শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সাম্রাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

নির্বাচন বর্জনের পথেই হাঁটছে বিএনপি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১৩৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::রাজনৈতিক সমঝোতার লক্ষণ দেখছে না বিএনপি। তাই দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো বর্জনের পুরনো স্টাইলেই হাঁটছে দলটি। খালেদা জিয়ার মুক্তি, তফসিল ঘোষণার আগেই সরকারের পদত্যাগ, ইভিএম বাদ দেয়া, সামরিক বাহিনীর অধিনে নির্বাচন, আলোচনায় বসার মতো এখনো সমাধানের পথে ক্ষমতাসীন সরকার না হাঁটায় একাদশ সংসদ নির্বাচনে এসেও অতীতের ভাবনা ভাবছে দলটি। তবে দেশের ও জনগণের স্বার্থে রাজনৈতিক সমঝোতার আহ্বান করছেন বুদ্ধিজীবী মহল। রাজনৈতিক সমঝোতার মাধ্যমে রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার দাবি জানানো হচ্ছে। সমঝোতার আগেই আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ট্রেন ছেড়ে দিয়েছে বলে ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যের পর বিএনপি পাড়ায় পুরনো হতাশা ফের নতুন করে জন্ম নিয়েছে। বিএনপিকে পরামর্শ দিয়ে বুদ্ধিজীবী মহল বলছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পরও আওয়ামী লীগ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। এরশাদের সময়সহ সব সরকারের আমলেই কৌশলগতভাবে এগিয়েছে এবং আজকের অবস্থানে পৌঁছেছে। বিএনপিরও নির্বাচনে থাকার কৌশল নেয়া উচিৎ। কেননা, আওয়ামী লীগ নিজেও ২১ বছরে বিভিন্ন রকমের বেকায়দা মোকাবিলা করেছে। এই বেকায়দা মোকাবিলা করতে করতে আজকে একটা অবস্থানে গিয়ে পৌঁছেছে। ক্ষমতায় আসতে পারে নাই ঠিকই, কিন্তু সামরিক শাসনসহ বিভিন্ন সময়ে নানান কৌশলে এগিয়েছে, ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসেছে। আজকের বিএনপিও আওয়ামী লীগের ন্যায় নানান সংকটে রয়েছে। দীর্ঘ ১০ বছর ক্ষমতার বাইরে, দলের চেয়ারপারসন কারাগারে অসুস্থ। মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। তারেক রহমান নেই দেশের মাটিতে। দলের শীর্ষ নেতারাও কেউ কারাগারে, কেউ দেশছাড়া। তবুও কৌশলগত কারণে দলটিকে এবার নির্বাচনে যাওয়া উচিৎ। যদিও এর আগে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম বলেছিলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির সাথে বিএনপির নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়ার কোনো সম্পর্ক নেই। কিছুদিন ভেতরে ভেতরে প্রার্থী নির্ধারণ করে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিলেও হঠাৎ জাতীয় ঐক্য গঠনের আহ্বানের পর থেকে নির্বাচন বর্জনের পুরনো স্টাইলে হাঁটছে দলটি। গতকাল খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি না মিললে বিএনপি আগামী নির্বাচন বর্জন করার ঘোষণা দেয়। তারা বলেন, কারাগারে খালেদা জিয়া মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচনে যাবো না। খালেদা জিয়া মুক্ত হলেই নির্বাচনে যাবো। ২০ দলের ইসলামপন্থি জোট নেতাদের ভাষ্য জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে বিএনপির শেষ কোমর ভাঙবে। তাদের দাবি আওয়ামী লীগকে বৈধতা দেয়ার জন্য ঐক্যের নেতারা অন্যের ইশারায় কাজ করবেন। তাই বিএনপিকে নির্বাচন বর্জন না করে কৌশলগত কারণে হলেও অংশ নেয়া উচিৎ।২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ অধিকাংশ দলই নির্বাচন বর্জন করে। তখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্রসহ ১৭টি দল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। নির্বাচনে ৩০০টি আসনের মধ্যে ১৫৩টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ায় নির্বাচনটি নিয়ে অনেক বিতর্কের সৃষ্টি হয়। আন্তর্জাতিক মহলে বাংলাদেশ হয় প্রশ্নবিদ্ধ। নির্বাচনে অংশ না নিয়ে যার রেশ এখনো বিএনপিকে টানতে হচ্ছে। তখন অবশ্যই বিরোধী দল হিসেবে নানা নাটকের জন্ম দিয়ে সরকারকে বড় সাপোর্ট দিয়েছেন এরশাদ। এবার সেই এরশাদ কিছুদিন ধরে আর বিরোধী দলে থাকবে না বললেও গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে ডিগবাজ এরশাদ বলে এসেছেন, আর ২০১৪-র মতো নাটক করবো না। সুন্দরভাবেই নির্বাচনে যাবেন। আমৃত্যু আওয়ামী লীগের সঙ্গেই থাকবেন। এদিকে গত রোববার রাতে গুলশানে ২০ দলের বৈঠকে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার একটা কথা বারবার উঠে আসে, তা হলো নির্বাচনে জয় হলে তাদের প্রথম দুবছর সরকার পরিচালনা করতে দিতে হবে। এছাড়া বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীও ছিলেন আলোচনায়। তিনি বলেছিলেন, তাদের ১৫০ আসন দিতে হবে। এ প্রসঙ্গে বিএনপি কী ভাবছে? মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে অনেক দলের প্রধানরাই এ বিষয়ে জানতে চেয়েছেন। তখন তিনি বলেন, এ সবই আলোচনার পর্যায়ে। আলোচনা চলছে। আমরা আমাদের কথা বলবো। এগুলো নিয়ে কথা কম হওয়াই ভালো। পরে উপস্থিত সাংবাদিকদের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা জাতীয় ঐক্য চাই। সরকারের বিরুদ্ধে ন্যূনতম কর্মসূচির ভিত্তিতে এক জায়গায় আসতে চাই। ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে মির্জা ফখরুলের বক্তব্যকে সমর্থন করে সবাই জাতীয় ঐক্য গড়ার পক্ষে একমত হন। উপস্থিত সাংবাদিকরা তখন প্রশ্ন করেছিলেন তাহলে কী জাতীয় ঐক্যে জামায়াতকেও সম্পৃক্ত করা হচ্ছে? এমন প্রশ্নে তিনি কোনো উত্তর দেননি। এদিকে মাঠপর্যায়ের সূত্রে জানা যায়, বিএনপির কাছে জোটের অন্যতম প্রধান শরিক জামায়াতে ইসলামী চায় অন্তত ৬০টি আসন। জোটের অন্যতম শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) ও খেলাফত মজলিস চায় অন্তত ৩০টি করে আসন। এছাড়া জোটের শরিক দল জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) ১৫টি, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১০টি, বিজেপি ২টি, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম এবং লেবার পার্টি চায় ৬টি করে আসন, বাংলাদেশ ন্যাপ ৫টি, এনডিপি ২টি, জাগপা ও এনপিপি চায় ৪টি করে আসন, ডেমোক্রেটিক লীগ ও ন্যাপ চায় (ভাসানী) ২টি করে আসন এবং সাম্যবাদী দল চায় ১টি আসন। এছাড়া যুক্তফ্রন্ট বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ নির্বাচনে গেলে অন্তত ৫০টি আসন চাইতে পারে বলে জানা গেছে। এছাড়া জাতীয় ঐক্য ও আসন দ্বন্দ্বে বিএনপি নির্বাচনে না যাওয়ার মনোভাব উল্লেখ করে জামায়াতের এক নীতিনির্ধারক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হয়ে আমার সংবাদকে বলেন, সরকার প্রথমে ড. কামাল-বি চৌধুরীর মাধ্যমে বিএনপিকে জামায়াত ছাড়ার উস্কানিতে ব্যর্থ হয়ে এখন পুরো বিএনপিকে ভেঙ্গে দিতে নতুন কৌশল নিয়েছে। তা হলো নির্বাচনে অংশ না নেয়া। যেহেতু আমরা এবার আমাদের স্বার্থেই নির্বাচনের প্রস্তুতি রেখেছি। আমাদের ঠেকাতে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়াকে ভারতের পৃষ্ঠপোষকতায় গঠন করা হয়েছে। তবে এ নিয়ে মাঠে সরব রয়েছে বামপন্থি রাজনৈতিক দলগুলো। বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, দেশের পরিস্থিতি জটিল। শাসকশ্রেণি বিরাজমান সমস্যা সমাধান করতে পারছে না। এই দুঃশাসনের উৎস নির্মূল করে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সে জন্য বাম গণতান্ত্রিক জোট রাজপথে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে। দাবি আদায়ের লক্ষ্যে দেশব্যাপী সভা-সমাবেশ করা হবে। দাবি আদায় হলে আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবো। আর সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি না হলে চলমান পদ্ধতিতে নির্বাচনে অংশ নেবো না। অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেন, বামদের ঐক্য থাকলে দেশের অবস্থা আরও ভালো থাকতো। কর্মসূচি নিলে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। তিনি বলেন, দেশে উন্নয়ন হচ্ছে কিন্তু সুশাসনের ঘাটতি আছে। এ অবস্থার পরিবর্তন দরকার।বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, এদেশে কোনো নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না জনগণের কাছে, যদি দেশনেত্রী কারাগারে থাকেন। এ নিয়ে লেবার পার্টির সভাপতি ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেন, দেশ এখন দুভাগে বিভক্ত। আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়ার মুক্তি ব্যতিত দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24