রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে প্রবাসির অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ জগন্নাথপুরের বিএন হাইস্কুলের শতবর্ষ উৎসবে-পরিকল্পনামন্ত্রী, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে:পানিসম্পদ উপমন্ত্রী জগন্নাথপুরে বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে শতবর্ষ উৎসব আজ ক্ষোভের পর আনন্দে ভাসছে ইউনিয়নবাসি জগন্নাথপুরে শতবর্ষ অনুষ্ঠানে যারা থাকছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে শনিবার আসছেন জগন্নাথপুরে বেপরোয়া অটোরিকশার চাপায় প্রাণ গেল শিশুর সিলেটে প্রভূপাদ বিশ্বরূপ গোস্বামীর দীক্ষা প্রদান ও ভাগবতীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী বিক্ষোভে জনসমুদ্র জগন্নাথপুরের সেই সেতুর সংযোগ সড়কের কাজে অনিয়মের অভিযোগ

বিফল আশায় প্রহর গুনছেন জগন্নাথপুরে সংর্ঘষে নিহত নুরের মা মমতা বেগম

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৬৮ Time View

সুহেল হাসান/কামরুল ইসলাম মাহি::
ছেলে মারা গেছে তারপরও ছেলে ফিরার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন ৭০ বছর বয়সী মমতা বেগম।
তিনি জগন্নাথপুর উপজেলার উপজেলার কলকিলয়া ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামে সম্প্রতি বন্দুক যোদ্ধে নিহত নুর আলীর মাতা।
মমতা বেগম নিহত নুরের অস্বাভাবিক এ মৃত্যু কিছুতেই মানতে পারছেন না। তিনি প্রতিদিন ঘরে দুয়ারে বসে থাকেন আদরের নুর ফিরে আসার জন্য।
গতকাল রোববার দুপুরে সরজমিনে নিহত নুরের বাড়িতে গেলে বিফল অপেক্ষায় প্রহর গুনা মমতাকে দুয়ারে বসে থাকতে দেখে তার সাথে কথা বলতে চাইলে পরিবারের অন্যানরা জনান, সে শারীরিক প্রতিবন্ধী (শ্রবণশক্তিহীন)। এমন সময় তাকে আকার ইঙ্গিতে নিহত নুরের কথা বলতে চাইলে তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তার চোখ থেকে পড়তে শুরু করে অস্রু।
পরিবারে সদস্যরা জানান, নুর মারা যাওয়ার পর থেকে প্রতিদিন দুয়ারে বসে থাকেন মমতা। তিনি মনে করেন তার ছেলে নুর মরে নাই। নুর আসবে। তাই ছেলের অপেক্ষায় আজোও দিন গুনছেন।
নিহত নুরের স্ত্রী হাবিবা বেগমের সাথে কথা বলতে চাইলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এসময় কান্না জড়িত কণ্ঠে পিতৃহারা শিশু সন্তান ফাইজা বেগম (৬) জানায়, আমার আব্বারে তারা মারিলিছে। আমরা এখন বাবা ডাকতাম কারে। যারা আমার আব্বারে মারছে তারার বিচার চাই।
প্রসঙ্গত,গত ১৬ সেপ্টেম্বর শ্রীধরপাশা গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল মালিক ও ফয়সল আহমদ এবং একই গ্রামের বিএনপি নেতা জাবেদ কুরেশী পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। এতে প্রতিপক্ষের ছুড়া গুলি তার শরীরে লাগলে মাঠিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে অবস্থা খারাপ হলে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রের্ফাড করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১১ দিনের পর মারা যায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত তছকিন আলীর ছেলের নুর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24