সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:৩১ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বস্তায় সবজি চাষ- সাবাজের সাফল্যে খুশি সবাই

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ১৩২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
জগন্নাথপুর উপজেলার নলজুর নদীর তীরে জগন্নাথপুর গ্রামে বর্গাচাষী যুবক সাবাজ মিয়া ওরফে দিলশাদের বাড়ি। গত বছর ছয় কেদার জমিতে বোরো আবাদ করেছিলেন। অকাল বন্যায় ফসল হারানোর কারণে এক ছটাক ধান তুলতে পারেননি। সাত সদস্যর পরিবারের একমাত্র উপর্জনকারী ব্যক্তি সাবাজ চোখে সর্ষেফুল দেখেন।
সরকারী সহায়তা ও দিনমজুরী কাজ করে হাল ধরেন সংসারের। কী করা যায় সে ভাবনা নিয়ে যান কৃষি অফিসে। পরে কৃষি বিভাগের পরামর্শে শুরু করেন বস্তায় সবজি চাষ।
নিজবাড়ির আঙ্গিনায় বস্তায় মাটি গোবর ও কচুরপানা (জারমনি) দিয়ে মিষ্টি কুমড়ার বীজ লাগান। কয়েকদিনের মধ্যেই চারা উঠে বাড়তে থাকে মিষ্টি কুমড়ার লতা। ভাবতে থাকেন এত কম জায়গা কিভাবে বেশী করে মিষ্টি কুমড়া লাগাবেন। কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে বাড়ির নিকটে পতিত জায়গায় গাছগুলো স্থানান্তর করেন। সেখানে তিনি ৫০টি বস্তায় মিষ্টি কুমড়া লাগান।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে প্রকৃতির যে বিরূপ অবস্থা সেক্ষেত্রে বস্তায় সবজি চাষ বিপ্লব ঘটাতে পারে। কার্তিক মাসে রোপন করে মিষ্টি কুমড়া মাঘ মাসে বিক্রি করতে পারেন। মাত্র তিন মাসের মধ্যে কম খরচে অধিক লাভ করা যায় এ সবজি চাষে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা তপন চন্দ্র শীল জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ১০ শতাংশ পতিত জমিতে বস্তায় মিষ্টি কুমড়া লাগিয়ে সাবাজ সাফল্য অর্জন করেছে। সাবাজের বাগানে এখন মিষ্টি কুমড়ার ফলনে ভরপুর।
তিনি বলেন, সাবাজ অত্যন্ত পরিশ্রমী কৃষক। বোরো আবাদের পাশাপাশি গত বছরের ক্ষতি পোষাতে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ তাকে সাফল্য এনে দিয়েছে।
সাবাজ জানান, অভাবের সংসার, পড়ালেখা করতে পারিনি। খেত খামারে কাজ করে বাবা, মা, স্ত্রী সন্তান নিয়ে কষ্ট করে জীবিকা নির্বাহ করছি। গত এপ্রিলে ফসল ডুবির পর কি করব ভেবে হতাশ হয়ে যাই। সরকারি সহায়তা ও দিনমজুরি করে সংসার চলছিল। কিন্তু মন বলছিল কিছু একটা করি। পরে কৃষি অফিসের পরামর্শে বস্তায় সবজি চাষ শুরু করি। পরিশ্রমি যুবক সাবাজ বলেন, বাড়িতে জায়গা না থাকায় নদীরপাড়ে পতিত জমিতে বাগান তৈরী করেছি। ভাল ফলন আসায় মনটা বেজায় খুশি। তিনি বলেন, বস্তাসহ এক একটি গাছে খরচ হয়েছে ৩০ টাকা। এক একটি গাছ থেকে মিষ্টি কুমড়া বিক্রি করতে পারব চার থেকে পাঁচশত টাকার।
জগন্নাথপুর পৌরসভার কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন বলেন, সাবাজ একজন পরিশ্রমী কৃষক। বস্তায় সবজি চাষ আমাদের এলাকায় নতুন পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে সে সফল হওয়ায় আমরা খুশি।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শওকত ওসমান মজুমদার বলেন, বস্তায় সবজি চাষে অনেক সুবিধা রয়েছে। প্রকৃতির বিরূপতার সাথে গাছগুলো স্থানান্তর করা যায়। সাবাজের সাফল্যের পর অনেক বাড়ির ছাদে আমরা বস্তায় সবজি চাষের ব্যবস্থা করেছি।
তিনি বলেন, কম খরচে অধিক লাভজনক পদ্ধতি বস্তায় সবজি চাষ। তাঁর মতে সাবাজের সাফল্য অনুসরণ করে অনেক কৃষক এ পদ্ধতি গ্রহণ করতে পারেন। ইতিমধ্যে অনেকেই আগ্রহী হয়েছেন। কৃষি কর্মকর্তা বলেন, আমরা সাবাজকে ক্ষুদ্র উদ্যেক্তা থেকে বড় কৃষকে পরিণত করতে সহায়তা করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24