সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে পরিবহন ধর্মঘটের ডাক

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৬
  • ১০৪ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে মিনিবাস মালিক গ্রুপের ডাকা ৭২ ঘন্টার পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করার একদিনের মধ্যেই প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অমান্য করার অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার থেকে অনিদিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়ে উপজেলা সদরে মাইকিং করেছে জগন্নাথপুর মিনিবাস মালিক গ্রুপ। মালিক গ্রুপের নেতারা জানান, মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ সন্মেলন কক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিবহন সংগঠনগুলোকে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ এর সভাপতিত্বে সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করা হলে ইমা,লেগুনা,সিএনজি,এইচ পাওয়ার সিদ্ধান্ত অমান্য করে যাত্রী উঠাতে গেলে জগন্নাথপুর মিনিবাস মালিক গ্রুপের ম্যানেজার ফজলু মিয়া পাগলা-জগন্নাথপুর সড়কের ভমভমি বাজার নামক স্থানে যাত্রী উঠানোর ছবি তুলে রাখেন। এনিয়ে দু’শ্রমিক সংগঠনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে ইমা,লেগুনা,সিএনজি,এইচ পাওয়ার শ্রমিক সংগঠনের কর্মীদের হামলার শিকার হন মিনিবাস মালিক সমিতির ম্যানেজার ফজলু মিয়া। খবর পেয়ে জগন্নাথপুর মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি নিজামুল করিম ঘটনাস্থলে গেলে তিনিও তাদের হাতে অপদস্থ হন। হামলায় আহত ফজলু মিয়াকে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় বিকেলে জগন্নাথপুর মিনিবাস মালিক গ্রুপের নেতারা বৃহস্পতিবার থেকে জগন্নাথপুর-সুনামগঞ্জ,জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কে পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেন। জগন্নাথপুর মিনিবাস মালিক সমিতির চেয়ারম্যান নিজামুল করিম জানান, প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অমান্য করে ইমা,লেগুনা,সিএনজি,এইচ পাওয়ার শ্রমিকরা বুধবার আমাদের ম্যানেজারকে মারধর করে। বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে গেলে আমার সাথেও দুব্যবহার করা হয়। তাই বাধ্য হয়ে আমরা পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছি। তিনি বলেন, প্রশাসনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমরা ছবি তোলার জন্য ম্যানেজারকে পাঠিয়েছিলাম। ইমা, লেগুনা,সি,এনজি এইচ পাওয়ার শ্রমিক সভাপতি জুয়েল মিয়া জানান,মিনিবাস মালিক সমিতির সদস্যরা শ্রমিকদের নিয়ে ভমভমি বাজারে আমাদের গাড়ি থামিয়ে ছবি তুলতে গেলে স্থানীয় শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে সাবইকে নিয়ে আসি। তিনি বলেন, আমরা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত মেনেই ৯৩ সাল থেকে ছয়হারা পর্যন্ত লেগুনা সিএনজি, নিয়ে উক্ত সড়কে যাতায়াত করে আসছি। হঠাৎ করে আমাদের চলাচলে অযৌক্তিকভাবে বিধি নিষেধ করা হচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শ্রমিক সংগঠনগুলোকে নিয়ে সভা করে আমরা যে সিদ্ধান্ত দিয়েছিলাম আশা করেছিলাম দু’পক্ষই তা মেনে যানচলাচল করবে। এখন কি হয়েছে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বলেছি।
জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তদন্ত খান মোহাম্মদ মাইনুল জাকির জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, উভয়পক্ষকে নিয়ে আবারও বৈঠকে বসে সমাধানের চেষ্ঠা করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24