বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে র‍্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বৈধ কাজগপত্র না থাকায় ১২টি মোটরসাইকেল চালককে জরিমানা জগন্নাথপুরে বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে নিরাপদ সড়ক দিবস পালন জগন্নাথপুরে দু’পক্ষের বিরোধে বলীর শিকার শিশু সাব্বিরের খুনীরা এখনও ধরা পড়েনি জগন্নাথপুরে ৬০ কৃষক কৃষাণীদের প্রশিক্ষণ প্রদান জগন্নাথপুরে সনাক্তকারী ‘বহিরাগতদের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন প্রাণের চেয়েও প্রিয় মহানবী (সা.) সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান

কালোত্তীর্ণ নজরুল

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৪ মে, ২০১৮
  • ১৬৪ Time View

গাহি সাম্যের গান

মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই , নহে কিছু মহিয়ান।

সাম্য, ভালবাসা, মানবতা ও দ্রোহের যে সমন্বিত উচ্চারণ নজরুলের এই একটি কবিতায় ধ্বনিত হয়েছে – তা এক অনন্য কালোত্তীর্ণ নজরুলকে পাঠকের সামনে উপস্থাপন করে। আজও কুসংস্কার, মৌলবাদ, সামাজিক বৈষম্য সমাজে জগদ্দল পাথরের মত চেপে বসে আছে। ব্যষ্টিক, সামষ্টিক ও রাষ্ট্রীক জীবনের নান স্তরে বিদ্যমান সাম্প্রদায়িকতা, কপুমন্ডুকতা, কুসংস্কার, নিপীড়ন ও অত্যাচার বি্রুদ্ধে যেমন তিনি বিদ্রোহ করেছেন তেমনি পরাধীনতার বিরুদ্ধেও বিদ্রোহ করেছেন। তাঁর বিদ্রোহ যেমন চেতনাগত তেমনি অংশ গ্রহণ মূলকও।

চেতনাগত অবস্থান থেকে তিনি তাঁর সাহিত্য কর্মের মাধ্যমে দ্রোহের স্ফুলিঙ্গ ছড়াতে চেয়েছেন অন্যদিকে পরাধীনতার বিরুদ্ধে নানা কর্মকান্ডে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছেন। ১৯২১ সালের নবেম্বর মাসে ২১ তারিখ ভারত ব্যাপী হরতাল উপলক্ষ্যে নজরুল পথে নেমে আসেন , অসহযোগ মিছিলের সাথে কুমিল্লা শহর প্রদক্ষিন করেন আর গান করেন,

ভিক্ষা দাও , ভিক্ষা দাও

ফিরে চাও ওগো পুরবাসী।

দেশের স্বাধীনতার এমন দৃপ্ত দাবী আর কোন বাংলা সাহিত্যের কবি করেছেন বলে মনে হয়না। বাংলা সাহিত্যে তাঁর মতো করে খুব কম সাহিত্যিকই মানুষের শ্রেষ্টত্ব এত উচ্চকিত কন্ঠে উচ্চারণ করেছেন।

দুখু মিয়ার দুখী জীবন নান চড়াই- উৎরাই এর মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত হয়েছে। জীবিকার প্রয়োজনে বিচিত্র পেশার জীবন তিনি যাপন করেছেন। মাত্র নয় বছর বয়সে তিনি যখন তাঁর পিতাকে হারান তখন পারিবারিক অভাব অনটনের কারনে মাত্র দশ বছর বয়সে গ্রামের স্থানীয় মসজিদে মুয়াজ্জিনের কাজ শুরু করেন, মক্তবে শিক্ষকতা করেন, হাজি পালোয়ানের কবরের সেবক হিসাবেও কাজ করেন। লেটো দলে যোগদান করে দলের জন্য তিনি গান রচনা করেছেন, সুর দিয়েছেন এমনকি অভিনয়ও করেছেন। তাছাড়া চা রুটির দোকানে রুটি বানানোর কাজ করেছেন এমনকি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীতে যোগদেন।

বহুমাত্রিক পেশাগত জীবনে তিনি দেখেছেন নানা জীবনের অন্তর্গত দ্বন্দ, বঞ্চনা ও শোষনের নানা মাত্রিক সহাবস্থান। যা তাঁর জীবন দর্শনকে শানিত করেছে, চেতনাবোধকে দ্রোহী করেছে। যার ফলশ্রুতিতেই বাংলা সাহিত্যে তাঁর আগমন ঘটেছে ধুমকেতুর মত। স্বল্প সময়ের কর্মক্ষম জীবনে তাই তিনি হয়ে উঠেছিলেন সব্যসাচী লেখক।

ব্যক্তি জীবনে নানা বাকে তিনি যে বিচিত্র অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছিলেন তার সেই হিরন্ময় অভিজ্ঞতাই ফুটে উঠেছে তার সাহিত্য কর্মে।

মানুষকে তিনি ধর্মীয় পরিচয়ে চিহ্নিত না করে “আশরাফুল মুকলুকাত” হিসেবেই দেখেছেন। নজরুল তাঁর শেষ ভাষনের দু একটি বাক্য উল্লেখ করলেই এই কথার সত্যতা মিলবে – “আমি শুধু হিন্দু মুসলিমকে এক জায়গায় ধরে নিয়ে হ্যান্ডশেক করানোর চেষ্টা করেছি, গালাগালিকে গলাগলিতে পরিনত করানোর চেষ্টা করেছি”।

নজরুল যদিও তাঁর রুমমেট এবং দীর্ঘদিনের বন্ধু এ উপমহাদেশের বামপন্থী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা পূরুষ মোজাফফর আহামেদের দ্বারা গভীর ভাবে প্রভাবিত হয়েছিলেন কিন্তু তিনি কখনো বামপন্থী আদর্শে বিশ্বাসী রাজনৈতিক সংগঠনের সদস্যপদ গ্রহণ করেননি। কংগ্রেসের টিকেটে তিনি নির্বাচণ করতে চেয়েছিলেন কিন্তু মনোনয়ন না পেয়ে তিনি স্বতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করে পরাজিত হন। তিনি সম্ভবত সবচে বেশি প্রভাবিত হয়েছিলেন আধুনিক তুরস্কের জনক কামাল পাশার দ্বারা।

নজরুল যদিও বারবার তাঁর কবিতায় সাম্যবাদের কথা বলেছেন আবার পাশাপাশি মুসলমানদের জাগরনের গান গেয়েছেন। তাদের অতীতের গৌরবের কথা মনে করিয়ে দিয়ে এবং কবিতার ভাষা ও বিষয় বস্তুতে মুসলমানি উপাদান ব্যবহার করে তাদের অনুপ্রাণিত করেছেন। তাঁর আবির্ভাবের মধ্যদিয়ে যেমন মুসলমান সমাজ অনেকটা এগিয়ে যায় এবং তাঁর অনুপ্রেরণায় পরবর্তীতে মুসলমান কবি সাহিত্যিকদের মধ্যে কাব্য চর্চার আধুনিক যুগের সূচনা হয়।

একদিকে যেমন ইসলামী সংগীত রচনার মাধ্যমে ধর্মপ্রান নজরুলকে পাই আবার শ্যামা সংগীত রচনার মাধ্যমে একজন অসাম্প্রদায়িক নজরুলকে পাই।

এককথায় নজরুল পরাধীন জড়তাগ্রস্থ সমাজে সঞ্চারিত করেছিলেন স্বাধীনতার চেতনাবোধ। তাঁর কাব্যে ধ্বনিত হয়েছে মৃত্যুঞ্জয়ী যৌবনের জয়গান।

সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, রবীন্দ্রনাথের অনুকরণ মুক্ত হয়ে নজরুল বাংলা সাহিত্যে বিদ্রোহী কবি হিসেবে আভির্ভুত হন। তাঁর ব্যতিক্রমধর্মী কবিতা রচনার জন্যই আধুনিক কবিতার সৃষ্টি সহজতর হয়েছিল বলে অনেক সাহিত্য সমালোচক মনে করেন। নজরুল তাঁর সাহিত্য কর্মের মাধ্যমে পরাধীনতা, সাম্প্রদায়িকতা, সাম্রাজ্যবাদ,উপনিবেশবাদ, মৌলবাদ ও দেশী –বিদেশী শোষনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। প্রতিবাদী সাহিত্য রচনার কারনে তাঁকে ইংরেজ সরকার কারাবন্দী করে এমনকি অনেকগুলো গ্রন্থ্ব নিষিদ্ধ করে।

বাণী ও সুরের বৈচিত্রে বাংলা গানকে তিনি যথার্থ আধুনিক সংগীতে রূপান্তরিত করেন। অনেক সঙ্গীত বিশেষজ্ঞের মতে, তিনি বাংলা সঙ্গীতের প্রায় সবকটি ধারায় পরিচর্যা ও পরিপুষ্টি, বাংলা গানকে উত্তর ভারতীয় রাগ সঙ্গীতের দৃঢ় ভিত্তির উপর স্থাপন এবং লোকসঙ্গীতাশ্রয়ী বাংলা গানকে উপমহাদেশের বৃহত্তর মার্গীয় সঙ্গীতের ঐতিহ্যের সাথে সংযুক্তি নজরুলের মৌলিক সংগীত প্রতিভার পরিচায়ক। যে কারনে তাঁকে বাংলা গানের বুলবুল নামেও তাঁকে অভিহিত করা হয়।

বিংশ শতাব্দির অসাম্প্রদায়িক বাঙ্গালী মনন এ মনীষার অন্যতম প্রধান কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১১ই জৈষ্ট ১৩০৬ বংগাব্দে জন্ম গ্রহণ (২৪মে ১৮৯৯) করেন। ৭৭ বছর বয়সে ১২ই ভাদ্র ১৩৮৩ বঙ্গাব্দে (১৯৭৬ সালের ২৭ আগষ্ট) ঢাকায় মৃত্যু বরণ করেন। ৪৩ বছর বয়সে ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে তিনি পিক্স রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিশ্ব ব্যাপী তাঁর চিকিৎসার চেষ্টা করেও সুস্থ করা যায়নি। তাঁর এই অকাল অসুস্থতা বাংলা সাহিত্যের জন্য খুবই বিপর্য্যয়কর একটি ঘটনা।

এই একবিংশ শতাব্দীতেও দেশে দেশে যখন সাম্প্রদায়িকতা মানবতাকে হত্যা করছে, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে চরম বৈষম্য বিদ্যমান তখন নজরুল পাঠ আরো বেশী করে প্রয়োজনীয়।

জাতীয় কবির জন্মের এই মাহেন্দ্রদিনে বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী।

মনোরঞ্জন তালুকদার

সহকারী অধ্যাপক

জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24