সোমবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২০, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন পিইসিইর উত্তরপত্র পুনঃনীরিক্ষা ও প্রত্যাশা’ জগন্নাথপুরে শতবর্ষ: ব্রজেন্দ্র নারায়নের উত্তরসূরীদের আবেগাপ্লুত স্মৃতিচারণ জগন্নাথপুরে এসোসিয়েশন কাপ বঙ্গবন্ধু ফুটবল লীগ টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সমাজে শান্তি বজায় রাখতে যেসব স্বভাব ত্যাগ করতে বলে ইসলাম জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে প্রবাসির অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ জগন্নাথপুরের বিএন হাইস্কুলের শতবর্ষ উৎসবে-পরিকল্পনামন্ত্রী, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে:পানিসম্পদ উপমন্ত্রী জগন্নাথপুরে বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে শতবর্ষ উৎসব আজ ক্ষোভের পর আনন্দে ভাসছে ইউনিয়নবাসি জগন্নাথপুরে শতবর্ষ অনুষ্ঠানে যারা থাকছেন

আজকের দিনটিই আমাদের জন্মদিন-মুহিত

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৫ মার্চ, ২০১৬
  • ১০৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আজকের দিনটিই আমাদের জন্মদিন। ইতিহাসের সন্ধিক্ষণে ২৫ মার্চ রাতেই পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর গণহত্যা ও বীর বাঙালির প্রতিরোধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ও আমাদের জন্ম হয়েছে। আজ শুক্রবার ‘স্বাধীনতা উৎসব-২০১৬’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মহান স্বাধীনতা দিবসের ৪৫তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি জাতীয় জাদুঘরে দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

অর্থমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্রের জন্য বাংলার মানুষ শোষণের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ করেছে। নিজেদের জীবন নিজেদের মতো করে গড়ে তুলতে যখন বাধার সম্মুখীন হয়েছে, তখনই তারা যুদ্ধ করেছে।

তিনি বলেন, এ সময় পরম বন্ধুর মতো সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ভারত ও ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। তারা আমাদের ১ কোটি মানুষকে আশ্রয় দিয়েছে, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ ও অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে সহযোগিতা করেছে।

মুহিত বলেন, তবে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের সমর্থন না পেলে ইন্দিরা গান্ধীর পক্ষে হয়তো এতটা সহযোগিতা দেওয়া সম্ভব হতো না। ওই সময় বাংলাদেশ ইস্যুতে সোভিয়েত ইউনিয়ন জাতিসংঘে তিনবার বাংলাদেশের পক্ষে ভোটে ক্ষমতা প্রয়োগ করে। আর এ বিষয়টিই ইন্দিরা গান্ধীকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করতে শক্তি যুগিয়েছে। তিনি আরো বলেন, বাঙালীর জীবনে তাই সবচেয়ে বড় গৌরবময় অধ্যায় হলো ১৯৭১।

এ সময় শুভেচ্ছাস্বরূপ আরো বক্তৃতা করেন ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা, রাশিয়ান চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ড. আনাতোলি ওয়াই ডেবিডুকো, নেপালি দূতাবাসের প্রতিনিধি সুশীল কে লাংশান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ফকির আলমগীর, মুক্তিযুদ্ধ একাডেমির উপদেষ্টা ড. শরীফ আশরাফুজ্জামান, কুষ্টিয়া ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য এম শাহীনুর রহমান।

অনুষ্ঠানে স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম ৪৫টি দেশের হাইকমিশনার, রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে ওই সকল দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্রসমূহের প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানানো হয়। এ ছাড়াও এতে আমন্ত্রিত অতিথি এবং বিভিন্ন দূতাবাস ও হাইকমিশন থেকে আগত অতিথিদের উত্তরীয় পড়িয়ে সম্মাননা জানানো হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24