রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল জগন্নাথপুরে একদিনে ১১ জন ডাক্তারের যোগদান জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধের ৩০ প্রকল্প অনুমোদন কাল কাজ শুরু হতে পারে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আ.লীগের উদ‌্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে আলোচনাসভা ও শ্রদ্ধা নিবেদন দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ

একটি শব্দ বাঁচিয়ে দিল বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮৫ কোটি ডলার !

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ জুলাই, ২০১৬
  • ৭৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::
ফেব্রুয়ারি মাসে হ্যাকাররা বাংলাদেশের রিজার্ভের প্রায় ১০০ কোটি ডলার চুরি করতে চাইলেও একটি শব্দের জোরেই তার বেশিরভাগটাই রুখতে সক্ষম হয়েছিল নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক। চুরির কবল থেকে বেঁচে যায় অনেকগুলো টাকা। ৯৫ কোটি ডলারের বদলে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় হ্যাকারদের।

যে শব্দটির কারণে বিশাল অংকের টাকা খোয়া যাওয়া ঠেকানো গিয়েছিল সেই শব্দটি হলো ‘জুপিটার’।

চলতি বছরের শুরুতে ভয়াবহ ব্যাংক চুরির ঘটনার তদন্ত সংশ্লিষ্টদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক বিশেষ অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে।

সেইসঙ্গে রয়টার্সের বিশ্লেষণে অর্থচুরি ঠেকাতে নিউ ইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের দুর্বলতাও উঠে এসেছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কম্পিউটারের নিরাপত্তা ভেঙে নিয়ন্ত্রণ নেয় হ্যাকাররা।

রিজার্ভের অর্থ চুরি করতে হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংকের লেনদেনব্যবস্থা ব্যবহার করে ৯৫ কোটি ডলার ছাড় করার জন্য ৩৫টি আলাদা পেমেন্ট অর্ডার পাঠায়।

তারমধ্যে হ্যাকারদের ৫টি পেমেন্ট অর্ডারের ফাঁদে পা দিয়ে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলারের স্থানান্তর কার্যকরও করে নিউইয়র্ক ফেড। তবে এই ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হতো যদি না চুরি হওয়া অর্থের সঙ্গে জুপিটার শব্দটি যুক্ত না থাকত।

কেন জুপিটার শব্দটি দেখে থেমে গেলেন ফেডারেল রিজার্ভের কর্মকর্তারা?

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, জুপিটার একটি অয়েল ট্যাঙ্কার ও শিপিং প্রতিষ্ঠানের নাম। প্রতিষ্ঠানটি ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার অধীনে তালিকাভুক্ত। আর তাই নিষেধাজ্ঞা তালিকায় প্রতিষ্ঠানটির নাম থাকার কারণেই নিউ ইয়র্ক ফেডে উদ্বেগ তৈরি হয়।

এরপরই তারা ভুয়া পেমেন্ট অর্ডারগুলো আরো নিবিড়ভাবে খতিয়ে দেখতে শুরু করে এবং পেমেন্ট বন্ধ করে দেয়।

পেমেন্টের ক্ষেত্রে নিউ ইয়র্ক ফেডের অসঙ্গতি শনাক্তে ব্যর্থতা

রয়টার্সের বিশ্লেষণে অর্থচুরি ঠেকাতে নিউ ইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের দুর্বলতাও উঠে এসেছে।

নিউ ইয়র্ক ফেডে ঘটনাটি যেভাবে সামাল দিয়েছিল তার সঙ্গে পরিচিত এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন, প্রায় ১০০ কোটি ডলার পেমেন্টের ছাড়পত্র না দেওয়াটা ছিল ফেডারেল রিজার্ভের জন্য অপ্রত্যাশিত সাফল্য। রয়টার্স-এর বিশ্লেষণে আরও বলা হয়, হ্যাকারদের পাঠানো পেমেন্ট অর্ডারগুলো অনেক দিক থেকে ব্যতিক্রম থাকার পরও অসঙ্গতিগুলো শনাক্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে নিউ ইয়র্ক ফেডারেল। এসব পেমেন্ট অর্ডারের ফরম্যাট ছিল ত্রুটিপূর্ণ।

হ্যাকাররা এক দিনের ব্যবধানে ৩৫টি নির্দেশনা পাঠায়। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এক দিনে এত নির্দেশনা কখনোই আসে না। ২০১৬ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে ফেডের লেনদেনের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সপ্তাহে দুটির বেশি লেনদেনের নির্দেশনা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে আসেনি।

হ্যাকারদের পাঠানো ৩৫টি বার্তায় পাওনাদার ব্যাংকের পরিবর্তে ব্যক্তির নাম ছিল। অথচ গত আট মাসে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যক্তির সঙ্গে লেনদেনের কোনো নির্দেশনা আসেনি।

আর এসব অসঙ্গতি সময়মতো শনাক্ত করতে ব্যর্থ হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে চলে গেছে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার। তা পাঠানো হয় শ্রীলঙ্কা ও ফিলিপাইনে।

এর মধ্যে ৮ কোটি ১০ লাখ ব্যক্তিবিশেষের নামে ৪টি একাউন্টে যায়। ওই অর্থ ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংকের জুপিটার ব্রাঞ্চের চারটি অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা হয়।

সূত্র: রয়টার্স

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24