সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
’সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ১৩ হাজার পদ শূন্য’ জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন আজ জগন্নাথপুরের লহরী গ্রামে শীতবস্ত্র বিতরণ আদালতের আদেশে জগন্নাথপুরের বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উৎসব আবারো স্থগিত মিরপুরে বর্নিল সাজে দুইদিন ব্যাপি প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন মৌলভীবাজারে স্ত্রী-মাসহ ৪ জনকে হত্যার পর আত্মহত্যা জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন আ,লীগের সম্মেলন সফল করার লক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ডাক্তার-নার্সের অবহেলায় শিশুর মৃত্যুের অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন মুঠোফোনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কিশোরগঞ্জের তরুণী কে জগন্নাথপুর এনে ধর্ষণ নান্দনিক আয়োজনে ঐতিহ্যবাহি মিরপুরের উচ্চ বিদ্যালয়ে সাবেক শিক্ষার্থীদের মিলনমেলায় বাঁধাভাঙা উচ্ছ্বাস

দূর হতে চলেছে জগন্নাথপুর-দ. সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে টিউবওয়েল-স্যানিটেশন সমস্যা

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : রবিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২০২ Time View

জন্মের পর থেকে বাবা, মাসহ পরিবারের লোকজনের সঙ্গে নদীর পানি খেয়েছি। গত ২০ বছর ধরে দেড় মাইল দূরবতী গ্রামের এক বাড়ির টিউবওয়লের (গভীর নলকূল) পানি খেয়ে আসছি আমরা। ৬০ বছর পর এখন নিজের আঙিনায় টিউবওয়েলের বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারব ভেবে খুবই খুশি আর আনন্দ লাগছে।

গত শুক্রবার জগন্নাথপুর উপজেলা সদরের স্বরূপ চন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গভীর নলকূল ও পাকা ল্যাট্রিন বিতরণী সভাস্থলে আসা জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের বালিকান্দি গ্রামের জবর আলী (৬৫) এসব কথা বলেন। সেখানে একই ইউনিয়নের তেলিকোনা গ্রামের আব্দুস সামাদ নামে আরেক বৃদ্ধ জানান, বাবা-দাদার মতো আমরা খালের পানি পান করেছি বছরের পর বছর। গত ১৫ বছর ধরে গ্রামের অন্যদের বাড়ির টিউবওয়েলের পানি পান করছি পরিবারের লোকজনদের নিয়ে। তিনি জানান, আমাদের মন্ত্রী নাকি এবার গরিব লোকজনকে টিউওয়েল দিচ্ছেন। আমাদের স্থানীয় মেম্বার আমার নাম দিয়েছেন তাই এখানে এসেছি। টিউবওয়েল পেয়ে খুবই ভালো লাগছে।

জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত (সুনামগঞ্জ-৩) আসনের সংসদ সদস্য ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের প্রচেষ্টায় জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জের উপজেলায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে গভীর নলকূপ স্থাপন ও শতভাগ স্যানিটেশনের আওতায় আনতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে শত কোটি টাকা বরাদ্দ পাওয়া যায়। এরমধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়নের জন্য ৫০ কোটি টাকা ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জের আটটি ইউনিয়নে ৫০কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। স্বচ্ছভাবে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য গত জুন মাস থেকে জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লোকজনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, এলাকার জনসাধারণসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণে সভার মাধ্যমে সঠিকভাবে উপকারভোগীদের প্রাথমিকভাবে তালিকা তৈরী করা হয়। এরপর জনস্বাস্থ্যের লোকজন বাড়ি বাড়ি গিয়ে যাচাই বাছাই করে সত্যতা নিশ্চিত করেন। ১০ পরিবারের মধ্যে একটি করে টিউবওয়েল দেয়া হচ্ছে। আর স্যানেটিশন সামগ্রী দেয়া হচ্ছে সুবিধাবঞ্চিত হতদরিদ্র পরিবারগুলোর মধ্যে। জগন্নাথপুরে গভীর নলকূপ (টিউবওয়েল) পাচ্ছেন চার হাজার পরিবার এবং স্যানেটিশন সামগ্রীও পাচ্ছেন চার হাজার পরিবার। অনুরূপভাবে দক্ষিণ সুনামগঞ্জেও বিতরণ করা হচ্ছে। ঢাকা, সিলেট ও সুনামগঞ্জের ৪০টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এসব কাজ করছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় অতিরিক্ত দায়িত্বপালনকারী প্রকৌশলী আব্দুর বর সরকার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান মহোদয়ের প্রচেষ্টায় জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় দরিদ্র ও হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকা উন্নয়ন প্রকল্পের কাযাক্রম পুরোদমে চলছে। মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে সততা আর স্বচ্ছতার মাধ্যমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, এলাকাবাসীসহ সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে আমরা এ প্রকল্পের সুবিধাভোগী নির্ধারণ করেছি। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ইতিমধ্যে চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নসহ জগন্নাথপুরের প্রায় এক হাজার পরিবারের মধ্যে নলকূপ ও স্যানেটিশন স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। কিছু দিনের মধ্যে জগন্নাথপুরের ৪ হাজার পরিবারের মধ্যে টিউবওয়েল ও ৪ হাজার স্যানেটিশন স্থাপন করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

এদিকে জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বাড়ি বাড়ি এখন নলকূপ স্থাপনের কাজ চলছে। এতে আনন্দ আর খুশির যেন শেষ নেই সুবিধাভোগী মানুষের।

চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরাঞ্চালের মানুষ এক সময় ভাসান পানি, নদী ও খাল বিলের পানি খেয়ে জীবন বাঁচাতেন। এখনও বেশিরভাগ মানুষ নদ-নদী আর ভাসান পানি পান করছেন। এছাড়াও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশনেরও খুবই অভাব গ্রামগঞ্জে। আমাদের মন্ত্রী এমএ মান্নানের মহোদয়ের প্রচেষ্টায় আমাদের হাওরপাড়ে অনেক বাড়িতেই টিউবওয়েল (নলকূপ) স্থাপন করার কাজ শুরু হয়েছে। চলছে স্যানিটেশনের কাজও। এ অঞ্চলের লোকজনের মধ্যে আনন্দের যেন শেষ নেই।

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশনের অভাবে অনেক ধরণের রোগে প্রায়শ: আক্রান্ত হন হাওরাঞ্চলের মানুষ। অচিরেই জগন্নাথপুরের প্রতিটি গ্রামে গ্রামে নলকূপ আর স্যাটিটেশন স্থাপনের কাজ এক যোগে চলবে। এটি বাস্তবায়িত হলে এসব রোগবালাই দূর হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24