মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

ছাতকে আবারো মানিক-কালাম সমর্থকের প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব শুরু

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ জুন, ২০১৫
  • ৪৭ Time View

ছাতক সংবাদ- ছাতকে আবারো স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও পৌর মেয়র আবুল কালামের সমর্থকদের মধ্যে প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। গত ১৯ জুন বৃহ¯পতিবার ছাতকের গোবিন্দগঞ্জে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতির উপর হামলার প্রতিবাদে রবিবার গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে পৌর মেয়র আবুল কালামের গাড়ী ভাংচুর হয়েছে। কালাম সমর্থকরা ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ এবং ছাতক- সুনামগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে রেখেছিল। বিক্ষুব্ধ কালাম সমর্থকরা ছাতক থানার বর্তমান ওসির প্রত্যাহার দাবি করেছে। ছাতক- দোয়ারা আওয়ামী লীগ ১৪ বছর ধরে দ্বিধাবিভক্ত। বিবদমান দুই গ্র“পের আদায়-কাঁচকলায় স¤পর্কের চেয়েও খারাপ। জাতীয় থেকে স্থানীয় নির্বাচনেও মুহিবুর রহমান মানিক এক প্রার্থীকে সমর্থন দিলে কালাম আরেক প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেন। আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এবং যুগ্ম-আহ্বায়ক নিয়ে ১৪ বছরেও ছাতক-দোয়ারায় দ্বন্দ্ব কাটেনি। দুই উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৩ টি সাংগঠনিক ইউনিটের সবকটিতেই বিবদমান দু’গ্র“পের দুই বলয়। এই দুই উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিভক্তি মূলত স্থানীয় সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিক ও পৌর মেয়র আবুল কালামকে ঘিরেই। দু’জনেই কমিটিতে নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখার চেষ্টা করায় দীর্ঘদিন ধরে এই দুই উপজেলার আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠন দ্বিধাবিভক্ত। দলীয় সভানেত্রী গণভবনে ডেকে দুই উপজেলায় দুটি আহ্বায়ক কমিটি করে দিলেও কেউ কেউ এই কমিটিও মানতে নারাজ। সম্প্রতি.জেলা আওয়ামী লীগ এই দুই উপজেলায় আওয়ামী লীগের নতুন আহ্বায়ক কমিটি করে দেবার পর অন্যপক্ষ(মানিক সমর্থকরা) বলেছিল,‘এটি আওয়ামী লীগের নয়,সংগঠনের ত্যাগীদেরও নয়,কালাম সমর্থকদের কমিটি, তারা এই কমিটি মানেন না। গেল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও ছাতকে দলের একাংশ (কালাম সমর্থক অংশ) দলীয় নেতা আবরু মিয়া তালুকদার এবং মানিক সমর্থক অংশ অলিউর রহমান চৌধুরী বকুলকে সমর্থন দিয়ে মাঠে নামে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অবশ্য ছাতক এবং দোয়ারাবাজার দুই উপজেলায়ই মুহিবুর রহমান মানিক সমর্থক প্রার্থী অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল এবং দোয়ারাবাজারে ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক জয়ী হন। মুহিবুর রহমান মানিক ও আবুল কালাম চৌধুরীর দ্বন্দ্ব শুরু হয় ১৯৯৪ সাল থেকে। দ্বন্দ্বের জের ধরে গত প্রায় ২০ বছর ধরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় নির্বাচন এখানে আওয়ামী লীগ আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করেছে। মুহিবুর রহমান মানিকের সমাবেশে ছাতক ও দোয়ারাবাজারে একাধিকবার গুলাগুলি হয়েছে। মুহিবুর রহমান মানিক ১৯৯৬ এর পর বার বারই দাবি করেছেন তাকে লক্ষ্য করেও প্রতিপক্ষের অস্ত্রধারীরা গুলি করেছে। মুহিবুর রহমান মানিকের ছাতকের মন্ডলীভোগের বাড়ীর তৃতীয় তলায় বোমা বিস্ফোরণে ৩ জন নিহত হবার ঘটনাও ঘটেছে। গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় সোহেল মাহমুদ নামের এক যুবলীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর ভাই ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা শামীম চৌধুরী বলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল নিজে উপস্থিত থেকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমাদের লোকজনকে গ্রেপ্তার করান। আজ পৌর মেয়রের গাড়ীতে গোবিন্দগঞ্জে হামলা হয়েছে। আমরা দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি ছাতক- দোয়ারার যেখানেই মানিক ও বকুলের গাড়ী পাওয়া যাবে- হামলা হবে, ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগ নেতা অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল বলেন, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থেকে আমির আলীসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছেন। আমির আলী কেমন লোক স্থানীয় লোকজন জানেন। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই, তবে পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর গাড়ীতে হামলার বিষয়টি রাজনৈতিক শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে না, আমি কিংবা স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকও তা সমর্থন করিন না, এ ঘটনায় আমরাও নিন্দা জানাই। একই মন্তব্য করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক (মানিক সমর্থক অংশের) লূৎফুর রহমান সুরকুম। এদিকে উত্তর খুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ছাতক উপজেলা যুবলীগ নেতা বিল্লাল আহমদ বলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মাসুদ কামাল সুফি, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক ও সুফি’র এ.পি.এস ফয়েজ আহমদ গংদের কর্মীরা মেয়রের গাড়ীতে হামলা করে। হামলার সময় ছাতক থানার ওসি সে নিজে সরজমিনে দেখেছেন বলে গনমাধ্যমে জানিয়েছেন। সুফি ও ফয়েজ তারা গোলা পানিছে মাছ স্বীকার করেছে। সুফি ও ফয়েজ গাড়ীতে হামলা করে মানিক ও বকুল’র উপর দোষ চাপিয়ে দিয়েছে। এমনকি আমার উপরে মামলা হয়েছে। আমি এই মিথ্যা মামলা প্রত্যহার ও মাসুদ কামাল সুফি ও ফয়েজ আহমদকে দ্রুত গেফতার করিলে সম্পন্ন ঘটনা উদঘাটন হবে। ওসির সাথে সাথে যোগাযোগ করা হলে ওসি হারুনুর রশীদ বলেন, আমি সুফি ও ফয়েজ কে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন ভাবে চালিয়ে চাচ্ছি। আমি খুবই শিঘ্রই গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনবো ইনশাআল্লাহ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24