দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত।
সুত্র- প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24