৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুরের মাটিতে উড়ে লাল সবুজের পতাকা

অমিত দেব.:: ৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস। এই দিনে জগন্নাথপুরের মাটিতে উড়ে লাল সবুজের পতাকা। স্বাধীনবাংলাদেশে আরো একটি ভূখন্ড স্বাধীনতা পায়। রাজা বিজয় সিংহের স্মৃতি বিজড়ীত জগন্নাথপুর উপজেলা এক প্রাচীন জনপথ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনসহ বিভিন্ন সময় সংঘটিত সকল আন্দোলন সংগ্রামে জগন্নাথপুরবাসী ছিল অগ্রভাগে।একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় ও জগন্নাথপুরের জনতা অগ্রভাগে থেকে অবিস্মরনীয় ভূমিকা পালন করছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এক কালজয়ী অবস্মরনীয় ঘটনা। অঞ্চলভেদে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ের ঘটনা সমূহ আজো বাংলার ইতিহাসে চীরঞ্জিব হয়ে আছে। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলা এক অন্যতম ইতিহাস বহুল উপজেলা হিসেবে স্বীকৃত। বৃহত্তর সিলেট বিভাগের মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় ঘটেছে দু- দুটো মর্মস্পশী গণহত্যা। সুনামগঞ্জ জেলার উত্তর পূর্ব এবং উত্তর পশ্চিম সীমান্ত জুড়েই প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের অবস্থান। মেঘালয়ের পাদদেশে অবস্থিত সুনামগঞ্জ জেলার সকল উপজেলা হাওর বাওড় খাল বিল ও জলাশয়ে ভরপুর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দ্বীপছিল। পাকবাহিনী নৌকাযোগে এ উপজেলায় আসে। ইতিহাস মতে, জগন্নাথপুরে পাক বাহিনীর দোসর শান্তি কমিটি গঠন নিয়ে তুমুল প্রতিদ্বন্ধিতা হয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে মুসলিমলীগ জগন্নাথপুর থানা কমিটির সভাপতি ছিলেন, উপজেলার চিলাউড়া -হলদিপুর ইউনিয়নের হলদিপুর গ্রামের আব্দুস সোহান চৌধুরী ওরফে ছোবা মিয়া। প্রথমে তিনি এ উপজেলায় শান্তি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেন। সেসময় জগন্নাথপুর থানার ওসিকে নিয়ে পাকবাহীনির মেজরের সাথে দেখা করে তার পরামর্শে শান্তি কমিটি গঠন করে তিনি শান্তি কমিটির কনভেনার হন। তাছাড়া তার ছেলে আব্দুল হান্নান চৌধুরী সুফি মিয়া ও মেয়ের জামাই সফিক চৌধুরীকে সদস্য করে পাকবাহিনীকে জগন্নাথপুরে আসার আহ্বান জানান। এতে বাধ সাধেন জগন্নাথপুরের হবিবপুর গ্রামের আছাব আলী ও ইকড়ছই গ্রামের গোলাম মোস্তফা। তারা শান্তি কমিটির কনভেনার হতে লবিং শুরু করেন। আছাব আলী পাক মেজরকে বুঝিয়ে নিজেই শান্তি কমিটির কনভেনারের দায়িত্ব নেন। পরবর্তীতে আছাব আলী ও আব্দুস সোবহান চৌধুরী ছোবা মিয়া সিলেটে গিয়ে পাক মেজরের সাথে বৈঠক করে পাকসেনাদের জগন্নাথপুরে নিয়ে আসতে রাজি করান। ২৭ আগষ্ট শুক্রবার ভোরে প্রায় ৫ শতাধিক পাকসেনা স্থানীয় রাজাকারদের নিয়ে জগন্নাথপুরে আসে। এবং হবিবপুর গ্রামের রাজাকার এহিয়ার বাড়িতে উঠে। সেখানে রাজাকারদের নিয়ে বৈঠক করে জগন্নাথপুর থানা আক্রমনের পরিকল্পনা করে। পরদিন সকালে পাকিস্তান জিন্দাবাদ,এহিয়া খান জিন্দাবাদ ও শেখ মুজিব মুর্দাবাদ ধ্বনি দিয়ে ফাঁকাগুলি বর্ষন করে আতংক সৃষ্টি করে জগন্নাথপুর প্রবেশ করে। অবস্থা বেগতিক দেখে স্থানীয় মুক্তিবাহীনির সদস্যরা বিনা বাধায় মুক্তাঞ্চল হিসেবে থাকা জগন্নাথপুর উপজেলাকে তাদের দখলে নিয়ে যায়। ওই দিনই পাকবাহিনীর সহযোগীতায় রাজাকাররা মির্জাবাড়ীসহ জগন্নাথপুরের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা বাড়ীতে লুটপাট চালায়। এমনকি লুটপাটের মালামাল প্রকাশ্য নিলাম ডেকে বিক্রি করে পাকবাহিনীর হাতে তুলে দেয়। পরদিন আবারও পাকবাহিনী মির্জাবাড়ীতে হামলা চালিয়ে ৫টি ঘর দরজা ভাংচুর করে। এবং মির্জাবাড়ীতে পাকবাহিনীর ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। সেখানে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় লোকজনদের ধরে এনে নির্যাতন করতো। উপজেলার মজিদপুর গ্রামের বিপুল চন্দ্র দেবকে মির্জা বাড়িতে এনে আটক রাখা হয়। পরে পাকবাহিনীর দোসর আছাব আলীর অনুরোধে তাকে ছেড়ে দেয় পাকবাহিনী। দেশ স্বাধীনের পর ৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি মির্জা আব্দুল খালেক বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় পাক মেজর ও স্থানীয় রাজাকারদের বিরুদ্ধে এক লাখ ১১ হাজার তিনশত টকা ক্ষতিপূরনের মামলা করেন। ( এছাড়াও দেশ স্বাধীনের পর পর মুক্তিযোদ্ধারা স্থানীয় রাজাকারকে ধরে এনে উপজেলা পরিষদে তৎকালীন নির্মিত খোয়াড়ে রাজাকারদের ধরে এনে খোয়ারে রাখতেন।
এউপজেলার কৃতি সন্তান প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও আব্দুর রইছ ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। আব্দুস সামাদ আজাদ মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে দেশে বিদেশে অসমান্য অবদান রেখেছেন। আর আব্দুর রইছ এর প্রচেষ্ঠায় গঠিত হয় সংগ্রাম কমিটি। উক্ত কমিটিতে আব্দুর রইছ এমপি সভাপতি সুধীর চন্দ্র গোপ সহ-সভাপতি হারুণ রশিদ সাধারণ সম্পাদক, সৈয়দ ফখরুল ইসলাম, সৈয়দ খালিক মিয়া,বুলবুল আহমদ হবিবপুর,বশির মিয়া হবিবপুর, জব্বার মিয়া ভূরাখালি) ও নুরুল ইসলাম ঘোষগাঁও কে সদস্য রাখা হয়। এছাড়াও বিশেষ ভূমিকা রাখেন সৈয়দ আব্দুল হান্নান সৈয়দপুর, সৈয়দ আতাউর রহমান সৈয়দপুর, আবুল বাশার চৌধুরী ব্যারিষ্টার আব্দুল মতিন (মির্জাবাড়ী),ব্রজেন্দ্র কিশোর চৌধুরী,শিশির চৌধুরী অন্যতম।
৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি:: ২৯ আগষ্ট শ্রীরামসিতে আসে উপজেলার চিলাউড়া গ্রামের রাজাকার আব্দুল ওয়াতির ও মছলম উল্যাহ। তারা শ্রীরামসিতে এসে গ্রামের মানুষকে আকর্ষনীয় সুযোগ সুবিধা ও বেতন ভাতার লোভ দেখিয়ে রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দেয়। কিন্তুু গ্রামের মুক্তিকামী মানুষ তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে তাদেরকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেয়। এসময় ওই দুই রাজাকার হুমকি দিয়ে গ্রামবাসীকে শাসিয়ে যায়। পরে রাজাকাররা শ্রীরামসিতে মুক্তিবাহিনীর ক্যাম্প আছে একথা পাকবাহিনীকে বুঝিয়ে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসিতে নিয়ে আসে। জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ ছাতক ও সিলেটের বিশ্বনাথ,গোয়ালাবাজার সীমান্তে অবস্থিত জগন্নাথপুর উপজেলা। জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কের ওপর দিয়ে অবস্থিত মীরপুর বাজার। তারপরই মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গ্রামের মধ্যস্থলে শ্রীরামসি বাজার, প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও মাদ্রাসার অবস্থান। এছাড়াও ভূমি অফিস,পোষ্ট অফিস সহ সরকারী অফিস থাকায় সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী ও ব্যবসায়ীদের অবস্থান ছিল শ্রীরামসি বাজারে। স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগীতায় পাক বাহিনী বিশাল বহর নিয়ে নৌকাযোগে শ্রীরামসিতে প্রবেশ করে সকাল ১০টার মধ্যে পুরোগ্রাম তাদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে গ্রামবাসীকে শ্রীরামসি হাইস্কুল মাঠে শান্তি কমিটির সভায় যোগদিতে আহ্বান জানায়। যারা আসতে চাননি তাদেরকে বাড়ি থেকে জোর করে ধরে আনা হয়। সমবেত লোকজনকে দুই ভাগে বিভক্ত করে পাকসেনারা। বিদ্যালয়ের দুটি কক্ষে আটক করে বেঁধে ফেলে। এক গ্রুপে যুবক ও অন্য গ্রুপে বয়স্কদেরকে রাখা হয়। সেখানে মারধর করে নির্যাতনের পর যুবকদলকে নিয়ে যাওয়া হয় শ্রীরামসি গ্রামের রহিম উল্যার বাড়িতে এবং অপরগ্রুপকে নিয়ে যাওয়া হয় নজির মিয়ার বাড়ীর পুকুর পাড়ে। দু.গ্রুপের লোকজনকেই সারিবদ্ধ করে হাত বেঁধে লাইনে দাঁড় করিয়ে টানা গুলিবর্ষণ করা হয়। এসময় রহিম উল্যাহর বাড়িতে লাইনে দাঁড়ানো ৫ জন নিজেকে পাক বাহিনীর সমর্থক বলে দাবী করে প্রানভিক্ষা চায়। স্থানীয় এক রাজাকার আত্বীয় পরিচয় দিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়ার সুপারিশ করলে শ্রীরামসি বাজার আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার শর্তে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। অবশ্য মুক্তি পাওয়ার পর তারা গ্রামছেড়ে সটকে পড়েন। এছাড়াও পাকবাহিনীর বন্ধনমুক্ত হয়ে পালিয়ে বাঁচেন শ্রীরামসি গ্রামের হুশিয়ার আলী,ডা: আব্দুল লতিফ,জওয়াহিদ চৌধুরী। পাকবাহিনীর টানা গুলিবর্ষনে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যারা সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে গিয়েছিলেন তাঁরা হলেন, শ্রীরামসি ডাকঘরের নৈশ্যপ্রহরী আব্দুল লতিফ,জোয়াহির চৌধুরী (গদাভাট) ছফিল উদ্দিন (দিঘীরপাড়) তপন চক্রবর্তী (নিহত তহশীলদারের ভাই)আমজাদ আলী,ইলিয়াছ আলী এলকাছ আলী,সুন্দর আলী প্রমুখ। আর যারা শহীদ হয়েছিলেন তাঁরা হলেন,শ্রীরামসি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ছাদ উদ্দিন,বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক (হেড মাওলানা) মৌলানা আব্দুল হাই, তহশীলদার সত্যেন্দ্র নারায়ন চৌধুরী সহকারী তহশীলদার এহিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফ হোসেন পোষ্ট মাষ্টার) আব্দুল বারি (ইউ.পি সদস্য) ফিরোজ মিয়া (প্রবাসী কাদিপুর) এখলাসুর রহমান(দিঘীরপাড়), সামছু মিয়া(সাতহাল) ওয়ারিছ মিয়া(সাতহাল), আব্দুল জলিল(সাতহাল),মানিক মিয়া(সাতহাল) ছুয়াব মিয়া(সাতহাল),আব্দুল লতিফ(সাতহাল) রইছ উল্যাহ(সাতহাল), দবির মিয়া(আব্দুল্লাহপুর) মরম উল্যাহ(গদাভাট) মমতাজ আলী(রসুলপুর),আব্দুল মজিদ(রসুলপুর), নজির মিয়া(রসুলপুর),মজিদ মিয়া(রসুলপুর), সুনু মিয়া (রসুলপুর) আব্দুল মান্নান(শ্রীরামসি বাজার) অজ্ঞাত পরিচ দর্জি(রসুলপুর)ছামির আলী (পশ্চিম শ্রীরামসি) রুপু মিয়া(শ্রীরামসি)রুস্তম আলী(শ্রীরামসি)আছাব মিয়া(শ্রীরামসি)তৈয়ব আলী(শ্রীরামসি)রোয়াব আলী,তোফাজ্জল আলী,মছদ্দল আলী(শ্রীরামসি)শহীদ অজ্ঞাত পরিচয় শিক্ষক (শ্রীরামসি মডেল প্রাইমারি স্কুল) শহীদ অজ্ঞাতনামা পোষ্ট মাষ্টার(শ্রীরামসি ডাকঘর) অজ্ঞাতনামা ডাক পিয়ন(শ্রীরামসি ডাকঘর)অজ্ঞাতনামা দোকান সহকারী(শ্রীরামসি বাজার) আব্দুল মান্নান (হবিবপুর) শহীদ নুর মিয়া, জহুর আলী। এ হত্যাযজ্ঞে ১২৬ জন লোককে সেদিন গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। পরে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকহানাদার বাহিনী শ্রীরামসি বাজারে গিয়ে কেরোসিন ছিটিয়ে সবকটি দোকানঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। শ্রীরামসি গ্রামে ঢুকে বাগি বাড়ি গিয়ে জনমানব শুন্য ঘরবাড়িতে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ চালায়। দাউ দাউ করে জ্বলে শ্রীরামসি গ্রাম ও শ্রীরামসি বাজার। শ্রীরামসি গণহত্যায় নিহতদের মৃতদেহ পুরোগ্রামে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে। জনমানবশুন্য গ্রামে শিয়াল কুকুর লাশগুলো নিয়ে টানাটানি করে। ৪/৫ দিন পর কেউ কেউ গ্রামে এসে মরদেহগুলো একত্রে করে এক এক গর্তে পুঁতে রাখেন। ইতিহাসের বর্বর এই গণহত্যার খবর নয়াদিল্লী থেকে তৎকালীন বিবিসি সংবাদদাতা বেতারযোগে বিশ্ববাসীকে জানান। দেশ স্বাধীনের পর মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানী শ্রীরামসি গণহত্যার স্থান পরির্দশন করেন। ১৯৮৬ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের দাবীর প্রেক্ষিতে শ্রীরামসি শহীদের স্মরণে তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরীর সহায়তায় নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতিফলক। ওই ফলকে লেখা আছে প্রাপ্ত শহীদের নাম পরিচয়। ১৯৮৭ সালে শ্রীরামসি গ্রামবাসী শহীদ স্মৃতি সংসদ নামে একটি সংগঠন গঠন করে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি গণহত্যার দিবসকে আঞ্চলিক শোক দিবস হিসেবে পালন করতে শুরু করেন। এখন পর্যন্ত শহীদ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আঞ্চলিক শোক দিবস পালিত হচ্ছে। তবে শ্রীরামসি গ্রামের যে দুই বাড়িতে গণহত্যা হয়েছিল। তন্মেধ্যে শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের রহিম উল্যাহর বাড়িতে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিসৌধ। তবে রহিম উল্যাহর বাড়িটি একটি খালের কারণে বিশ্বনাথ উপজেলায় অর্ন্তভুক্ত হয়। স্মৃতি সৌধের ডিজাইনার সিরাজ উদ্দিন মাষ্টার বলেন, চেতনা থেকে ব্যক্তিউদ্যোগ এ কাজ করা হয়েছে। যে বাড়ীতে ঘটনাটি ঘটেছে তাদের আর্থিক অনুদানে কাজ করা হয়েছে। পরবতীতে জেলা পরিষসহ অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। তিনি জানান,
অপরদিকে জগন্নাথপুর উপজেলায় অন্তুভূক্ত শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের নজিব উল্যাহর বাড়িতে আজ অবধি হয়নি কোন স্মৃতিসম্ভ। ওই গণ্যহত্যায় নজিব উল্যাহ নিজেও শহীদ হয়েছিলেন।
রানীগঞ্জ বাজার গণহত্যা:: শ্রীরামসি হত্যার পরদিন অর্থ্যাৎ ১ সেপ্টেম্বর পাকবাহিনী রানীগঞ্জ বাজারে গণহত্যা চালায় । কুশিয়ারা নদীর তীরে অবস্থিত রানীগঞ্জ বাজারটি ছিল বড় নৌবন্দর। যে কারণে বাজারে বিভিন্নস্থান থেকে ক্রেতা বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের উপস্থিতি ছিল। কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এ নৌবন্দরে পাকবাহিনীরা নৌকাযোগে বাজারে আসে। স্থানীয় দালাল হবিবপুর গ্রামের আহমদ আলী, আছাব আলী, রানীগঞ্জের মনোয়র আলী ও ইয়াহিয়া বিশেষ ভূমিকা রাখে। পাকবাহিনীর নের্তৃত্বে ছিলেন পাকসেনাদের দলনেতা সবেদার সরফরাজ খান। বাজারে প্রবেশ করে শান্তি কমিটি গঠনের কথা বলে লোকজনকে ধরে এনে লাইনে দাঁড় করায়। সবাইকে কুশিয়ারা নদীর তীরে নিয়ে যায়। এবং নির্দেশ দেয় রানীগঞ্জ বাজারে অগ্নিসংযোগ করার। সাথে সাথে আগুনের লেলিহান শিকায় ভস্মিভূত হলো রানীগঞ্জ বাজারের ১২৮টি দোকান ঘর। পাকবাহিনীর দাঁড় করানো লাইনে দুই শতাধিক মানুষ মৃত্যুর প্রহর গুনছিল। মুহুর্তেই গুলির শব্দে প্রকম্পিত হয়ে শান্ত কুশিয়ারা নদীতীরের রানীগঞ্জ বাজারটি। রক্তেরঞ্জিত হয়ে কুশিয়ারা নদীর সাদা জল লালচে হয়ে উঠে। প্রাণ হারান কমপক্ষে দেড় শতাধিক মানুষ। পঞ্চাশ জনের মতো মানুষ আহত হয়ে কুশিয়ারার ¯্রােতে ভাসতে ভাসতে বেঁচে যান। তাঁদেও মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন মজম্মিল আলী,হুসিয়ার আলী,ওয়াহিদ আলী, খলিল অঅহমদ,জওয়াহেদ আলী,তফজ্জুল আলী,বিনোদ রায়, আকলু মিয়া,আলকাছ আলী,ফরিদ আহমদ,ইদ্রিছ আলী প্রমুখ। যারা প্রাণ হারিয়েছিলেন তাদের মধ্যে যাদেও নাম পাওয়া গেছে তাঁরা হলেন রানরীগঞ্জ ইউনিয়নের গর্ন্ববপুর গ্রামের দুই ভাই আকিক হোসেন ও আনোয়ার হোসেন,আলীপুর গ্রামের মন্তাজ আলী,আকাল মিয়া,ধন মিয়া,আব্দুল নূও,ধন মিয়া(২),বাসখনায়র মোজাম্মিল আলী,আফতাব আলী, শ্রীমতপুরের মানিক মিয়া, নাইওর মিয়া,উত্তর লামরুর রসিক উল্যা, বোয়ালজোড়ের আব্দুল মনাফ,হোসেনপুরের অশ্বিনী কুমার নাথ,বেনগাঁওয়ের জানু মিয়া,কান্দিপাড়ার দরছ মিয়া,দেবপাড়ার নিমাই নমঃশুদ,গুজাখাইয়ের প্রমোদ রঞ্জন শীল,দৌলতপুরের সুরত মিয়া,হরহরপুরের আবু মিয়া,ছালামতপুরের হাবিব মিয়া,শিবপাশাল ¯েœহালতা চক্রবর্তী,কানাইপুরের কুমুদ চক্রবর্তী,সুরেশ মহালদার,হীরা লাল সাহা,রসিক লাল সাহা,রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী সুরেশ চন্দ্র চৌধুরী,আলফু মিয়া,আব্দুল মজিদ,আব্দুল মচ্ছবির,মদই উল্যাহ, এছাড়াও তাছির উদ্দিন, আলকাছ মিয়া,তছই মিয়া,আহমদ চৌধুরী,কাছম আলী,তরমুছ আলী,আব্বাস উদ্দিন,জাফর আলী, লালির আলী,আব্দুল আজিজ(২),মচ্ছব্বির আলী, সিরাজুল ইসলাম,গৌছুল আলম,বোরহান উদ্দিন,আব্দুল মোমিন,মিছির আলী,আলতা মিয়া, সারং মোহাম্মদ,আনার মোহাম্মদ,তাজু মিয়া,আব্দুল আলীম,মকবুল হোসেন,ছয়েফ উল্যাহ,আব্দুল মজিদ,মাসুক আহমদ,নূর মিয়া(২) আব্দুল আজিজ,জাফর আলী,ইউসুফ আলী,ফাজিল মিয়া,আব্দুল হেকিম,আলফু মিয়া,মদরিছ আলী,সোনাফর আলী,তাছির উদ্দিন প্রমুখ অন্যানদেও নাম পরিচয় উদ্ধার হয়নি। কুশিয়ারা ¯্রােতে ভেসে যায় লাশগুলো রানীগঞ্জ গণহত্যা ও অগ্নিসংযোগের পর চলে রানীগঞ্জ বাজার জুড়ে লুটপাটের মহোৎসব। রানীগঞ্জ গণহত্যায় লাইনে দাঁড়ানো সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া মজম্মিল আলী সেদিনের মর্মস্পর্শী দিনের বর্ণনা দিয়ে বলেন, পাক হানাদার বাহিনী আমাদেরকে হাত পা বেঁধে কুশিয়ারা নদীর তীরে লাইন ধরিয়ে গুলি চালায়। প্রথম গুলির সাথে সাথে আমি মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। পরে আমাদেরকে আবারও লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি চালালে আমি লাফ দিয়ে কুশিয়ারা নদীতে ঝাপিড়ে পড়ি। তখন একটি গুলি আমার পায়ে লাগে। কিছু জায়গা যাওয়ার পর একটি ঝুলন্ত ল্যাট্রিনের বাশে ধরে আঁকড়ে থাকি। এবং বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দেই। পরে লোকজন এসে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসক আমার পা কেটে ফেলেন। পঙ্গুত্ব নিয়ে বেঁচে আছি আজো। জীবনের শেষ সায়েন্সে এসে একটাই চাওয়া যাদের কারণে আমার এমন হয়েছে সেই যুদ্ধাপরাধী রাজাকারদের ফাঁসি দেখে যাওয়া।
দেশ স্বাধীনের পর পর মুক্তিবাহিনীরা রাজাকার মনোহর আলীকে হত্যা করে এসময় রাজাকার আব্দুর রাজ্জাক ও ইয়াহিয়া পালিয়ে বাঁচেন। ১৯৮৭ সালে তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরী রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদেও স্মৃতি স্মরনে একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করেন। যা আজো কালের স্বাক্ষী হয়ে আছে। ২০১০ সালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ এর প্রস্তাবে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি ও ১ সেপ্টেম্বও রানীগঞ্জ গণহত্যার শহীদের স্মরণে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন কর্মসূচী বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেন। যা আজো চলমান রয়েছে।
রানীগঞ্জ ও শ্রীরামসি হত্যাকান্ডোর মতো পাকবাহিনী জগন্নাথপুর বাজারে গণহত্যার প্রস্তুুতি নিয়েছিল। বাজারের লোকজনসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষকে নলজুর নদীর তীরে লাইন ধরিয়েছিল্। ঠিক সেই মুহুতে বার্তা আসে গণহত্যা না করার জন্য তাই দুই শতাধিক মানুষ প্রাণে বেঁচে যান।
০৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর মুক্ত হয়। উঠে জাতীয় পতাকা। জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুরের মাটিতে উড়ে লাল সবুজের পতাকা

অমিত দেব.:: ৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস। এই দিনে জগন্নাথপুরের মাটিতে উড়ে লাল সবুজের পতাকা। স্বাধীনবাংলাদেশে আরো একটি ভূখন্ড স্বাধীনতা পায়। রাজা বিজয় সিংহের স্মৃতি বিজড়ীত জগন্নাথপুর উপজেলা এক প্রাচীন জনপথ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনসহ বিভিন্ন সময় সংঘটিত সকল আন্দোলন সংগ্রামে জগন্নাথপুরবাসী ছিল অগ্রভাগে।একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় ও জগন্নাথপুরের জনতা অগ্রভাগে থেকে অবিস্মরনীয় ভূমিকা পালন করছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এক কালজয়ী অবস্মরনীয় ঘটনা। অঞ্চলভেদে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ের ঘটনা সমূহ আজো বাংলার ইতিহাসে চীরঞ্জিব হয়ে আছে। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলা এক অন্যতম ইতিহাস বহুল উপজেলা হিসেবে স্বীকৃত। বৃহত্তর সিলেট বিভাগের মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় ঘটেছে দু- দুটো মর্মস্পশী গণহত্যা। সুনামগঞ্জ জেলার উত্তর পূর্ব এবং উত্তর পশ্চিম সীমান্ত জুড়েই প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের অবস্থান। মেঘালয়ের পাদদেশে অবস্থিত সুনামগঞ্জ জেলার সকল উপজেলা হাওর বাওড় খাল বিল ও জলাশয়ে ভরপুর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দ্বীপছিল। পাকবাহিনী নৌকাযোগে এ উপজেলায় আসে। ইতিহাস মতে, জগন্নাথপুরে পাক বাহিনীর দোসর শান্তি কমিটি গঠন নিয়ে তুমুল প্রতিদ্বন্ধিতা হয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে মুসলিমলীগ জগন্নাথপুর থানা কমিটির সভাপতি ছিলেন, উপজেলার চিলাউড়া -হলদিপুর ইউনিয়নের হলদিপুর গ্রামের আব্দুস সোহান চৌধুরী ওরফে ছোবা মিয়া। প্রথমে তিনি এ উপজেলায় শান্তি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেন। সেসময় জগন্নাথপুর থানার ওসিকে নিয়ে পাকবাহীনির মেজরের সাথে দেখা করে তার পরামর্শে শান্তি কমিটি গঠন করে তিনি শান্তি কমিটির কনভেনার হন। তাছাড়া তার ছেলে আব্দুল হান্নান চৌধুরী সুফি মিয়া ও মেয়ের জামাই সফিক চৌধুরীকে সদস্য করে পাকবাহিনীকে জগন্নাথপুরে আসার আহ্বান জানান। এতে বাধ সাধেন জগন্নাথপুরের হবিবপুর গ্রামের আছাব আলী ও ইকড়ছই গ্রামের গোলাম মোস্তফা। তারা শান্তি কমিটির কনভেনার হতে লবিং শুরু করেন। আছাব আলী পাক মেজরকে বুঝিয়ে নিজেই শান্তি কমিটির কনভেনারের দায়িত্ব নেন। পরবর্তীতে আছাব আলী ও আব্দুস সোবহান চৌধুরী ছোবা মিয়া সিলেটে গিয়ে পাক মেজরের সাথে বৈঠক করে পাকসেনাদের জগন্নাথপুরে নিয়ে আসতে রাজি করান। ২৭ আগষ্ট শুক্রবার ভোরে প্রায় ৫ শতাধিক পাকসেনা স্থানীয় রাজাকারদের নিয়ে জগন্নাথপুরে আসে। এবং হবিবপুর গ্রামের রাজাকার এহিয়ার বাড়িতে উঠে। সেখানে রাজাকারদের নিয়ে বৈঠক করে জগন্নাথপুর থানা আক্রমনের পরিকল্পনা করে। পরদিন সকালে পাকিস্তান জিন্দাবাদ,এহিয়া খান জিন্দাবাদ ও শেখ মুজিব মুর্দাবাদ ধ্বনি দিয়ে ফাঁকাগুলি বর্ষন করে আতংক সৃষ্টি করে জগন্নাথপুর প্রবেশ করে। অবস্থা বেগতিক দেখে স্থানীয় মুক্তিবাহীনির সদস্যরা বিনা বাধায় মুক্তাঞ্চল হিসেবে থাকা জগন্নাথপুর উপজেলাকে তাদের দখলে নিয়ে যায়। ওই দিনই পাকবাহিনীর সহযোগীতায় রাজাকাররা মির্জাবাড়ীসহ জগন্নাথপুরের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা বাড়ীতে লুটপাট চালায়। এমনকি লুটপাটের মালামাল প্রকাশ্য নিলাম ডেকে বিক্রি করে পাকবাহিনীর হাতে তুলে দেয়। পরদিন আবারও পাকবাহিনী মির্জাবাড়ীতে হামলা চালিয়ে ৫টি ঘর দরজা ভাংচুর করে। এবং মির্জাবাড়ীতে পাকবাহিনীর ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। সেখানে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় লোকজনদের ধরে এনে নির্যাতন করতো। উপজেলার মজিদপুর গ্রামের বিপুল চন্দ্র দেবকে মির্জা বাড়িতে এনে আটক রাখা হয়। পরে পাকবাহিনীর দোসর আছাব আলীর অনুরোধে তাকে ছেড়ে দেয় পাকবাহিনী। দেশ স্বাধীনের পর ৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি মির্জা আব্দুল খালেক বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় পাক মেজর ও স্থানীয় রাজাকারদের বিরুদ্ধে এক লাখ ১১ হাজার তিনশত টকা ক্ষতিপূরনের মামলা করেন। ( এছাড়াও দেশ স্বাধীনের পর পর মুক্তিযোদ্ধারা স্থানীয় রাজাকারকে ধরে এনে উপজেলা পরিষদে তৎকালীন নির্মিত খোয়াড়ে রাজাকারদের ধরে এনে খোয়ারে রাখতেন।
এউপজেলার কৃতি সন্তান প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও আব্দুর রইছ ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। আব্দুস সামাদ আজাদ মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে দেশে বিদেশে অসমান্য অবদান রেখেছেন। আর আব্দুর রইছ এর প্রচেষ্ঠায় গঠিত হয় সংগ্রাম কমিটি। উক্ত কমিটিতে আব্দুর রইছ এমপি সভাপতি সুধীর চন্দ্র গোপ সহ-সভাপতি হারুণ রশিদ সাধারণ সম্পাদক, সৈয়দ ফখরুল ইসলাম, সৈয়দ খালিক মিয়া,বুলবুল আহমদ হবিবপুর,বশির মিয়া হবিবপুর, জব্বার মিয়া ভূরাখালি) ও নুরুল ইসলাম ঘোষগাঁও কে সদস্য রাখা হয়। এছাড়াও বিশেষ ভূমিকা রাখেন সৈয়দ আব্দুল হান্নান সৈয়দপুর, সৈয়দ আতাউর রহমান সৈয়দপুর, আবুল বাশার চৌধুরী ব্যারিষ্টার আব্দুল মতিন (মির্জাবাড়ী),ব্রজেন্দ্র কিশোর চৌধুরী,শিশির চৌধুরী অন্যতম।
৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি:: ২৯ আগষ্ট শ্রীরামসিতে আসে উপজেলার চিলাউড়া গ্রামের রাজাকার আব্দুল ওয়াতির ও মছলম উল্যাহ। তারা শ্রীরামসিতে এসে গ্রামের মানুষকে আকর্ষনীয় সুযোগ সুবিধা ও বেতন ভাতার লোভ দেখিয়ে রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দেয়। কিন্তুু গ্রামের মুক্তিকামী মানুষ তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে তাদেরকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেয়। এসময় ওই দুই রাজাকার হুমকি দিয়ে গ্রামবাসীকে শাসিয়ে যায়। পরে রাজাকাররা শ্রীরামসিতে মুক্তিবাহিনীর ক্যাম্প আছে একথা পাকবাহিনীকে বুঝিয়ে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসিতে নিয়ে আসে। জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ ছাতক ও সিলেটের বিশ্বনাথ,গোয়ালাবাজার সীমান্তে অবস্থিত জগন্নাথপুর উপজেলা। জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কের ওপর দিয়ে অবস্থিত মীরপুর বাজার। তারপরই মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গ্রামের মধ্যস্থলে শ্রীরামসি বাজার, প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও মাদ্রাসার অবস্থান। এছাড়াও ভূমি অফিস,পোষ্ট অফিস সহ সরকারী অফিস থাকায় সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী ও ব্যবসায়ীদের অবস্থান ছিল শ্রীরামসি বাজারে। স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগীতায় পাক বাহিনী বিশাল বহর নিয়ে নৌকাযোগে শ্রীরামসিতে প্রবেশ করে সকাল ১০টার মধ্যে পুরোগ্রাম তাদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে গ্রামবাসীকে শ্রীরামসি হাইস্কুল মাঠে শান্তি কমিটির সভায় যোগদিতে আহ্বান জানায়। যারা আসতে চাননি তাদেরকে বাড়ি থেকে জোর করে ধরে আনা হয়। সমবেত লোকজনকে দুই ভাগে বিভক্ত করে পাকসেনারা। বিদ্যালয়ের দুটি কক্ষে আটক করে বেঁধে ফেলে। এক গ্রুপে যুবক ও অন্য গ্রুপে বয়স্কদেরকে রাখা হয়। সেখানে মারধর করে নির্যাতনের পর যুবকদলকে নিয়ে যাওয়া হয় শ্রীরামসি গ্রামের রহিম উল্যার বাড়িতে এবং অপরগ্রুপকে নিয়ে যাওয়া হয় নজির মিয়ার বাড়ীর পুকুর পাড়ে। দু.গ্রুপের লোকজনকেই সারিবদ্ধ করে হাত বেঁধে লাইনে দাঁড় করিয়ে টানা গুলিবর্ষণ করা হয়। এসময় রহিম উল্যাহর বাড়িতে লাইনে দাঁড়ানো ৫ জন নিজেকে পাক বাহিনীর সমর্থক বলে দাবী করে প্রানভিক্ষা চায়। স্থানীয় এক রাজাকার আত্বীয় পরিচয় দিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়ার সুপারিশ করলে শ্রীরামসি বাজার আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার শর্তে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। অবশ্য মুক্তি পাওয়ার পর তারা গ্রামছেড়ে সটকে পড়েন। এছাড়াও পাকবাহিনীর বন্ধনমুক্ত হয়ে পালিয়ে বাঁচেন শ্রীরামসি গ্রামের হুশিয়ার আলী,ডা: আব্দুল লতিফ,জওয়াহিদ চৌধুরী। পাকবাহিনীর টানা গুলিবর্ষনে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যারা সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে গিয়েছিলেন তাঁরা হলেন, শ্রীরামসি ডাকঘরের নৈশ্যপ্রহরী আব্দুল লতিফ,জোয়াহির চৌধুরী (গদাভাট) ছফিল উদ্দিন (দিঘীরপাড়) তপন চক্রবর্তী (নিহত তহশীলদারের ভাই)আমজাদ আলী,ইলিয়াছ আলী এলকাছ আলী,সুন্দর আলী প্রমুখ। আর যারা শহীদ হয়েছিলেন তাঁরা হলেন,শ্রীরামসি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ছাদ উদ্দিন,বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক (হেড মাওলানা) মৌলানা আব্দুল হাই, তহশীলদার সত্যেন্দ্র নারায়ন চৌধুরী সহকারী তহশীলদার এহিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফ হোসেন পোষ্ট মাষ্টার) আব্দুল বারি (ইউ.পি সদস্য) ফিরোজ মিয়া (প্রবাসী কাদিপুর) এখলাসুর রহমান(দিঘীরপাড়), সামছু মিয়া(সাতহাল) ওয়ারিছ মিয়া(সাতহাল), আব্দুল জলিল(সাতহাল),মানিক মিয়া(সাতহাল) ছুয়াব মিয়া(সাতহাল),আব্দুল লতিফ(সাতহাল) রইছ উল্যাহ(সাতহাল), দবির মিয়া(আব্দুল্লাহপুর) মরম উল্যাহ(গদাভাট) মমতাজ আলী(রসুলপুর),আব্দুল মজিদ(রসুলপুর), নজির মিয়া(রসুলপুর),মজিদ মিয়া(রসুলপুর), সুনু মিয়া (রসুলপুর) আব্দুল মান্নান(শ্রীরামসি বাজার) অজ্ঞাত পরিচ দর্জি(রসুলপুর)ছামির আলী (পশ্চিম শ্রীরামসি) রুপু মিয়া(শ্রীরামসি)রুস্তম আলী(শ্রীরামসি)আছাব মিয়া(শ্রীরামসি)তৈয়ব আলী(শ্রীরামসি)রোয়াব আলী,তোফাজ্জল আলী,মছদ্দল আলী(শ্রীরামসি)শহীদ অজ্ঞাত পরিচয় শিক্ষক (শ্রীরামসি মডেল প্রাইমারি স্কুল) শহীদ অজ্ঞাতনামা পোষ্ট মাষ্টার(শ্রীরামসি ডাকঘর) অজ্ঞাতনামা ডাক পিয়ন(শ্রীরামসি ডাকঘর)অজ্ঞাতনামা দোকান সহকারী(শ্রীরামসি বাজার) আব্দুল মান্নান (হবিবপুর) শহীদ নুর মিয়া, জহুর আলী। এ হত্যাযজ্ঞে ১২৬ জন লোককে সেদিন গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। পরে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকহানাদার বাহিনী শ্রীরামসি বাজারে গিয়ে কেরোসিন ছিটিয়ে সবকটি দোকানঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। শ্রীরামসি গ্রামে ঢুকে বাগি বাড়ি গিয়ে জনমানব শুন্য ঘরবাড়িতে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ চালায়। দাউ দাউ করে জ্বলে শ্রীরামসি গ্রাম ও শ্রীরামসি বাজার। শ্রীরামসি গণহত্যায় নিহতদের মৃতদেহ পুরোগ্রামে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে। জনমানবশুন্য গ্রামে শিয়াল কুকুর লাশগুলো নিয়ে টানাটানি করে। ৪/৫ দিন পর কেউ কেউ গ্রামে এসে মরদেহগুলো একত্রে করে এক এক গর্তে পুঁতে রাখেন। ইতিহাসের বর্বর এই গণহত্যার খবর নয়াদিল্লী থেকে তৎকালীন বিবিসি সংবাদদাতা বেতারযোগে বিশ্ববাসীকে জানান। দেশ স্বাধীনের পর মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানী শ্রীরামসি গণহত্যার স্থান পরির্দশন করেন। ১৯৮৬ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের দাবীর প্রেক্ষিতে শ্রীরামসি শহীদের স্মরণে তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরীর সহায়তায় নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতিফলক। ওই ফলকে লেখা আছে প্রাপ্ত শহীদের নাম পরিচয়। ১৯৮৭ সালে শ্রীরামসি গ্রামবাসী শহীদ স্মৃতি সংসদ নামে একটি সংগঠন গঠন করে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি গণহত্যার দিবসকে আঞ্চলিক শোক দিবস হিসেবে পালন করতে শুরু করেন। এখন পর্যন্ত শহীদ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আঞ্চলিক শোক দিবস পালিত হচ্ছে। তবে শ্রীরামসি গ্রামের যে দুই বাড়িতে গণহত্যা হয়েছিল। তন্মেধ্যে শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের রহিম উল্যাহর বাড়িতে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিসৌধ। তবে রহিম উল্যাহর বাড়িটি একটি খালের কারণে বিশ্বনাথ উপজেলায় অর্ন্তভুক্ত হয়। স্মৃতি সৌধের ডিজাইনার সিরাজ উদ্দিন মাষ্টার বলেন, চেতনা থেকে ব্যক্তিউদ্যোগ এ কাজ করা হয়েছে। যে বাড়ীতে ঘটনাটি ঘটেছে তাদের আর্থিক অনুদানে কাজ করা হয়েছে। পরবতীতে জেলা পরিষসহ অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। তিনি জানান,
অপরদিকে জগন্নাথপুর উপজেলায় অন্তুভূক্ত শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের নজিব উল্যাহর বাড়িতে আজ অবধি হয়নি কোন স্মৃতিসম্ভ। ওই গণ্যহত্যায় নজিব উল্যাহ নিজেও শহীদ হয়েছিলেন।
রানীগঞ্জ বাজার গণহত্যা:: শ্রীরামসি হত্যার পরদিন অর্থ্যাৎ ১ সেপ্টেম্বর পাকবাহিনী রানীগঞ্জ বাজারে গণহত্যা চালায় । কুশিয়ারা নদীর তীরে অবস্থিত রানীগঞ্জ বাজারটি ছিল বড় নৌবন্দর। যে কারণে বাজারে বিভিন্নস্থান থেকে ক্রেতা বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের উপস্থিতি ছিল। কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এ নৌবন্দরে পাকবাহিনীরা নৌকাযোগে বাজারে আসে। স্থানীয় দালাল হবিবপুর গ্রামের আহমদ আলী, আছাব আলী, রানীগঞ্জের মনোয়র আলী ও ইয়াহিয়া বিশেষ ভূমিকা রাখে। পাকবাহিনীর নের্তৃত্বে ছিলেন পাকসেনাদের দলনেতা সবেদার সরফরাজ খান। বাজারে প্রবেশ করে শান্তি কমিটি গঠনের কথা বলে লোকজনকে ধরে এনে লাইনে দাঁড় করায়। সবাইকে কুশিয়ারা নদীর তীরে নিয়ে যায়। এবং নির্দেশ দেয় রানীগঞ্জ বাজারে অগ্নিসংযোগ করার। সাথে সাথে আগুনের লেলিহান শিকায় ভস্মিভূত হলো রানীগঞ্জ বাজারের ১২৮টি দোকান ঘর। পাকবাহিনীর দাঁড় করানো লাইনে দুই শতাধিক মানুষ মৃত্যুর প্রহর গুনছিল। মুহুর্তেই গুলির শব্দে প্রকম্পিত হয়ে শান্ত কুশিয়ারা নদীতীরের রানীগঞ্জ বাজারটি। রক্তেরঞ্জিত হয়ে কুশিয়ারা নদীর সাদা জল লালচে হয়ে উঠে। প্রাণ হারান কমপক্ষে দেড় শতাধিক মানুষ। পঞ্চাশ জনের মতো মানুষ আহত হয়ে কুশিয়ারার ¯্রােতে ভাসতে ভাসতে বেঁচে যান। তাঁদেও মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন মজম্মিল আলী,হুসিয়ার আলী,ওয়াহিদ আলী, খলিল অঅহমদ,জওয়াহেদ আলী,তফজ্জুল আলী,বিনোদ রায়, আকলু মিয়া,আলকাছ আলী,ফরিদ আহমদ,ইদ্রিছ আলী প্রমুখ। যারা প্রাণ হারিয়েছিলেন তাদের মধ্যে যাদেও নাম পাওয়া গেছে তাঁরা হলেন রানরীগঞ্জ ইউনিয়নের গর্ন্ববপুর গ্রামের দুই ভাই আকিক হোসেন ও আনোয়ার হোসেন,আলীপুর গ্রামের মন্তাজ আলী,আকাল মিয়া,ধন মিয়া,আব্দুল নূও,ধন মিয়া(২),বাসখনায়র মোজাম্মিল আলী,আফতাব আলী, শ্রীমতপুরের মানিক মিয়া, নাইওর মিয়া,উত্তর লামরুর রসিক উল্যা, বোয়ালজোড়ের আব্দুল মনাফ,হোসেনপুরের অশ্বিনী কুমার নাথ,বেনগাঁওয়ের জানু মিয়া,কান্দিপাড়ার দরছ মিয়া,দেবপাড়ার নিমাই নমঃশুদ,গুজাখাইয়ের প্রমোদ রঞ্জন শীল,দৌলতপুরের সুরত মিয়া,হরহরপুরের আবু মিয়া,ছালামতপুরের হাবিব মিয়া,শিবপাশাল ¯েœহালতা চক্রবর্তী,কানাইপুরের কুমুদ চক্রবর্তী,সুরেশ মহালদার,হীরা লাল সাহা,রসিক লাল সাহা,রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী সুরেশ চন্দ্র চৌধুরী,আলফু মিয়া,আব্দুল মজিদ,আব্দুল মচ্ছবির,মদই উল্যাহ, এছাড়াও তাছির উদ্দিন, আলকাছ মিয়া,তছই মিয়া,আহমদ চৌধুরী,কাছম আলী,তরমুছ আলী,আব্বাস উদ্দিন,জাফর আলী, লালির আলী,আব্দুল আজিজ(২),মচ্ছব্বির আলী, সিরাজুল ইসলাম,গৌছুল আলম,বোরহান উদ্দিন,আব্দুল মোমিন,মিছির আলী,আলতা মিয়া, সারং মোহাম্মদ,আনার মোহাম্মদ,তাজু মিয়া,আব্দুল আলীম,মকবুল হোসেন,ছয়েফ উল্যাহ,আব্দুল মজিদ,মাসুক আহমদ,নূর মিয়া(২) আব্দুল আজিজ,জাফর আলী,ইউসুফ আলী,ফাজিল মিয়া,আব্দুল হেকিম,আলফু মিয়া,মদরিছ আলী,সোনাফর আলী,তাছির উদ্দিন প্রমুখ অন্যানদেও নাম পরিচয় উদ্ধার হয়নি। কুশিয়ারা ¯্রােতে ভেসে যায় লাশগুলো রানীগঞ্জ গণহত্যা ও অগ্নিসংযোগের পর চলে রানীগঞ্জ বাজার জুড়ে লুটপাটের মহোৎসব। রানীগঞ্জ গণহত্যায় লাইনে দাঁড়ানো সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া মজম্মিল আলী সেদিনের মর্মস্পর্শী দিনের বর্ণনা দিয়ে বলেন, পাক হানাদার বাহিনী আমাদেরকে হাত পা বেঁধে কুশিয়ারা নদীর তীরে লাইন ধরিয়ে গুলি চালায়। প্রথম গুলির সাথে সাথে আমি মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। পরে আমাদেরকে আবারও লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি চালালে আমি লাফ দিয়ে কুশিয়ারা নদীতে ঝাপিড়ে পড়ি। তখন একটি গুলি আমার পায়ে লাগে। কিছু জায়গা যাওয়ার পর একটি ঝুলন্ত ল্যাট্রিনের বাশে ধরে আঁকড়ে থাকি। এবং বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দেই। পরে লোকজন এসে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসক আমার পা কেটে ফেলেন। পঙ্গুত্ব নিয়ে বেঁচে আছি আজো। জীবনের শেষ সায়েন্সে এসে একটাই চাওয়া যাদের কারণে আমার এমন হয়েছে সেই যুদ্ধাপরাধী রাজাকারদের ফাঁসি দেখে যাওয়া।
দেশ স্বাধীনের পর পর মুক্তিবাহিনীরা রাজাকার মনোহর আলীকে হত্যা করে এসময় রাজাকার আব্দুর রাজ্জাক ও ইয়াহিয়া পালিয়ে বাঁচেন। ১৯৮৭ সালে তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরী রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদেও স্মৃতি স্মরনে একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করেন। যা আজো কালের স্বাক্ষী হয়ে আছে। ২০১০ সালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ এর প্রস্তাবে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি ও ১ সেপ্টেম্বও রানীগঞ্জ গণহত্যার শহীদের স্মরণে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন কর্মসূচী বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেন। যা আজো চলমান রয়েছে।
রানীগঞ্জ ও শ্রীরামসি হত্যাকান্ডোর মতো পাকবাহিনী জগন্নাথপুর বাজারে গণহত্যার প্রস্তুুতি নিয়েছিল। বাজারের লোকজনসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষকে নলজুর নদীর তীরে লাইন ধরিয়েছিল্। ঠিক সেই মুহুতে বার্তা আসে গণহত্যা না করার জন্য তাই দুই শতাধিক মানুষ প্রাণে বেঁচে যান।
০৯ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর মুক্ত হয়। উঠে জাতীয় পতাকা। জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।