বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জ জেলার সবকটি উপজেলায় আওয়ামীলীগের সন্মেলনের উদ্যাগ নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন ২০০০ উইরো ফেরত দিয়ে প্রশংসিত বাংলাদেশি তরুণ জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ট্রাম্পের নতুন কর নীতি অনুমোদন এবং কিছু শঙ্কা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৩৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: নতুন করে ঢেলে সাজানো কর নীতি বা ট্যাক্স বিল পাস হওয়ার আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প এবং তার দল রিপাবলিকান পার্টির সদস্যরা। প্রতিনিধি পরিষদের পর বুধবার দেড় লাখ কোটি ডলারের কর নীতি পাস হয়েছে সিনেটে। একে আমেরিকার জনগণের ঐতিহাসিক বিজয় বলে আখ্যায়িত করেছেন ট্রাম্প। বলেছেন, আমরা আমেরিকাকে পুনরায় মহান করে গড়ে তুলছি (উই আর মেকিং আমেরিকা গ্রেট এগেইন)। কয়েক প্রজন্মের মধ্যে এটি যুক্তরাষ্ট্রের কর নীতির সবচেয়ে বড় পরিবর্তন। এ প্রসঙ্গে রিপাবলিকান দলের কিছু সদস্যরা সতর্কতা প্রকাশ করেছেন।
তারা বলেছেন, নতুন এই কর নীতি বুমেরাং হয়ে যেতে পারে। এ নীতিতে উচ্চহারে কর ছাড় পাবেন ধনীরা। সবচেয়ে বেশি লাভবানও হবেন তারা। এতে বোঝা বাড়বে মধ্যবিত্তের ওপর। এর ফলে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হবে স্বাস্থ্যসেবা খাত। যদিও এসব বিষয় নিয়ে হোয়াইট হাউজে কোন রকমের দুশ্চিন্তা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বস্তুত এই নীতিকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন ট্রাম্প। এর অনুমোদন প্রাপ্তি নিয়ে তিনি বলেছেন, আমি জানি না এর চেয়ে বড় কোন অর্জন আমাদের হতে পারতো কিনা; তবে আমি আশাবাদী। নতুন এই কর নীতি বা ট্যাক্স প্যাকেজ- এর আওতায় কর্পোরেট বা বাণিজ্যিক করের হার শতকরা ৩৫ থেকে ২১ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে। ব্যক্তি পর্যায়ে শতকরা ৮০ ভাগ আমেরিকান পরিবারের করের হার হ্রাস পেতে পারে আগামী বছর থেকে। এক্ষেত্রে যেসব মানুষের আয় ২৫ হাজার ডলারের কম তাদের গড় কর কর্তন হবে ৬০ ডলার। যাদের আয় ৪৯ হাজার থেকে ৮৬ হাজার ডলারের মধ্যে তারা কর ছাড় পাবেন প্রায় ৯০০ ডলার। ব্যক্তিগত পর্যায়ে আয়ের শীর্ষে যারা রয়েছেন, তাদের আয় যদি ৭ লাখ ৩৩ হাজার ডলারের বেশি হয় তাহলে তারা ৫১ হাজার ডলার কর মওকুফ পাবেন। তবে ৫ শতাংশ পরিবারের করের হার বৃদ্ধি পাবে। এমনটি জানিয়েছেন নিরপেক্ষ কর পর্যবেক্ষকরা। তবে কর হ্রাসের একটি সামগ্রিক প্রভাব পড়বে। যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেশনাল বাজেট অফিস অনুমান করছে, এর ফলে আগামী এক দশকের মধ্যে ১ লাখ ৪০ কোটি হাজার ডলার জাতীয় ঋণের বোঝা চেপে বসার আশঙ্কা রয়েছে। এ প্রসঙ্গে ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ মিত্ররা বলেছেন, নাগরিকরা তাৎক্ষণিকভাবে এই নীতিকে স্বাগত না-ও জানাতে পারেন। তবে এর ফলে দীর্ঘমেয়াদে সুবিধা পাওয়া যাবে। বলা হয়েছে, যদিও ২০১৮ সালে এই নতুন কর নীতির সুফল না পাওয়া যায়, ২০২০ সাল নাগাদ তা প্রতীয়মান হবে এবং এটি ট্রাম্পকে পুনঃনির্বাচিত হতে সাহায্য করবে। সাম্প্রতিক বেশ কিছু সমীক্ষা অনুযায়ী, প্রতি ৩ জনের ১ জন নতুন এই কর নীতিকে সমর্থন করেন। ২ জনে ১ জন মনে করেন, এই নীতি তাদের ব্যক্তিগতভাবে আর্থিক ক্ষতির মুখে ঠেলে দেবে। ৩ জনে ২ জন মনে করেন এর ফলে ধনীরাই বেশি লাভবান হবেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24