মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের!

দলীয় কোন্দল : সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রচারে পিছিয়ে জেলা আ.লীগ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৫ জুলাই, ২০১৭
  • ৩১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থানকারী আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরার দাবি জানিয়েছেন তৃণমূল নেতৃবৃন্দ। তারা জানিয়েছেন স্বাধীনতার পর মহাজোট সরকারের টানা দুই মেয়াদে দেশ উন্নয়ন অবকাঠামোয় দ্রুত বদলে যাচ্ছে। প্রান্তিক এই জনপদ সুনামগঞ্জেও উন্নয়নের জোয়ার বইছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগসহ অবকাঠামোগত দৃশ্যমান অনেক উন্নয়ন হয়েছে এ জেলায়। প্রায় সবগুলো উপজেলা এখন সরাসরি যোগাযোগের আওতায় এসেছে। তবে এসব উন্নয়ন কর্মকা- প্রচারে পিছিয়ে রয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ।
প্রসঙ্গত, আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি সরকারের উন্নয়নচিত্রে তুলে ধরার জন্য নেতাদের প্রতি বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসব নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, প্রতিটি মুহূর্ত জনসেবায় নিয়োজিত থাকা, জনগণের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটানো, দলকে সুসংগঠিত করতে পরিকল্পিতভাবে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম চালু করা। যার যার অবস্থান থেকে সুচারুভাবে এই দায়িত্ব পালন করতে নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা। পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াত জোটের জ্বালাও-পোড়াও কর্মকাণ্ডের চিত্রও জনগণের সামনে তুলে ধরারও নির্দেশনা দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।
সুনামগঞ্জ জেলার বেকারত্ব দূরীকরণে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার জন্য টেকনিক্যাল ইনস্টিস্টিটিউট ও টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট নির্মাণ প্রক্রিয়াধীন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার এতসব উন্নয়ন করলেও স্থানীয় আওয়ামী লীগ, অঙ্গ সংগঠন এবং মহাজোটের শরিক দলগুলো সাধারণ মানুষের সামনে সেই উন্নয়ন তুলে ধরতে ব্যর্থ হচ্ছে। তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত কোন্দলের কারণে এটা সম্ভব হচ্ছেনা বলে মনে করছেন তারা। শুধু আওয়ামী লীগই নয় ১৪ দলীয় জোটের অন্য শরিকরাও এই ক্ষেত্রে ব্যর্থ।
তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান, ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর সুনামগঞ্জ জেলায় নানা খাতে উন্নয়ন হচ্ছে। বড় বড় সড়ক, সেতু নির্মিত হচ্ছে। নতুন হাসপাতাল, কলেজ, বিদ্যালয় স্থাপিত হচ্ছে। সরকারিকরণ হয়েছে একাধিক কলেজ ও হাইস্কুল। কৃষিক্ষেত্রেও বিরাট পরিবর্তন হয়েছে। নির্মিত হয়েছে একাধিক রাবার ড্যাম। টিআর, কাবিটা, কাবিখা, কর্মসৃজন, এডিপিসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন করা হচ্ছে। তাছাড়া সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিও আগের তুলনায় বহুগুণ বেড়েছে। অনলাইন-প্রযুক্তিতেও নানা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। দৃশ্যমান অনেক উন্নয়ন হচ্ছে নিয়মিত। সুফলও পাচ্ছে সাধারণ মানুষ। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারের এই উন্নয়ন-সম্ভাবনা যথাযথভাবে তুলে ধরা হচ্ছেনা। শুধু সাংসদবৃন্দ নিজ নিজ এলাকায় অনেকটা দায়সারাভাবে উন্নয়ন কর্মকা- নিয়ে অনুষ্ঠান করছেন।
আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জানান, মহাজোট সরকারের এই দুই মেয়াদে শত কোটি টাকার প্রকল্পগুলোর মধ্যে আব্দুজ জহুর সেতু নির্মাণকাজ শেষ করেছে। কুশিয়ারা সেতু, ছাতকে সুরমা সেতু, যাদুকাটা নদীতে সেতু, দাড়াইন, কালনীসহ বিভিন্ন উপজেলার বড় বড় নদ-নদী খালে সেতু করে সরাসরি জেলার সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার উদ্যোগ নিয়েছে। সরকারি হাসপাতাল হচ্ছে। মেডিকেল কলেজের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে টেক্সটাইল ইন্সটিটিউটের। এভাবে জেলাজুড়ে দৃশ্যমান নানা উন্নয়ন হলেও দলীয় নেতাকর্মীরা সেই উন্নয়ন জনতার সামনে তুলে ধরছেন না। বরং প্রতিনিয়ত দলটির সকল অঙ্গ সংগঠনের মধ্যেও বিরোধ বাড়ছে। নেতাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব বেড়ে চলছে।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ডের সভাপতি ওবায়দুর রহমান কুবাদ বলেন, সুবিধাবাদীরা সুযোগ নিয়ে আমাদের নেতাদের ব্যবহার করে নিজের স্বার্থ হাসিল করছে। দ্বন্দ্ব থাকায় অনেক নেতা-কর্মী নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন।
জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হায়দার চৌধুরী লিটন বলেন, আমাদের আওয়ামী লীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনকে ভেদাভেদ ভুলে সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচি সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরার কাজে মনোযোগী হতে হবে। কারণ স্বাধীনতার পরে এমন দৃশ্যমান উন্নয়ন করতে পারেনি কোন সরকার। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহাজোট সরকার এখন প্রকৃত অর্থেই উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করছে। উন্নয়নে বদলে গেছে আমাদের অবহেলিত জেলাটিও।
সুনামগঞ্জ পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ূব বখত জগলুল বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা ও আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়ন অবকাঠামোয় মাধ্যমে দেশকে অনেক উঁচুতে নিয়ে গেছেন। সেই উন্নয়নকে সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে।
সুত্র-সুনামকন্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24