মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

দুই পরিবারের কেউ বেঁচে নেই

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন, ২০১৭
  • ৩৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ওরা দুই পরিবারের ৮ সদস্য। পাশাপাশি বাড়ি ছিলো তাদের। এক পরিবারে স্বামী, স্ত্রী আর দুই সন্তান। আরেক পরিবারেও তাই। স্মরণকালের ভয়াবহ পাহাড় ধসে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় মাটি চাপা পড়ে তাদের কেউই আর বেঁচে রইলো না। চোখের জল ফেলারও কাউকে খুঁজে পাওয়া গেলো না এসব সদস্যদের জন্য। গতকাল বুধবার বিকেল পর্যন্ত এখানে মোট ২৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। যদিও এখনো মাটি চাপা পড়ে আছেন আরো অনেকে। তবে এই দুই পরিবারের কোন সদস্যের বেঁচে না থাকার খবরটি যেন সবার মুখে মুখে। একজনের নাম ছিলো নজরুল ইসলাম। পেশায় দিনমজুর। তার ছিলো চার সদস্যের পরিবার। বাসা ভাড়া নিয়ে থাকার মতো সামর্থ্য না থাকায় বন্ধু ইসমাইলকে নিয়ে বসতি গড়েন রাঙ্গুনিয়া রাজানগরের বগাবিল গ্রামের পাহাড়ের পাদদেশে। দুই জনের বয়স ৪০। উভয়ের ঘরে সন্তান ছিল দুই জন করে। গত সোমবার রাতে যখন প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছিলো, তখন পাহাড়ের পাদদেশে এই দুই পরিবারের ঘরের উপর আস্ত মাটি খসে পড়ে। মুহূর্তেই মাটি চাপা পড়ে মারা যায় দুই পরিবারের ৮ সদস্য।
তারা জানান, নজরুল ও তার স্ত্রীসহ দুই সন্তানের লাশ পাওয়া গেছে তাদের ঘরে মাটি চাপা অবস্থায়। অন্যদিকে একইভাবে পাশের ঘরে লাশ দেখা গেছে ইসমাইল ও তার স্ত্রীসহ দুই সন্তানের।
ঘটনাটি র্মমান্তিক বলে উল্লেখ করেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামাল হোসেন। তিনি বলেন, প্রথমে বিশ্বাস করিনি। ভেবেছিলাম কেউ না কেউ বেঁচে আছে। কিন্তু পরে যখন দেখলাম লাশ নেয়ার জন্য কেউ নেই তখন নিশ্চিত হলাম ৮ জনের সবাই মারা গেছে। তিনি আরও বলেন, ঘটনাটি ঘটেছে রাজানগরের বগাবিল গ্রামে। নিহত দুই পরিবারের সব সদস্য পাশাপাশি থাকতেন। তাদের ঘরের পাশে আর কোন বাড়ি নেই। কেবল দুটিই বাসা। যার একটিতে দিনমজুর ইসমাইল ও অন্যটিতে নজরুলের পরিবার থাকতো। স্থানীয় চেয়ারম্যান সেকান্দর বলেন, আমরা ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করলেও এই দুই পরিবারের কেউ না থাকায় তাদের দিতে পারছি না। তিনি আরও বলেন, প্রতি পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে সাহায্য দিচ্ছি। যাদের কেউ বেঁচে নেই তাদের টাকা ফেরত পাঠানো হবে। ঘুমের মধ্যেই নজরুলসহ তার স্ত্রী আসমা আক্তার বাচু, ১৫ বছরের ছেলে নানাইয়া ও নয় বছরের মেয়ে সাফিয়া আক্তার মারা গেছে।
অন্যদিকে ইসমাইলসহ তার স্ত্রী মনিরা আক্তার, আট বছরের মেয়ে ইভা ও চার বছরের মেয়ে ইছাও নিহত হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। গত সোমবার ও মঙ্গলবারের ভয়াবহ পাহাড়ধসে কেবল রাঙ্গুনিয়াতেই ৪ পরিবারের ১৩ জন নিহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে এই দুই পরিবারের ৮ জনের কেউই আর থাকলেন না পৃথিবীতে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24