বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০, ১২:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে আটঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সিদ্দিক আহমদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বই উৎসব অনুষ্ঠিত বিশ্বনাথে শিশুদের প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নেওয়া এক গ্রামের গল্প জগন্নাথপুরে দুইবছরের দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসর থেকে ১০ জুয়াড়ি আটক জগন্নাথপুরে অস্ত্র মামলার পলাতক আসামী ডাকাত জসিম গ্রেফতার চীনের প্রাণঘাতী ভাইরাস: শাহজালালে সতর্কতা জগন্নাথপুরে সাংবাদিক সানোয়ার হাসানের পিতা সাবেক মেম্বার ছুরত মিয়ার ইন্তেকাল, জানাযা বিকেলে ৪টা৪০ মিনিটে জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নে ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন

আহা, কি আনন্দ সুনামগঞ্জের আকাশে-বাতাসে-সুমনকুমার দাশ

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : শনিবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১৩৬ Time View

জাতীয় পত্রপত্রিকার অনলাইন ভার্সনে সংবাদটি প্রকাশিত হওয়ার পরপরই সুনামগঞ্জের আকাশে-বাতাসে আনন্দ-ধ্বনি ছড়িয়ে পড়ে। উচ্ছ্বাস প্রকাশে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে সরব হন। এতদিন ধরে যা লোকমুখেই কেবল প্রচারিত হচ্ছিল, সেই বহু প্রত্যাশিত সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে আইনের খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সুনামগঞ্জের একজন নাগরিক হিসেবে এজন্য প্রথমেই ধন্যবাদ জানাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। সেই সঙ্গে অবশ্যই যাঁর নাম উল্লেখ করতে হবে, তিনি পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। কারণ, এই বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের নেপথ্যের কারিগর তিনিই। আমাদের সুনামগঞ্জের গর্ব এম এ মান্নানের মাধ্যমেই হাওর ও সুরের রাজধানীখ্যাত এই জেলায় উচ্চশিক্ষার নবদ্বার উন্মোচিত হলো। তাই পুনর্বার অভিনন্দন প্রধানমন্ত্রী ও পরিকল্পনামন্ত্রীকে।
সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের আইনের খসড়া নিশ্চয়ই দ্রুততম সময়ের মধ্যে মহান জাতীয় সংসদে বিল আকারে পাস হবে। পরবর্তীকালে মহামান্য রাষ্ট্রপতি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ দেবেন। মূলত এরপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শুরু হবে। কিছুটা সময়সাপেক্ষ বিষয় হলেও আমাদের দাবি, অতি দ্রুততার সঙ্গেই সেটি করা হোক। যেহেতু প্রধানমন্ত্রী হাওরের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কথা বিবেচনায় নিয়ে এই অঞ্চলে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে আগ্রহী হয়েছেন এবং পরিকল্পনামন্ত্রীও আন্তরিকতার সঙ্গে দ্রুততম সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু করতে উৎসাহী, তাই আমরা বিশ্বাস করিÑসব প্রক্রিয়াই দ্রুত সম্পন্ন হবে।
মূলত প্রধানমন্ত্রী ও পরিকল্পনামন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানানোর উদ্দেশ্যেই এ লেখাটির অবতারণা। কিন্তু প্রসঙ্গক্রমে এখানে এক-দুটি কথা বলে রাখা প্রয়োজন বলেও আমি মনে করছি। নিশ্চয়ই উপাচার্য যোগদানের পরপরই বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে তিনি কোন কোন বিষয় বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু করা হবে, তার সম্ভাব্য তালিকা প্রেরণ করবেন। জানা কথা, সেখানে অত্যাধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রকৌশল শাখার বিবিধ বিষয় চালু হবে। বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেলেও এখানে নিশ্চয়ই বিজ্ঞানের সঙ্গে মানবিক ও বাণিজ্য বিষয়েও ¯œাতক (সম্মান) ও ¯œাতকোত্তর কোর্সে পাঠদান কার্যক্রম চলবে। তবে, আমার কথা অন্য জায়গায়। আমি সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি বিষয় অবতারণা করতে চাই। আমি চাই এই বিশ্ববিদ্যালয়ে সুনামঞ্জের পরিবেশ, প্রকৃতি, ভৌগলিক ও সাংস্কৃতিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে কিছু সুনির্দিষ্ট বিষয়ে ¯œাতক (সম্মান) ও ¯œাতকোত্তর কোর্স চালু করা হোক।
সুনামগঞ্জের লোকগান ও লোকসংস্কৃতি নিয়ে আমরা প্রতিনিয়ত গর্ব করে থাকি। আমাদের ধামাইলগান, ঢপযাত্রা থেকে শুরু করে লোকসংগীত ও লোকনাট্যের নানা ধারা দেশ-বিদেশে সুনাম কুড়াচ্ছে। হাসন রাজা, রাধারমণ, শাহ আবদুল করিম, দুর্বিন শাহ, কামাল উদ্দিন, গিয়াস উদ্দিন আহমদ, কফিলউদ্দিন সরকাররা এখন বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক আইকন। লোকসংস্কৃতির নানা ধারা এখনও সুনামগঞ্জে বহমান। এটি বিবেচনায় নিয়ে অবশ্যই এখানে ‘ফোকলোর বিভাগ’ চালু করা উচিত। নানা ফোরামে আমাদের বহুদিনের দাবি ছিল সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফোকলোর বিভাগ চালু করা হোক, সেটা এখনও হয়নি। এটি ঘুচানোর সুযোগ এসেছে। সুনামগঞ্জই হচ্ছে প্রকৃত স্থান, যেখানে এমন বিষয়ে ¯œাতক ও ¯œাতকোত্তর কোর্স চালু লাভ যায়। কারণ, এ জেলার মাটি লোকসংগীতের এক উর্বর ভূমি। এর বাইরে ‘হাওরতত্ত্ব বিভাগ’ও এখানে চালু করা যেতে পারে। যেখানে হাওর-বিষয়ক পাঠদানও চলবে। পাশাপাশি ‘সংগীত ও নাট্যকলা বিভাগ’ও এখানে চালু হওয়া প্রয়োজন। গতানুগতিক বিষয়ের পাশাপাশি বৈচিত্র্যময় বিষয়গুলো বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শুরুতেই যদি চালু করা যায়, তাহলে এটি দ্রুতই দেশের অন্যান্য অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের কাছেও আগ্রহের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হবে। প্রসঙ্গক্রমে উল্লেখ করা প্রয়োজন, যেসব বিষয়ের কথা বললাম, এর একটিও কিন্তু সিলেটের সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হয়নি। ফলে এ বিশ্ববিদ্যালয় সিলেটের পুরোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যও অনন্য এক দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। আরেকটি বিষয় এখানে চালু করা যেতে পারে, সেটি হলো ‘গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা’ বিভাগ। সিলেট অঞ্চলের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়েই এই বিভাগ চালু হয়নি।
সবকথার শেষ কথা হলো, সুনামগঞ্জের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে প্রাধান্য দিয়ে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে এখানকার পরিবেশ, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উপযোগী বিষয়ও চালু করা হোক। তবেই প্রকৃত অর্থে এই বিশ্ববিদ্যালয় একটি আলোকিত ও আদর্শ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে দেশ-বিদেশে পরিচিতি পাবে। আর সুনামগঞ্জবাসী হিসেবে এটাই আমরা চাই। মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নিশ্চয়ই এ বিষয়েও নজর দেবেন, সে প্রত্যাশা রইল।
লেখক : ফোকলোরবিদ, প্রাবন্ধিক; সিলেট প্রতিনিধি, প্রথম আলো।
(সৌজন্যে সুনামগঞ্জের খবর)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24